ভাস্করের পাশে বরুণ বিশ্বাসের দাদা, কামদুনি গেছেন সমীর আইচ-মিরাতুন নাহাররা, সমালোচনা জ্যোতিপ্রিয়র

আক্রান্ত হলেন কামদুনি প্রতিবাদ মঞ্চের সভাপতি ভাস্কর মণ্ডল। গতকাল রাতে গ্রামের মধ্যেই তাঁকে বেধড়ক মারধর করা হয়। ভাস্কর মণ্ডলের অভিযোগের আঙুল তৃণমূলের দিকে। শাসন থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি। গ্রামে বসানো হয়েছে পুলিস পিকেট।

Updated: Nov 10, 2013, 11:01 AM IST

কামদুনি প্রতিবাদী মঞ্চের সভাপতি আক্রান্ত ভাস্কর মণ্ডলকে দেখতে গেলেন সুটিয়ার বরুণ বিশ্বাসের দাদা অসিত বিশ্বাস। এছাড়াও বেশ কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠনের কর্মীরাও এদিন ভাস্কর মণ্ডলের সঙ্গে দেখা করেন। গতকালই আক্রান্ত হন ভাস্কর মণ্ডল। তাঁকে মারধরের অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। আপাতত তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন বরুণ বিশ্বাসের দাদা অসিত বিশ্বাস। এধরণের ঘটনায় কামদুনিতে ফের অশান্তিই ফিরে আসবে বলে আশঙ্কা করছেন কামদুনি প্রতিবাদী মঞ্চের আর এক সদস্য মৌসুমী কয়াল।
এর ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি ২৪ ঘণ্টাকে জানান, সেই রাতে ভাস্কর মণ্ডল মদ্যপ অবস্থায় ছিলেন। তার জেরাই এই ঘটনা ঘটেছে। তাঁর আরও অভিযোগ ভাস্করবাবুই কামদুনির শান্তি রক্ষা কমিটির ওপর চড়াও হয়। রবিবার চিত্রশিল্পী সমীর আইচ ও মিরাতুন নাহারদের কামদুনি যাওয়ারও নিন্দা করেন মন্ত্রী।
গতকাল রাতে আক্রান্ত হণ কামদুনি প্রতিবাদ মঞ্চের সভাপতি ভাস্কর মণ্ডল। গতকাল রাতে গ্রামের মধ্যেই তাঁকে বেধড়ক মারধর করা হয়। ভাস্কর মণ্ডলের অভিযোগের আঙুল তৃণমূলের দিকে। শাসন থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি। গ্রামে বসানো হয়েছে পুলিস পিকেট।
কামদুনি প্রতিবাদ মঞ্চের সভাপতিকে মারধরের অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। অভিযোগ, শনিবার রাতে ভাস্কর মণ্ডলকে বেধড়ক মারধর করা হয়। ওইদিন স্থানীয় একটি ক্লাবের জগদ্ধাত্রী পুজো উদ্বোধন করতে এসেছিলেন অভিনেতা জর্জ বেকার। পুজো উদ্বোধনের পরে মৌসুমী কয়ালের বাড়ি যান তিনি। প্রতিবাদী মঞ্চের আন্দোলনের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দেন। এরপরেই ভাস্করকে মারধরের ঘটনা ঘটে।

পুলিসের উপস্থিতিতে কীভাবে এই ঘটনা ঘটল, সেপ্রশ্ন তুলেছেন কামদুনি প্রতিবাদ মঞ্চের সম্পাদিকা মৌসুমী কয়াল। এতদিন পর্যন্ত প্রতিবাদী মঞ্চের বিভিন্ন কাজে বাধা দেওয়া, হুমকির অভিযোগ ছিল। এই প্রথম মঞ্চের কাউকে মারধরের ঘটনা ঘটল। স্বাভাবিকভাবেই আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়। তবে এর জেরে আন্দোলন থেমে থাকবে না বলে জানিয়েছেন মৌসুমী কয়াল।