শিলিগুড়িতে বনধ, জামিনে মুক্ত অশোক, জীবেশ

রাতভর থানায় আটকে রাখার পর সকালে সিপিআইএম নেতা অশোক ভট্টাচার্য ও জীবেশ সরকারকে ছেড়ে দিল পুলিস। কিছুক্ষণ আগেই বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে যান তাঁরা। গতকাল জেলা দফতরে ঢুকে প্রাক্তন মন্ত্রী অশোক ভট্টাচার্য, দলের জেলা সম্পাদক জীবেশ সরকার-সহ সিপিআইএমের প্রায় বাহান্নজন নেতা-কর্মীকে তুলে নিয়ে যায় পুলিস। তুলে নিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় সিপিআইএম জেলা দফতরে হামলার ঘণ্টা দুয়েক পরে। তারও প্রায় তিন ঘন্টা পর তাঁদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে তৃণমূল কংগ্রেস।

Updated: Apr 11, 2013, 10:09 AM IST

রাতভর থানায় আটকে রাখার পর সকালে সিপিআইএম নেতা অশোক ভট্টাচার্য ও জীবেশ সরকারকে ছেড়ে দিল পুলিস। কিছুক্ষণ আগেই বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে যান তাঁরা।
গতকাল  জেলা দফতরে ঢুকে  প্রাক্তন মন্ত্রী অশোক ভট্টাচার্য, দলের জেলা সম্পাদক জীবেশ সরকার-সহ সিপিআইএমের প্রায় বাহান্নজন নেতা-কর্মীকে তুলে নিয়ে যায় পুলিস। তুলে নিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় সিপিআইএম জেলা দফতরে হামলার ঘণ্টা দুয়েক পরে। তারও প্রায় তিন ঘন্টা পর তাঁদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে তৃণমূল কংগ্রেস। 
অন্যদিকে, বাম নেতাদের পুলিস তুলে নিয়ে যাওয়ার ঘটনার প্রতিবাদে আজ ডাবগ্রাম, ফুলবাড়িসহ গোটা শিলিগুড়ি মহকুমায় বারো ঘণ্টার বনধ ডেকেছে জেলা বামফ্রন্ট।
গতকাল নজিরবিহীন ভাবে বাম নেতাদের শিলিগুড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে বামেরা। আজ হিলকাট রোডে মিছিল করে তৃণমূল। সেই মিছিল থেকে হামলা চালানো হয় অনিল বিশ্বাস ভবনে। সিপিআইএম অফিসে পতাকা ছিঁড়ে ফেলা হয় বলে অভিযোগ। তখনই বাধা দেন সিপিআইএম কর্মীরা। অফিস লক্ষ্য করে চলে ইঁটবৃষ্টি। উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। একপ্রকার সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে উভয় পক্ষের সমর্থকরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠি চালায় পুলিস। লাঠির আঘাতে আহত হন বহু মানুষ।
অশোক ভট্টাচার্য টেলিফোনে ২৪ ঘণ্টাকে জানান, "কোনও কারণ ছাড়াই গ্রেফতার করা হয়েছে আমাদের। কোনও মেমো অফ অ্যারেস্ট দেওয়া হয়নি।" পুলিস বাম নেতাদের সঙ্গে দুর্ব্যবার করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন অশোক বাবু।