আমতায় আক্রন্ত কংগ্রেস বিধায়ক

নিজের নির্বাচনী কেন্দ্র আমতাতেই আক্রান্ত হলেন কংগ্রেস বিধায়ক অসিত মিত্র।  বিধায়কের মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়েছে। হাওড়ার জয়পুরের সন্ত্রাস বিধ্বস্ত  কাশমূলি এবং ঝামটিয়ায় যেতে গিয়েই আক্রান্ত হন বিধায়ক। হামলার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। আক্রান্ত হয়েছেন ওই কেন্দ্রের প্রাক্তন বিধায়ক সিপিআইএম নেতা রবীন্দ্রনাথ মিত্র এবং প্রাক্তন মন্ত্রী মোহন্ত চট্টোপাধ্যায়। এখনও কাউকে গ্রেফতার করেনি পুলিস। 

Updated: Jul 10, 2013, 06:39 PM IST

নিজের নির্বাচনী কেন্দ্র আমতাতেই আক্রান্ত হলেন কংগ্রেস বিধায়ক অসিত মিত্র।  বিধায়কের মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়েছে। হাওড়ার জয়পুরের সন্ত্রাস বিধ্বস্ত  কাশমূলি এবং ঝামটিয়ায় যেতে গিয়েই আক্রান্ত হন বিধায়ক। হামলার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। আক্রান্ত হয়েছেন ওই কেন্দ্রের প্রাক্তন বিধায়ক সিপিআইএম নেতা রবীন্দ্রনাথ মিত্র এবং প্রাক্তন মন্ত্রী মোহন্ত চট্টোপাধ্যায়। এখনও কাউকে গ্রেফতার করেনি পুলিস। 
সিপিআইএমকে সমর্থন করার অপরাধে জয়পুরের কাশমূলি এবং ঝামটিয়ায় কয়েকটি পরিবারকে হুমকি চলছিলই। বাগনানে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের সভায় যাওয়ার পর হুমকিটা আরও বেড়ে যায়। মঙ্গলবার রাতে চলে তাণ্ডব। অভিযোগ, প্রায় ৬০-৭০ জন তৃণমূল কর্মী সশস্ত্র অবস্থায় গ্রামে ঢুকে সিপিআইএম কর্মী-সমর্থকদের বাড়িতে পুড়িয়ে দেয়। 
 
নিজের কেন্দ্রে হামলার খবর পেয়ে বুধবার সকালে গ্রামে যেতে যান স্থানীয় কংগ্রেস বিধায়ক অসিত মিত্র। সিপিআইএম কর্মী-সমর্থকদের জন্য ত্রাণ নিয়ে যেতে যান সিপিআইএম নেতা প্রাক্তন বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ মিত্র, প্রাক্তন মন্ত্রী মোহন্ত চট্টোপাধ্যায়। অভিযোগ, কাশমূলি গ্রামে ঢোকার মুখে তাঁদের ওপর চড়াও হয় তৃণমূল কর্মীরা।
 
বিধায়কের মাথা ফেটে গিয়েছে। তাঁর চোখেও আঘাত লেগেছে। রক্তাক্ত অবস্থায় বিধায়ককে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় হাসপাতালে। সেখানে প্রাথমিক চিকিত্সার পর জখম বিধায়ককে নিয়ে আসা হয় কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে।
বিধায়ক অসিত মিত্রের ওপর হামলার প্রতিবাদে বুধবার মহাকরণের সামনে বিক্ষোভ দেখান যুব কংগ্রেস কর্মীরা। রাজ্যজুড়ে বৃহস্পতিবার কালাদিবসের ডাক দিয়েছে কংগ্রেস। তবে পঞ্চায়েত ভোটের জন্য প্রতিবাদ কর্মসূচি থেকে বাদ রাখা হয়েছে জঙ্গলমহলের তিন জেলাকে। হামলার ঘটনা নিয়ে বুধবার রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করে প্রদেশ নেতৃত্ব।  
 
ঘটনার নিন্দা করেছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি প্রদীপ ভট্টাচার্য। নিন্দায় সরব হয়েছে সিপিআইএমও। তৃণমূল কংগ্রেস অবশ্য বিধায়কের ওপর হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তাঁদের পাল্টা অভিযোগ, আক্রান্ত হয়েছে তাঁদের দলের কর্মীরাই। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে এমন ঘটনায় সন্ত্রস্ত জয়পুর এবং সংলগ্ন অঞ্চল। ঘটনার পর দীর্ঘক্ষণ কেটে গেলেও কেউ গ্রেফতার না হওয়ায় পুলিসের ভূমিকা নিয়েও তৈরি হয়েছে ক্ষোভ।