গ্রেফতারের পর ফেসবুকে কুণাল বোমা, নিজের পেজে অভিযোগ আনলেন চক্রান্তের, জানালেন সারদা কাণ্ডে তদন্তে সাহায্য করতে পারেন মমতা ব্যানার্জি সহ আরও ১২জন

Last Updated: Saturday, November 23, 2013 - 23:00

গ্রেফতারের পরেও কুণাল ঘোষের বিস্ফোরণ থামছে না। মোবাইলের মাধ্যমে নিজের ফেসবুক পেজে জানালেন সারদা কাণ্ডে তদন্তে সাহায্য করতে পারে এমন দশ জনের নাম। এবং এই প্রথম বার মদন মিত্র, টুটু বসুদের সঙ্গে সরাসরি নাম করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়েরও।
কুণাল ঘোষের ফেসবুক জবানির বিস্তারিত:" কিছু বলার আছে...অন্যায়ভাবে আমাকে অ্যারেস্ট করা হল। গভীর চক্রান্ত। আমি মিডিয়া কর্মী। চিট ফান্ডে জড়িত নই। আমি তদন্তে সাহায্য করছিলাম। যখন যতবার ডেকেছে, গিয়েছি। সাহায্য করেছি। কিন্তু এই পুলিস এই সাহায্য নেবে না। অনেককে আড়াল করে একতরফা কেস সাজানো চলছে। সুদীপ্ত সেনের সিবিআই লেটার-এ যারা জড়িত, তদন্তে তাদেরই প্রভাব।
যারা সেন কে চিনতেন, সারদার ডিরেক্ট ওর ইনডিরেক্ট সাহায্য পেয়েছেন, কিম্বা অন্যভাবেও জানেন, তাদের তদন্তে সাহায্য চাওয়া হক।
যারা সাহায্য করতে পারেন ১) টুটু বোস, সৃঞ্জয় বোস, সৌমিক বোস ২) রজত মজুমদার ৩)শুভেন্দু অধিকারী ৪) মদন মিত্র ৫) কৃষ্ণা চক্রবর্তী, বুয়া চক্রবর্তী(সমির)৬) কেডি সিং ৭) আসিফ খান ৮) মুকুল রায় ৯) মমতা ব্যানার্জি।
এরা সবাই শ্রদ্ধেয়, বিশিষ্ট। সারদা তদন্তে পুলিস এঁদের সাহায্য চাইতে পারে। কিন্তু চাইছে না। আমি কোনও অভিযোগ করছি না। সাহায্য চাওয়ার কথা বলছি।
আর একটা কথা কথা...কেউ আইনের উর্দ্ধে নয়...এটা বলা সহজ...নিজেদের আড়ালে রেখে। যাঁরা এটা করছেন, আমার এবং অনেকের প্রতি অবিচার করছেন। বদনাম দেওয়ার খেলা। এটা আমার প্রাপ্য ছিল না। টিএমসি-র সঙ্গে কঠিন দিন থেকে ছিলাম। টিএমসি-র জন্য অনেকের সাথে শত্রুতা করেছি। আমি সুবিধাবাদী নই। আমার কাজ, আমার পেশাকে ব্যবহার করে পিঠে ছুরি মারা হল। আমি রাজনীতিবিদ নই। কাজ করতে চেয়েছি আরও বেশি করে। আমি মানি মার্কেটে জড়িত না। জড়িত না। জড়িত না। সারদা তদন্ত অবিলম্বে সিবিআই কে দেওয়া হোক।
কারুর গায়ে কাদা ছোড়ার ইচ্ছা নেই। রুচিও নেই। এতদিন বলিওনি। কিন্তু এটুকু বলেছি, কয়েকজন তদন্তে সাহায্য করতে পারেন। টিএমসি কে আমিও ভালবাসি। নিজের রক্ত দিয়ে গড়া সাংবাদিক সত্ত্বা টিএমসি-এর জন্য উজাড় করে দিয়েছি।``



First Published: Saturday, November 23, 2013 - 23:00


comments powered by Disqus