close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

প্রতারিতদের আবেদন খারিজ, সারদা তদন্তে হস্তক্ষেপ করবে না সুপ্রিম কোর্ট

সারদা চিটফান্ড মামলায় তার পুরনো রায়ই বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালত আজ জানিয়ে দিল, সারদা দুর্নীতির তদন্ত সুপ্রিম কোর্টের নজরদারিতে করা হবে না।

Updated: Feb 11, 2019, 02:17 PM IST
প্রতারিতদের আবেদন খারিজ, সারদা তদন্তে হস্তক্ষেপ করবে না সুপ্রিম কোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারদা চিটফান্ড মামলায় তার পুরনো রায়ই বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালত আজ জানিয়ে দিল, সারদা দুর্নীতির তদন্ত সুপ্রিম কোর্টের নজরদারিতে করা হবে না।

আরও পড়ুন-আজ কৃষ্ণনগরে অভিষেক, মতুয়া সংঘের প্রতিনিধি দল, বিধায়ক খুনে এখনও সূত্র অধরা

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে সারদা মামলা সুপ্রিম কোর্টে ওঠে। সেই মামলায় সিবিআইকেই সারদা তদন্তের ভার দেয় শীর্ষ আদালত। পাশাপাশি সারদা দুর্নীতিতে প্রতারিতদের একাধিক আবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্ট রায় দেয় আদালতের নজরদারিতেই দুর্নীতির তদন্ত হবে। দুর্নীতির তদন্তের ক্ষেত্রে কোনও অনিয়ম বা গাফিলতি হচ্ছে বলে কেউ যদি মনে করে থাকলে তিনি নির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে আদালতে যেতে পারেন।

ওই রায়ের পর বিষয়টি চাপা পড়ে যায়। সম্প্রতি এনিয়ে ফের আবেদন করা হয় সুপ্রিম কোর্টে। ফের আবেদন করা হয়, আদালতের তদারকিতেই সরদা মামলার তদন্ত হোক। সেই আবেদন ফের একবার খারিজ করে দিল সুপ্রিম কোর্ট। ফলে সিবিআইযের হেফাজতে থাকা সারদা মামলায় হস্তক্ষেপ করবে না শীর্ষ আদালত।

আরও পড়ুন-গুলি করার পর বন্দুক এলাকাতেই ছেড়ে পালায় 'খুনি', কিন্তু কেন? বিধায়ক খুনে অদ্ভূত তথ্য সামনে

প্রসঙ্গত, সারদা দুর্নীতির তদন্তে কখনও তথ্য লোপাটের অভিযোগ উঠেছে, কখনও আবার তদন্ত ঠিক পথে এগোচ্ছে না বলে দাবি করা হয়েছে। এই দুর্নীতির তদন্তে রাজ্য সরকার গঠন করেছিল সিট। সেই সিটের প্রধান ছিলেন কলকাতা পুলিসের কমিশনার রাজীব কুমার।

২০১৭ সালে নভেম্বর মাসে রাজীব কুমার দিল্লিতে সিবিআই প্রধান অলোক বর্মাকে চিঠি লিখে জানান,  সারদাকাণ্ডে সিবিআইয়ের যে দল তদন্ত করছে সেটি নিরপেক্ষভাবে কাজ করছে না। পাশাপাশি সিবিআইয়ের অভিযোগ, সারদা তদন্তে তথ্য লোপাট করেছেন রাজীব কুমার। এনিয়ে তাঁকে তলবও করা হয়। তাতে হাজিরা না দেওয়া নিয়ে একপ্রস্থ কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার সঙ্গে রাজ্য পুলিসের দড়ি টানাটানি হয়। বিষয়টি নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট মামলাও হয়েছে। অভিযোগ, সিবিআইয়ের কাজে বাধা দিচ্ছে রাজ্য প্রশাসন।