প্রতিদিনের খাবারের ৫ অভ্যেস, যা দুর্বল করছে আপনার হার্টকে!

Updated: Oct 31, 2017, 04:03 PM IST
প্রতিদিনের খাবারের ৫ অভ্যেস, যা দুর্বল করছে আপনার হার্টকে!

সংবাদদাতা : প্রতিদিনের খাবারে কি বেশি করে তেল ব্যবহার করছেন? সকাল সকাল তেলজাতীয় খাবার খাচ্ছেন? যদি প্রতিদিনের ডায়েটে এমনই অভ্যেস হয়, তাহলে কিন্তু বিপদ। কারণ, আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে এমন কিছু খাবার আপনি খাচ্ছেন, যাতে হয়তো আপনার হৃদয় বিকল হওয়ার যোগাড়।

অবাক লাগছে শুনতে? কিন্তু, প্রতিদিন এমন কিছু খাবার হয়তো আপনি খাচ্ছেন, যার জেরে দিনের পর দিন হার্ট দুর্বল হয়ে যাচ্ছে আপনার। সেই খাবারের তালিকায় কি কি রয়েছে জানেন?

আরও পড়ুন : শীতের শুষ্ক মরশুমে ত্বক ভাল রাখবেন কীভাবে

দ্য হেলথ সাইট-এর খবর অনুযায়ী, এমন অনেকে রয়েছেন, যাঁদের প্রতিদিনের মিল কিংবা ডিনারের পর মিষ্টি খাওয়ার অভ্যেস রয়েছে। যদি এমন হয়, তাহলে কিন্তু বিপদ। খাবার পর প্রতিদিনের মিষ্টি খাওয়ার অভ্যেস থাকলে, নিজের অজান্তেই আপনার ডায়াবেটিসের প্রবণতা বেড়ে যাচ্ছে। অনেকেই মনে করেন, খাওয়ার পর চকলেট (বিশেষত ডার্ক চকলেট) খাওয়ার অভ্যেস ভাল, কিন্তু, চিকিত্সকদের একাংশ কিন্তু না করে দিচ্ছেন।

আপনি কি ওজন ঝরাতে চান? তাহলে বেশি মশলাদার অর্থাত বেশি ঝাল দেওয়া খাবার খাওয়ার অভ্যেস বাদ দিন। ১-২ চামচের বেশি যেন লাল লঙ্কার গুড়ো যেন কখনওই আপনার পেটে না যায়, খেয়াল রাখতে হবে সেদিকে। তাই সুস্থ থাকতে হলে, কখনওই বেশি ঝাল দেওয়ার খাবারের অভ্যেস সঠিক নয়।

প্রতিদিন সকালে কি লুচি, পরোটা কিংবা ওই ধরনের তেল দেওয়া খাবার খাওয়ার অভ্যেস আছে? তাহলেও কিন্তু সাবধান। কারণ, বেশি তেলযুক্ত খাবার আপনার হার্টের ক্ষতি করে বলেই মনে করছেন চিকিত্সকরা।

প্রতিদিন মাছ, মাংস খাওয়ার অভ্যেস ত্যাগ করুন। সুস্থ থাকতে হলে বেশি করে শাক সবজি খাওয়ার অভ্যেস করুন। আমিষ খাবার যাতে ওমেগা সমৃদ্ধ হয়, সেদিকে নজর দিন। পাশাপাশি প্রতিদিন চিংড়ি, কাঁকড়া, লবস্টার খাবেন না। নিরামিষ এবং আমিষ খাবারের মধ্যে সামঞ্জস্য রেখে তবেই ডায়েট চার্ট তৈরি করা উচিত বলে মনে করেন বেশ কিছু চিকিত্সক।

প্রতিদিনের রান্নায় অতিরিক্ত তেল ব্যবহারের অভ্যেসকে টাটা বলুন। এতেও কিন্তু আপনার শরীরের ক্ষতি। সরষের তেল হোক কিংবা যে কোনও ধরনের ভেজিটেবল অয়েল, অত্যধিক পরিমাণে কোনও কিছুই ভাল নয় বলেই জানা যাচ্ছে।

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. You can find out more by clicking this link

Close