যৌন নির্যাতন: মুখ্যমন্ত্রীকে ভুল প্রমাণ করলেন কৃষি বিপণন মন্ত্রী

Last Updated: Thursday, June 20, 2013 - 12:46

মুখ্যমন্ত্রী মনে করেন, রাজ্যে যৌন নির্যাতনের অধিকাংশ অভিযোগ সাজানো ঘটনা। তাঁরই আইনমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের দাবি, মহিলাদের জন্য সবচেয়ে নিরাপদ এই রাজ্য। কৃষি বিপণন মন্ত্রী অরূপ রায় কিন্তু মেনে নিয়েছেন ধারাবাহিকভাবে যৌন হেনস্থার শিকার হচ্ছেন ছাত্রীরা। শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুকে লেখা চিঠিতে তাঁর পরামর্শ, আত্মরক্ষায় ছাত্রীদের কারাটে প্রশিক্ষণ দেওয়া হোক।  
কৃষি বিপণন মন্ত্রী অরূপ রায়ের পরামর্শ মানলে শিগগিরই রাজ্যের স্কুল-কলেজে ছাত্রীদের জন্য বাধ্যতামূলক হতে চলেছে এই শিক্ষা। কারণ, ছাত্রীদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন স্বয়ং কৃষি বিপণন মন্ত্রী। শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুকে চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ধারাবাহিকভাবে আমরা দেখে আসছি যে বিদ্যালয় এবং কলেজে পাঠরতা ছাত্রীদের ওপর শারীরিক এবং যৌন হেনস্থা হচ্ছে।
এটি একটি সামাজিক ব্যধিতে পরিণত হয়েছে। অর্থাত্‍ রাজ্যে ছাত্রীদের যৌন নিগ্রহের অভিযোগ স্বীকার করে নিয়েছেন কৃষি বিপণন মন্ত্রী। ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর তথ্যও বলছে, মহিলাদের ওপর অপরাধের ঘটনায় দেশের মধ্যে শীর্ষস্থানে রাজ্য। শুধু শাসক দলের নেতামন্ত্রীর গলাতেই অন্যসুর।
রাজ্যর মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য বলেছিলেন, পশ্চিমবঙ্গে মহিলারা সবচেয়ে নিরাপদ। কৃষি বিপণন মন্ত্রী কার্যত এও মেনে নিয়েছেন, ছাত্রীদের নিরাপত্তা দিতে প্রশাসন ব্যর্থ। তিনি লিখেছেন, শুধুমাত্র প্রশাসনিক সতর্কতার মধ্যে দিয়ে মহিলা তথা বিদ্যালয় ও কলেজের ছাত্রীদের সাথে হওয়া এই ধরনের অবাঞ্ছিত ঘটনাকে বন্ধ করা সম্ভব নয়।
সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে আমার মনে হয় সমাজের প্রতিটি মেয়েকে আত্মরক্ষা করার তালিম দিলে তারা শারীরিক হেনস্থা থেকে নিজেকে রক্ষা করতে সক্ষম হবে এবং তাদের মধ্যে আত্মমর্যাদা প্রতিষ্ঠা পাবে। ক্যারাটে অথবা শারীরিক প্রশিক্ষণ বিদ্যালয় এবং কলেজ স্তরে বাধ্যতামূলক করার আর্জি জানাই। দলের সর্বোচ্চ নেতৃত্বের কার্যত বিপরীতে গিয়ে ছাত্রীদের যৌন নিগ্রহ নিয়ে উদ্বেগ এবং ছাত্রীদের ক্যারাটে শেখানোর পরামর্শ। চিঠি লিখে বিপাকে পড়বেন না তো কৃষি বিপণন মন্ত্রী?



First Published: Thursday, June 20, 2013 - 12:46


comments powered by Disqus