প্লাবিত উদনারয়ণপুরের ৭টি গ্রামপঞ্চায়েত, পরিস্থিতি মোকাবিলায় জনসংযোগে জোর মুখ্যমন্ত্রীর

Last Updated: Wednesday, October 16, 2013 - 16:34

মুণ্ডেশ্বরী ও কানা দামোদরের জল বেড়ে যাওয়ায় প্লাবিত হাওড়ার উদয়নারায়ণপুর ব্লক। গতকাল দুপুরের পর থেকে জল ঢুকতে শুরু করে। সন্ধের পর থেকে প্লাবিত হয়ে যায় গোটা এলাকা। মোট ১১টা গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে৭টি জলমগ্ন। কয়েক হাজার জমির ফসল জলের নীচে। উদয়নারায়ণপুরে সব্জি চাষে ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। বহু এলাকাতেই পানীয় জলের সঙ্কট তীব্র। প্রশাসনের তরফে ত্রাণ বণ্টনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় অনেকটাই কম বলে অভিযোগ। জলের পাউচের পরিমাণ আরও বাড়ানোর দরকার বলে মত বাসিন্দাদের। আজ বন্যা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে উদয়নারায়ণপুর যান রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ রায়।
বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় জনসংযোগের ওপর জোর দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ বন্যা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে গোপীবল্লভপুরে যান তিনি। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ি পুনর্গঠনের জন্য ১৫ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্যের কথা ঘোষণা করেছেন তিনি। বিডিওদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। বিডিওদের ব্লক ছেড়ে না যাওয়ার নির্দেশও দিয়েছেন। শুরু হয়েছে ত্রাণ বিলির কাজ। গোপীবল্লভপুর থেকে পূর্ব মেদিনীপুরের বন্যাদুর্গত এলাকা পরিদর্শনে যান মুখ্যমন্ত্রী। 
রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতিকে ফের `ম্যান মেড` আখ্যা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই পরিস্থিতির জন্য ঝাড়খণ্ড সরকার ও দামোদর ভ্যালি কর্পোরেশনকে দায়ী করেছেন তিনি।
পাঁশকুড়ার গড়পুরুষোত্তমপুরে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়লেন পূর্বমেদিনীপুরের জেলাশাসক ও সেনাবাহিনীর জওয়ানরা। আজ গড়পুরুষোত্তমপুরে বন্যা পরিস্থিতি পরিদর্শনে যান জেলাশাসক অন্তরা আচার্য্য। বানভাসী এলাকায় ত্রাণ বণ্টন নিয়ে জেলাশাসকের কাছে ক্ষোভ উগরে দেন গ্রামবাসীরা। জেলাশাসকের আশ্বাসের পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।



First Published: Wednesday, October 16, 2013 - 16:35


comments powered by Disqus