তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রত্যক্ষ করলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী

তৃণমূল কংগ্রেসের গোষ্ঠী কোন্দলের মাশুল দিলেন কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী চৌধুরী মোহন জাটুয়া। রবিবার ক্যানিংয়ের জীবনতলায় তৃণমূল কংগ্রেসের একটি সভা সেরে ফেরার পথে তৃণমূলের মানিক পাইক গোষ্ঠী এবং শৈবাল লাহিড়ি গোষ্ঠীর কাজিয়ার মুখে পড়েন জাটুয়া। রাস্তায় তাঁর গাড়ি থামিয়ে বিক্ষোভ দেখায় একদল তৃণমূলী। এ দিন তৃণমূলের যে গোষ্ঠীর সম্মেলন ছিল, সেই গোষ্ঠীর অনেকেই সিপিআইএমের প্রাক্তন সদস্য-কর্মী বলে অন্য গোষ্ঠীর অভিযোগ। সেই অসন্তোষ থেকেই এ দিনের বিক্ষোভের ঘটনা।

Updated: Mar 11, 2012, 06:57 PM IST

তৃণমূল কংগ্রেসের গোষ্ঠী কোন্দলের মাশুল দিলেন কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী চৌধুরী মোহন জাটুয়া। রবিবার ক্যানিংয়ের জীবনতলায় তৃণমূল কংগ্রেসের একটি সভা সেরে ফেরার পথে তৃণমূলের মানিক পাইক গোষ্ঠী এবং শৈবাল লাহিড়ি গোষ্ঠীর কাজিয়ার মুখে পড়েন জাটুয়া। রাস্তায় তাঁর গাড়ি থামিয়ে বিক্ষোভ দেখায় একদল তৃণমূলী। এ দিন তৃণমূলের যে গোষ্ঠীর সম্মেলন ছিল, সেই গোষ্ঠীর অনেকেই সিপিআইএমের প্রাক্তন সদস্য-কর্মী বলে অন্য গোষ্ঠীর অভিযোগ। সেই অসন্তোষ থেকেই এ দিনের বিক্ষোভের ঘটনা।
ক্যানিংয়ে মানিক পাইক গোষ্ঠী এবং শৈবাল লাহিড়ি গোষ্ঠীর মধ্যে বিবাদ দীর্ঘদিনের। দুই দলের কাজিয়ায় এর আগেও বহুবার খুনোখুনি, লুঠপাটের ঘটনার সাক্ষী থেকেছে ক্যানিং অঞ্চল। রবিবার সেই বিবাদ প্রত্যক্ষ করলেন স্বয়ং কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী চৌধুরী মোহন জাটুয়া। ক্যানিংয়ের জীবনতলা ২ নম্বর ব্লকে এদিন সম্মেলনের আয়োজন করেছিল মানিক পাইক গোষ্ঠী। উপস্থিত ছিলেন চৌধুরী মোহন জাটুয়া-সহ অন্য তৃণমূলর নেতারা। সম্মেলনের পর ফেরার পথে তালদির গোবিন্দনগরে তাঁর গাড়ি থামিয়ে বিক্ষোভ দেখায় শৈবাল লাহিড়ি গোষ্ঠীর লোকজন। তাঁদের অভিয়োগ, মানিক পাইক গোষ্ঠীর অনেকে সিপিআইএম-এর প্রাক্তন কর্মী-সমর্থক। তাঁদের অনেকেই আগে শৈবাল গোষ্ঠীর ওপর অত্যাচার চালিয়েছে। অথচ এখন তাঁরাই তৃণমূলের সদস্য। কিন্তু, শৈবাল গোষ্ঠীর লোকজন দীর্ঘদিন ধরে অনুগত তৃণমূল সদস্য। ফলে এই ধরনের অসাম্য তাঁদের পক্ষে মেনে নেওয়া সম্ভব নয়।  
পুলিস লাঠিচার্জ করে বিক্ষুব্ধ তৃণমূল কর্মীদের সরিয়ে মন্ত্রীর গাড়ি রওনা করিয়ে দেয়। সঙ্গে পাঠানো হয় প্রচুর পুলিস। খানিক পরে জাটুয়ার গাড়ি ক্যানিংয়ের বাহিরসোনায় পৌঁছলে আবার শৈবাল গোষ্ঠীর আরেকটি দল রাস্তা আটকে বিক্ষোভ শুরু করে। কিন্তু এই দফায় পুলিস থাকায় খুব একটা বেগ পেতে হয়নি। প্রায় নিরুপদ্রবেই তাঁর গাড়ি বিক্ষোভমুক্ত করে রওনা করিয়ে দেওয়া হয়।