হলদিয়া, কুপার্সে হেরে হামলা তৃণমূলের

Last Updated: Tuesday, June 5, 2012 - 15:33

পুরভোটের ফল বেরোনোর পরেই উত্তপ্ত হয়ে উঠল পূর্ব মেদিনীপুরের হলদিয়া এবং নদিয়ার কুপার্স ক্যাম্প। দু'জায়গাতেই পুরভোটে হেরে তাণ্ডব চালাল তৃণমূল কর্মীরা। হলদিয়ায় তৃণমূল কর্মীদের আক্রমণের লক্ষ্য ছিলেন বিদায়ী পুরবোর্ডের সিপিআইএম চেয়ারপার্সন তথা এবারের ভোটে ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে জয়ী তমালিকা পণ্ডা শেঠ। অন্যদিকে নদীয়ার কুপার্স ক্যাম্পে ১ নম্বর ওয়ার্ডের জয়ী কংগ্রেস কাউন্সিলর সুপ্রিয়া দে তৃণমূলের রোষের বলি হলেন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
সকাল থেকেই হলদিয়ার ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের বনধবিষ্ণুপুরে পরিস্থিতি কিছুটা উত্তপ্ত ছিল। বামফ্রন্ট জেতার খবর পাওয়ার পর থেকে, তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা বারবার হামলা চালাচ্ছিল বলে অভিযোগ করা হয়েছিল। সন্ধের পর পরিস্থিতি চরমে পৌঁছয়। কয়েকটি বাড়িও ভাঙচুর করা হয়। মহিলারা বাধা দিতে যান। এরপর পুলিস পৌঁছলে, পুলিসকে ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন মহিলারা। ঘটনাস্থলে যায় র‌্যাফ পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। শিশুরা এবং মহিলারা পুলিসের হাতে আক্রান্ত হয়েছেন বলেও অভিযোগ করা হয়েছে।  
দুপুরেই হলদিয়া পুরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে সিপিআইএম কর্মীদের মারধরের অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ১৩ নম্বর ওয়ার্ড থেকেই জিতেছেন বামফ্রন্ট প্রার্থী তমালিকা পন্ডা শেঠ। অভিযোগ, ফল বেরোনোর পরেই ওই ওয়ার্ডে হামলা চালায় তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থকরা। ক্যাম্প অফিসে ভাঙচুর চালানোর পাশাপাশি বেধ়ড়ক মারধর করা হয় বামফ্রন্ট কর্মীদের। গণনা কেন্দ্র বাসুদেবপুর গভর্নমেন্ট হাইস্কুল থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় তৃণমূল সমর্থকেরা তমালিকার গাড়ি ঘেরাও করে বলে অভিযোগ। গাড়ি লক্ষ্য করে ইট ছোড়া হয়। অন্যদিকে মঙ্গলবার রাতে ভোটে হারার পর মঙ্গলবার রাতে পুলিসকে সঙ্গে নিয়েই কুপার্স ক্যাম্পের তৃণমূল নেতা-কর্মীরা কংগ্রেস সমর্থকদের বাড়ি-বাড়ি হামলা চালান বলে অভিযোগ।



First Published: Tuesday, June 5, 2012 - 23:25


comments powered by Disqus