কেমন হল খেজুরি, নন্দীগ্রামের ভোট?

Last Updated: Monday, July 15, 2013 - 21:29

রাজ্যে পালাবদলের পর, পরিবর্তনের আঁতুরঘরে প্রথম ভোট। ভোটের আগে যেখানে পা পড়েনি তৃণমূল নেত্রীর। পরিবর্তনের সেই আঁতুড়ঘর এখন তৃণমূলের দুই শীর্ষনেতার লড়াইয়ের সাক্ষী। কেমন হল খেজুরি, নন্দীগ্রামের ভোট? ঘুরে দেখলেন দুই প্রতিনিধি সৌরভ চৌধুরী ও সৌরভ গুহ।
সিঙ্গুরের মতো নন্দীগ্রামেও ভোটপ্রচারে আসেননি মুখ্যমন্ত্রী। জেলা পরিষদ থেকে গ্রাম পঞ্চায়েত, সবই দলের হাতে। আজকের নন্দীগ্রাম, খেজুরিতে অন্য দলের পতাকাও খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। কিন্তু শোনা যায় দুর্নীতির অভিযোগ। শাসক দলের নেতারা জানেন, এসবের তেমন প্রভাব পড়বে না ভোটবাক্সে। কারণ নন্দীগ্রাম, খেজুরিতে এখন বিরোধীদের দূরবীন দিয়ে খুঁজতে হয়। ভোটের দিন শাসক-বিরোধী সংঘর্ষ বলতে নন্দীগ্রামের সীতানন্দ কলেজে কংগ্রেসের সঙ্গে সংঘর্ষে জখম হন তৃণমূলের দুজন। গ্রেফতার করা হয় কংগ্রেসের দুজনকে। সামসাবাদ বুথে কংগ্রেস, তৃণমূলের জমায়েত হঠাতে লাঠি চালায় পুলিস। কার্যত কোথাও দেখা যায়নি কেন্দ্রীয় বাহিনীকে। শান্ত নিস্তরঙ্গ কার্যত বিরোধীশূন্য নন্দীগ্রাম, খেজুরি। তবু ভোটপ্রচারে ফরমান দিয়ে এসেছিলেন তৃণমূলের যুব সেনাপতি।
 
নন্দীগ্রাম, খেজুরি এখন তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক আর যুব সেনাপতির তুমুল অন্তর্দ্বন্দ্বের রণক্ষেত্র। শেখ সুফিয়ান যে শাক দিয়ে মাছ ঢাকছেন সেটা বুঝিয়ে দিলেন তৃণমূলের নিচু তলার নেতাকর্মী আর সাধারণ মানুষই। সবাই বলছেন, নন্দীগ্রামে লড়াইটা এবার তৃণমূল ভার্সেস তৃণমূল। দুই নেতার দ্বন্দ্বে উঠল বুথ দখলের অভিযোগ। ভোটের দিন তৃণমূলের দুই শিবিরের সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল খেজুরির মানসিংবের, জনকা, বারাতলা, পিকাসি, কামারদা, শ্যামপুর-সহ বিভিন্ন এলাকা। 
 



First Published: Monday, July 15, 2013 - 21:29


comments powered by Disqus