রাজ্যজুড়ে চলছে সিপিআইএমের পার্টি অফিস ভাঙচুর `কর্মসূচি`তৃণমূলের!

২০১৩ বছরের প্রথম দিনটা রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের বিরুদ্ধে তাণ্ডব চালানোর অভিযোগ উঠল। পশ্চিম মেদিনীপুর থেকে হাওড়া, হুগলির বিভিন্ন জায়াগায় সিপিআইএমের দলীয় কার্যালয় ভাঙচুরের অভিযোগ উঠল।

Updated: Jan 1, 2013, 09:21 PM IST

২০১৩ বছরের প্রথম দিনটা রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের বিরুদ্ধে তাণ্ডব চালানোর অভিযোগ উঠল। পশ্চিম মেদিনীপুর থেকে হাওড়া, হুগলির বিভিন্ন জায়াগায় সিপিআইএমের দলীয় কার্যালয় ভাঙচুরের অভিযোগ উঠল।
প্রথমেই দেখে নেওয়া যাক রাজ্যের কোথায় কোথায় সিপিআইএমের দলীয় কার্যালয় ভাঙার অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে:
১) পশ্চিম মেদিনীপুরের ডেবরার লোয়াদা পঞ্চায়েত এলাকায়
২) ডেবরার লোয়াদায় পঞ্চায়েতের নন্দবাড়ি গ্রামে
৩) পিংলার খিরিন্দা হাইস্কুলে
৪) পশ্চিম হাওড়ার ব্যাঁটরা এলাকায়
৫) হুগলির উত্তরপাড়া থানার কোতরং এলাকায়
সিপিআইএমের দলীয় কার্যালয়ে ভাঙচুর চালিয়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরের ডেবরার লোয়াদা পঞ্চায়েত এলাকায়। স্কুল নির্বাচন ঘিরে অশান্তির খবর মিলেছে পিংলা থেকেও। সিপিআইএম কর্মী-সমর্থকদের বাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। তৃণমূল কংগ্রেস অবশ্য যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছে। 
রবিবার রাতেই ডেবরার লোয়াদায় সিপিআইএমের দলীয় কার্যালয়ে ভাঙচুর চালিয়েছিল একদল দুষ্কৃতী। একদিন কাটতে না কাটতেই ফের হামলা। এবার লোয়াদা পঞ্চায়েত এলাকারই নন্দবাড়ি গ্রামে। সিপিআইএম নেতৃত্বের অভিযোগ, সোমবার রাতে পিকনিক করে ফেরার পথে সিপিআইএমের স্থানীয় কার্যালয়ে চড়াও হয় তৃণমূল কংগ্রেসের একদল কর্মী-সমর্থক।
  
এলাকায় পুলিস পিকেট বসানো হয়েছে। পরপর হামলার জেরে আতঙ্কিত গ্রামবাসীরা। অশান্তির খবর মিলেছে পিংলা থেকেও। অভিযোগ, খিরিন্দা হাইস্কুলে নির্বাচনে জয়ের পর সোমবার বিজয়মিছিল বের করে তৃণমূল কংগ্রেস। অভিযোগ, মিছিল থেকেই হামলা চালানো হয় কয়েকজন সিপিআইএম কর্মী সমর্থকের বাড়িতে। আতঙ্কে ঘর ছেড়েছে প্রায় কুড়িটি পরিবার। তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব অবশ্য দুটি ঘটনাতেই জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছে।
পশ্চিম হাওড়ার ব্যাঁটরা এলাকায় সিপিআইএমের লোকাল কমিটির অফিস ভাঙচুর চালাল দুষ্কৃতীরা। অফিসের মধ্যে থাকা দুজন স্থানীয় বাসিন্দাকে মারধর করে কয়েক হাজার টাকাও লুঠ করে তারা। গতকাল মধ্যরাতে বাইকে চেপে এসে দুষ্কৃতীরা হামলা চালায়। আহত দুজনের নাম উমেশ ভঞ্জ ও রাসবিহারী ভঞ্জ।  উমেশ ভঞ্জ হাওড়া জেলা হাসপাতালে চিকিতসাধীন।  হামলায় জড়িত তৃণমূল সমর্থকেরা,  অভিযোগ স্থানীয় সিপিআইএম নেতৃত্বের। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিস।  
হুগলির উত্তরপাড়া থানার কোতরং এলাকায় সিপিআইএমের শাখা কার্যালয়ে ভাঙচুর চালাল দুষ্কৃতীরা। গতকাল মধ্যরাতে ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের এই কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে দুষ্কৃতীরা  সিপিআইএমের দলীয় পতাকা পুড়িয়ে দেয় বলেও অভিযোগ। আজ সকালে বিষয়টি জানতে পেরে ঘটনাস্থলে পৌঁছন স্থানীয় সিপিআইএম নেতৃত্ব। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয়েছে বেশ কয়েকটি পোস্টার। পোস্টারে চারজন সিপিআইএম নেতাকে খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছে। এঘটনায় কোন্নগর পুলিস ফাঁড়িতে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তৃণমূল সমর্থকরাই এই হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ সিপিআইএমের। যদিও তৃণমূলের তরফে এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।