হাওড়ায় হট্টগোলের মধ্যেই চলছে ভোট গ্রহণ

প্রিসাইডিং অফিসারের সামনেই  অন্যের ভোট দিলেন তৃণমূল কর্মী। হাওড়ার ডোমজুড় ব্লকের বাদামতলায় ধরা পড়েছে এই ছবি। অভিযুক্ত তৃণমূল কর্মীর নাম জিয়াউল হক।

Updated: Jul 19, 2013, 01:21 PM IST

প্রিসাইডিং অফিসারের সামনেই  অন্যের ভোট দিলেন তৃণমূল কর্মী। হাওড়ার ডোমজুড় ব্লকের বাদামতলায় ধরা পড়েছে এই ছবি। অভিযুক্ত তৃণমূল কর্মীর নাম জিয়াউল হক।
এভাবেই বিক্ষিপ্ত অশান্তির মধ্যে দিয়ে চলছে হাওড়ার ভোটগ্রহণ। অভিযোগ, বিভিন্ন বুথে বিরোধী দলের এজেন্টদের বসতে দেওয়া হচ্ছে না। পাঁচলায় ১৫টি বুথে বাম এজেন্টদের মারধর করে বের করে দেওয়া হয়েছে। মধ্য ধুনকি প্রি প্রাইমারি স্কুলে ছাপ্পা ভোটের অভিযোগে বন্ধ রয়েছে ভোটগ্রহণ। জগাছা, ধূলাগড়, পাঁচলা, সাঁকরাইল, লিলুয়ার  বেশ কয়েকটি বুথেও বাম এজেন্টদের বসতে বাধা দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ।
বাঁকড়ার শরত্পল্লি প্রাথমিক স্কুলের তিনটি বুথে ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ব্যাপক মারধর করে বুথ থেকে বের করে দেওয়া হয় বাম এজেন্টদের। বেশ কিছুক্ষণ ২৬৯, ২৭০ ও ২৭১ নম্বর বুথে বুথে বন্ধ ছিল ভোটগ্রহণ। বুথ দখলের অভিযোগ উঠেছে আমতা ২ নম্বর ব্লকের কাশবনি এলাকায়। ওই এলাকায় ১১৯-এর ১ ও ২ নম্বর বুথ দখলের অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। বুথ দখলের অভিযোগ উঠেছে ঝামতিয়ায় ৬১, ৬২ ও ৬৪ নম্বর বুথেও। অশান্তি ছড়ানোর অভিযোগে ধূলাগড় সাধারণ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে ২৫ জনকে আটক করেছে পুলিস। বামেদের অভিযোগ, পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেই সাঁকরাইল, পাঁচলা, ধূলাগড়ের বিভিন্ন এলাকায়। বোমাবাজির অভিযোগ উঠেছে আমতা ২ নম্বর ব্লকে। গতকাল রাত থেকে বাঁকড়ায় ব্যাপক বোমাবাজির অভিযোগ উঠেছে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। বামেদের অভিযোগ, সাধারণ মানুষ যাতে ভোট না দিতে পারেন, সেকারণেই আতঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা চলছে।
ঘণ্টার পর ঘণ্টা ভোটের লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও দিতে পারছেন না ভোট। তবে ভোটগ্রহণ বন্ধ নেই। কিছুতেই এগোচ্ছে না ভোটের লাইন। এমনই অভিজ্ঞতা পাঁচলা, সাঁকরাইল, ধূলাগড় এলাকার সংখ্যালঘু ভোটারদের।  তাঁদের অভিযোগ, লাইনের দখল নিচ্ছে বহিরাগতরা। তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা দাঁড়িয়ে থেকে ভোট পরিচালনা করছে বলে অভিযোগ। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব।