দু`মাস পর কেমন আছে কামদুনি, ২৪ ঘণ্টা এক্সক্লুসিভ

Last Updated: Tuesday, August 6, 2013 - 23:36

কামদুনির মুখ বন্ধ করার চেষ্টা হয়েছে অনেক। প্রথমে চাকরির টোপ, চোখরাঙানি, মাওবাদী তকমা। কাজ হয়নি তাতে। থামেনি আন্দোলন। ছাত্রী ধর্ষণ এবং খুনের দুমাস পূর্ণ হচ্ছে আগামিকাল। এখন কেমন আছে কামদুনি? চব্বিশ ঘণ্টার বিশেষ রিপোর্ট।   
মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি ছিল মাসখানেকের মধ্যে কঠোর শাস্তি পাবেন কামদুনিকাণ্ডে অভিযুক্তরা। বুধবার ঘটনার দুমাস পূর্ণ হচ্ছে। কামদুনি এখনও বিচারের অপেক্ষায়।  গত দুমাসে হাজারো চোখরাঙানি, নানা চাপ সহ্য করেছে কামদুনি। কিন্তু আন্দোলন থেকে পিছু হটেনি। কামদুনিকাণ্ডের পর খাদ্যমন্ত্রীর তরফে মৃতার পরিবারকে চাকরির টোপ দেওয়া হয়।
 
শাসক দলের ঝান্ডা লাগানো গাড়িতে মহাকরণে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা হয়। কামদুনির প্রত্যাখান। সিআইডির চার্জশিট নিয়ে আদালতের ভর্ত্‍‍সনা। রাজ্যের ওপর ভরসা হারিয়ে রাইসিনা হিলসে  কামদুনি। সরাসরি রাষ্ট্রপতির কাছে অভিযোগ করা হয়। কামদুনির ঘটনার জেরে মানবাধিকার কমিশন তলব করে পরিবহণসচিব ও স্বরাষ্ট্রসচিবকে। একসময় যারা সরকারের পাশে ছিলেন তারাই বিরোধিতায় সরব হয়ে ওঠেন। কলকাতার রাজপথে বের হয় বুদ্ধিজীবীদের ধিক্কার মিছিল।
কামদুনিতে টিম আমির। উদ্দেশ্য সত্যমেব জয়তে অনুষ্ঠানে কামদুনির ঘটনা তুলে ধরা। একের পর এক ঘটনায় চাপ বাড়ছিল সরকারের ওপর। কামদুনির আন্দোলন সামাল দিতে যে অন্য পথে হাঁটতে হবে, তা বেশ বুঝতে পারছিল শাসকপক্ষ। নেওয়া হল উদ্যোগ। ইতিমধ্যে বারাসত থানা ভেঙে চারটি থানা গড়া হয়েছে। যাতায়াতে নিরাপত্তা বাড়াতে পরিবহণ চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে কামদুনির রাস্তায়। পরিবারকে ডেকে নিয়ে ফের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করানোর চেষ্টা চলছে।
 
তবে শাসকদলের এই বিশেষ উদ্যোগের পিছনে অন্য রহস্যের গন্ধ পাচ্ছেন আন্দোলনকারীরা। আগামী ২৩ অগাস্ট বারাসত আদালতে কামদুনি মামলার পরবর্তী শুনানি। নায্য বিচার না পেলে ফের পথে নামবেন আন্দোলনকারীরা। এবার অনশনের রাস্তায়।      
 



First Published: Tuesday, August 6, 2013 - 23:36


comments powered by Disqus