Balurghat: ঘুড়ি কিনে দেওয়ার নাম করে শিশু অপহরণ, পলাতক অভিযুক্তের বাড়িতে চড়াও এলাকাবাসী...

Balurghat: স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে, বাচ্চাটির মা সোমা হালদার ও বাবা সঞ্জয় হালদার দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ। প্রায় ৫-৬ বছর আগে তাঁরা তাঁদের ছেলে দীপকে ছেড়ে, পরিবার-পরিজন ও এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে গিয়েছেন।

Updated By: Nov 6, 2022, 03:27 PM IST
Balurghat: ঘুড়ি কিনে দেওয়ার নাম করে শিশু অপহরণ, পলাতক অভিযুক্তের বাড়িতে চড়াও এলাকাবাসী...

জি ২৪ ঘণ্টা ডিজিটাল ব্যুরো: ঘুড়ি কিনে দেওয়ার নাম করে আট বছরের এক বালককে অপহরণের অভিযোগ উঠল প্রতিবেশী এক যুবকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে বালুরঘাট পুরসভা এলাকার এ কে গোপালন কলোনি এলাকায়। শনিবার সন্ধ্যা থেকে নিখোঁজ দীপ হালদার নামের বছরআটেকের এই বালক। গতকাল, শনিবার বিকেলে প্রতিবেশী এক যুবক তাকে একটি ঘুড়ি কিনে দেয় এবং সেটি নিয়ে সে পাশের একটি মাঠে খেলে খেলতে যায়। এদিকে সন্ধ্যা পেরিয়ে রাত নামলেও বাড়ি ফেরেনি আট বছরের দীপ হালদার। এরপরই খোঁজাখুঁজি শুরু হয়। রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন তার আত্মীয়-স্বজনরা। কিন্তু এলাকার সম্ভাব্য কোথাও তার কোনও খোঁজ পাওয়া যায় না।

আরও পড়ুন: Jalpaiguri: জলপাইগুড়িতে বাড়ছে ডেঙ্গি আক্রান্তের সংখ্যা; তবুও উদাসীনতার ছবি চারিদিকে...

দীপ হালদারের ঠাকুমা দীপ্তি মোহন্তর অভিযোগ, স্থানীয় মানস সিং নামের এক যুবক গতকাল তাঁর নাতি দীপকে ঘুড়ি কিনে দেওয়ার নাম করে তাকে ডেকে নিয়ে যায়। আর তার পর থেকেই দীপের কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। বালুরঘাট থানায় লিখিত অভিযোগও দায়ের করা হয় এই মর্মে। অভিযোগ জানান, দীপের ঠাকুরমাই।

তবে এখনও পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি এই ঘটনায়। এলাকাবাসীর দাবি, অবিলম্বে খুঁজে বার করা হোক অপহৃত শিশুটিকে; অন্য দিকে ধরা হোক অভিযুক্ত যুবক মানসকেও। 

মানস সিংহের বাড়ির লোকজন পলাতক। জনশূন্য হয়ে রয়েছে তাঁদের বাড়ি। তবে স্থানীয় মানুষের বিক্ষোভের হাত থেকে রেহাই পায়নি সেই বাড়ি। সেখানে ভিড় করেন ও বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। তবে পুলিস সেখানে দ্রুত পৌঁছয় এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে, বাচ্চাটির মা সোমা হালদার ও বাবা সঞ্জয় হালদার দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ। প্রায় ৫-৬ বছর আগে তাঁরা তাঁদের ছেলে দীপকে ছেড়ে, পরিবার-পরিজন ও এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে গিয়েছেন। স্থানীয় মানুষ কেউ জানেন না, তাঁরা কোথায় গিয়েছেন বা আদৌ কোনওদিন ফিরবেন কিনা ইত্যাদি। তবে তাঁরা একটা ব্যাখ্যা দেন। বলেন, এই এলাকার বহু মানুষ দিল্লিতে বা অন্যত্র কাজ করতে চলে যান এবং অনেক সময়েই আর ফেরেন না। তবে, এক্ষেত্রেও তেমন কিছু ঘটেছে কিনা, তা অবশ্য তাঁরা বলতে পারছেন না। 

(Zee 24 Ghanta App দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App)