মাওবাদীদের টাকা ডিপোজিট করা আছে, দাবি জেলা শাসকের

চেক নয়, চেকের ফটোকপি। বিনপুরের সভায় দাঁড়িয়ে ঝাড়গ্রামের নটি শহিদ পরিবারের হাতে চেকের ফটোকপিই তুলে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। চেকের বদলে ফটোকপি পেয়ে বিভ্রান্ত হয়ে পড়েন চেক প্রাপকরা। প্রশাসন থেকে ব্যাঙ্ক, নানা মহলে ঘুরেও উপযুক্ত জবাব পাননি। ২৪ ঘণ্টার খবর সম্প্রচারিত হওয়ার পর অবশ্য বিভ্রান্তি দূর হল। কিন্তু উত্তর মেলেনি বহু প্রশ্নেরই।

Updated: Mar 22, 2013, 08:02 PM IST

চেক নয়, চেকের ফটোকপি। বিনপুরের সভায় দাঁড়িয়ে ঝাড়গ্রামের নটি শহিদ পরিবারের হাতে চেকের ফটোকপিই তুলে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। চেকের বদলে ফটোকপি পেয়ে বিভ্রান্ত হয়ে পড়েন চেক প্রাপকরা। প্রশাসন থেকে ব্যাঙ্ক, নানা মহলে ঘুরেও উপযুক্ত জবাব পাননি। ২৪ ঘণ্টার খবর সম্প্রচারিত হওয়ার পর অবশ্য বিভ্রান্তি দূর হল। কিন্তু উত্তর মেলেনি বহু প্রশ্নেরই।
বিনপুরে মুখ্যমন্ত্রীর হাত থেকে চেক পাওয়ার পর কিছুটা আশাবাদী হয়েছিলেন মাওবাদী হামলায় নিহতদের পরিবার। কিন্তু চেক ভাঙাতে গিয়েই বিপত্তি। প্রশাসনের কর্তাদের প্রশ্ন করলেও তাঁরা কোনও উত্তর দিতে পারেননি।
 
২৪ ঘণ্টায় এ খবর সম্প্রচারিত হওয়ার পরই মুখ খোলে জেলাপ্রশাসন। জেলাশাসক সুরেন্দ্র  গুপ্তা জানান, নিয়ম বা রীতি অনুযায়ী চেক নয়, প্রাপকদের দেওয়া হয় চেকের ফটোকপি। প্রাপকের নামে টাকা ব্যাঙ্কে ফিকসড ডিপোজিট করে দেওয়া হয়।
 
কিন্তু চেকের বদলে যে চেকের ফটোকপি দেওয়া হয়েছে সে কথা প্রাপকদের জানানো হল না কেন? তার অবশ্য সদুত্তর মেলেনি জেলাশাসকের কাছ থেকে। এরচেয়েও বড়কথা চেক প্রাপকদের দাবি, ব্যাঙ্কে গিয়ে তাঁরা জানতে পেরেছেন, শুক্রবার পর্যন্ত তাঁদের নামে কোনও ফিক্সড ডিপোজিটও হয়নি। এক্ষেত্রেও জেলাপ্রশাসনের বক্তব্য, পদ্ধতিগত কারণেই সময় লাগে ফিকসড ডিপোজিট হতে। তাহলে কি তড়িঘড়ি মুখ্যমন্ত্রীর হাত দিয়ে চেকের ফটোকপি বিলি করা হয়েছে? প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।