শিক্ষককে চড়, ফের রাজ্যে শিক্ষায় নৈরাজ্যের ছবি

ফের একবার ফিরে এল শিক্ষাঙ্গনে নৈরাজ্যের ছবি। এবার বাঁকুড়ায়। এক শিক্ষককে চড় মারার অভিযোগ উঠল জেলার প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারপার্সনের বিরুদ্ধে। চেয়ারপার্সন অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ছাত্রভর্তিকে কেন্দ্র করে গত কয়েকদিন ধরেই গণ্ডগোল চলছে বাঁকুড়ার কালীতলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

Updated: Feb 4, 2013, 02:48 PM IST

ফের একবার ফিরে এল শিক্ষাঙ্গনে নৈরাজ্যের ছবি। এবার বাঁকুড়ায়। এক শিক্ষককে চড় মারার অভিযোগ উঠল জেলার প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারপার্সনের বিরুদ্ধে। চেয়ারপার্সন অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।
ছাত্রভর্তিকে কেন্দ্র করে গত কয়েকদিন ধরেই গণ্ডগোল চলছে বাঁকুড়ার কালীতলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। স্কুল কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ এবং স্কুল পরিদর্শকের অনুরোধে বহু ছাত্রছাত্রীকে ভর্তি করতে বাধ্য হচ্ছেন তাঁরা। সোমবার তেমনই, প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারপার্সন রিঙ্কু ব্যানার্জির সুপারিশ করা চিঠি নিয়ে স্কুলে হাজির হন এক অভিভাবক। এরপরই ভর্তি নিয়ে প্রধানশিক্ষিকার সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন তিনি। ঘটনার প্রতিবাদ করেন স্কুলের শিক্ষক স্বরূপ কর্মকার। ছাত্রীর অভিভাবক বিষয়টি জানান রিঙ্কু ব্যানার্জিকে। অভিযোগ, এরপরই রিঙ্কু ব্যানার্জি এসে কোনও কিছু না শুনেই সপাটে চড় মারেন স্বরূপবাবুকে।
 
রিঙ্কুদেবী অবশ্য যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে শিক্ষাক্ষেত্রে দলতন্ত্রের অভিযোগ বারবার উঠেছে। রিঙ্কুদেবীর কথায় ফের সেই ছায়াই দেখছেন সংশ্লিষ্ট মহল।