‘ও বাড়ি শোভনেরই নয়’, চাঞ্চল্যকর দাবি রত্নার

মেয়রের গলায় যতটা আশঙ্কার সুর, ঠিক ততটাই পরিণত ও শান্ত প্রতিক্রিয়া রত্নার। তিনি বলেন, ‘আমি চাই ওঁর শুভবুদ্ধির উদয় হোক।‘ রত্নার এই মন্তব্য ইঙ্গিতবাহী বলে মনে করছেন চট্টোপাধ্যায় পরিবারের ঘনিষ্ঠরা।

Updated: Mar 12, 2018, 12:32 PM IST
‘ও বাড়ি শোভনেরই নয়’, চাঞ্চল্যকর দাবি রত্নার

নিজস্ব প্রতিবেদন:   `নিজের বাড়িতে` নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন খোদ কলকাতার মেয়র। এবার গোলপার্কের বাসভবনের নিরাপত্তা বাড়ানোর আর্জি জানিয়ে পুলিস প্রশাসনের দ্বারস্থ শোভন চট্টোপাধ্যায়।

কানাঘুষো, মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে তৃণমূলের বিচ্ছেদ এখন সময়ের অপেক্ষা। তার ওপর ব্যক্তিজীবনের উচাটন- সময়টা যে তাঁর খুব একটা ভালো যাচ্ছে না, তা নিজের মুখেই স্বীকার করেছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। এবার নিরাপত্তাহীনতায় ভোগার কথা সর্বসমক্ষে বললেন শোভন। কিন্তু হঠাত্ কেন তাঁর এমন আশঙ্কা?

আরও পড়ুন: আমি আর তোদের নেতা নই : শোভন

তাঁর দাবি, স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায় দুষ্কৃতী নিয়ে তাঁর গোলপার্কের বাড়ি দখল করতে পারেন। গোলপার্কের বাড়িতে নিরাপত্তা চেয়ে পুলিসে আবেদন করেন শোভন।

কিন্তু শোভনের এই দাবির প্রেক্ষিতে স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়ের প্রতিক্রিয়া আরও মারাত্মক। রত্না দেবীর দাবি, গোলপার্কের বাড়িটি আদৌ শোভনের নয়। বরং ওই বাড়িতে তিনি নাকি অতিথি হিসাবে থাকেন।

মেয়রের আশঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে রত্না চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘গোলপার্কের বাড়ি দখলের কোনও পরিকল্পনা নেই আমার। বাড়িটি আমার ভাই শুভাশিস দাসের। শোভন ওই বাড়িতে গেস্ট হিসাবে থাকেন।’  রত্নার কথায়, ‘বাড়িটি ভাইয়ের। ভাই চাইলে আইনি পথে বাড়ির দখল ফেরত নিতেই পারে, হামলার দরকার নেই।‘

আরও পড়ুন: তৃণমূলের সঙ্গে মেয়র শোভনের বিচ্ছেদ এখন সময়ের অপেক্ষা

মেয়রের গলায় যতটা আশঙ্কার সুর, ঠিক ততটাই পরিণত ও শান্ত প্রতিক্রিয়া রত্নার। তিনি বলেন, ‘আমি চাই ওঁর শুভবুদ্ধির উদয় হোক।‘ রত্নার এই মন্তব্য ইঙ্গিতবাহী বলে মনে করছেন চট্টোপাধ্যায় পরিবারের ঘনিষ্ঠরা। উল্লেখ্য, রত্না চট্টোপাধ্যায়ের আগাম জামিন মঞ্জুর করেছে আলিপুর আদালত।

প্রসঙ্গত, এর আগে স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায় ও তাঁর এক বান্ধবীর বিরুদ্ধে বাড়িতে অনধিকার প্রবেশ, হুমকি ও মানসিক হেনস্থার অভিযোগ তুলে পর্ণশ্রী থানায় অভিযোগ দায়ের করেছিলেন শোভন।

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. You can find out more by clicking this link

Close