এখনও মুখ্যমন্ত্রীর মুখ দেখলো না কামদুনি

এখনও মুখ্যমন্ত্রীর মুখ দেখেনি কামদুনি। আগে খবর পেলেই ঘটনাস্থলে ছুটে যেতেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ইদানিং, কামদুনি সমেত একাধিক ঘটনায় প্রমাণ ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেখা যায়নি মুখ্যমন্ত্রীকে। কাজের ব্যস্ততা? নাকি ক্ষমতার অলিন্দে পৌঁছে বদলে গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী? উঠছে প্রশ্ন।

Updated: Jun 13, 2013, 09:38 PM IST

এখনও মুখ্যমন্ত্রীর মুখ দেখেনি কামদুনি। আগে খবর পেলেই ঘটনাস্থলে ছুটে যেতেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ইদানিং, কামদুনি সমেত একাধিক ঘটনায় প্রমাণ ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেখা যায়নি মুখ্যমন্ত্রীকে। কাজের ব্যস্ততা? নাকি ক্ষমতার অলিন্দে পৌঁছে বদলে গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী? উঠছে প্রশ্ন।  
এখনও মুখ্যমন্ত্রীর মুখ দেখেনি কামদুনি।  বৃহস্পতিবার মহাকরণে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর দেখা পাননি ছাত্র সংগঠনের প্রতিনিধিরা। তাঁর বাড়িতে ডেপুটেশন দিতে গিয়েও বাধা পেয়েছে আরেকটি মহিলা সংগঠন।
ঘটনা ঘটলেই পৌঁছে যাওয়া। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক ব্র্যান্ড ইকুইটি ছিল এমনই। বস্তি উচ্ছেদ থেকে শুরু করে রেল দুর্ঘটনা। কিংবা স্টিফেন কোর্টে অগ্নিকাণ্ড। প্রতিবারই দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে দাঁড়াতে দেখা গিয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। কখনও বিরোধী নেত্রী হিসেবে। কখনও রেলমন্ত্রী হিসেবে। ক্ষমতায় আসার মাসকয়েক পরেই ঘটে আমরি অগ্নিকাণ্ড। সেই ঘটনাতেও, ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে দাঁড়াতে মুখ্যমন্ত্রীর ভূমিকা ছিল প্রশংসনীয়।  
সরকারি হাসপাতালগুলিতে ঝটিকা অভিযান বা নিরাপত্তার বাহুল্যহীন ছিমছাম জীবনযাপন। পরিবর্তনের প্রথম কয়েক মাসেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন এরকমই। তারপর ধীরে ধীরে বদলাতে শুরু করল ছবিটা।
বাম আমলে বাসন্তী কলোনির অগ্নিকাণ্ডে দিল্লি থেকেই এসে ছুটে গিয়েছিলেন। পরিবর্তনের পর নাকতলার ভস্মীভূত ষোলোবিঘা বস্তিতে দেখা যায়নি মুখ্যমন্ত্রীকে। গার্ডেনরিচে পুলিসকর্মী তাপস চৌধুরী যেদিন খুন হন, পুলিসমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তখন পূর্ব মেদিনীপুরে।
প্রায় তিনদিন পরে নিহত পুলিসকর্মীর বাড়িতে পৌঁছেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। মহাকরণে মুখ্যমন্ত্রীর দেখা পাননি বালিতে জলাভূমি আন্দোলনে নিহত তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী তপন দত্তের স্ত্রী।
আগে হাজারো ব্যস্ততার মধ্যেও ছুটে যেতেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ইদানিং আর যান না। কামদুনির মতো একাধিক ঘটনা প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে ক্ষমতার অলিন্দে পৌঁছে বদলে গেলেন মুখ্যমন্ত্রী?