দিল্লি সহ সমগ্র উত্তর ভারত শীতে কাঁপছে

দিল্লিতে হাড়কাঁপানো ঠাণ্ডা। পাল্লা দিয়ে নেমেছে সর্বনিম্ন এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। দুহাজার আটের পর রবিবার রাজধানীর তাপমাত্রা নেমেছিল দুই ডিগ্রির নীচে। ঠাণ্ডা এতটাই যে, খুব প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বেরোতে চাইছেন না অনেকেই। তবে আবহাওয়া দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, আজ থেকে বাড়বে সর্বনিম্ন তাপমাত্রার পারদ।

Updated: Jan 6, 2013, 09:48 PM IST

দিল্লিতে হাড়কাঁপানো ঠাণ্ডা। পাল্লা দিয়ে নেমেছে সর্বনিম্ন এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। দুহাজার আটের পর রবিবার রাজধানীর তাপমাত্রা নেমেছিল দুই ডিগ্রির নীচে। ঠাণ্ডা এতটাই যে, খুব প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বেরোতে চাইছেন না অনেকেই। তবে আবহাওয়া দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, আজ থেকে বাড়বে সর্বনিম্ন তাপমাত্রার পারদ।
শৈত্যপ্রবাহে উত্তরপ্রদেশে মৃত্যু মিছিল অব্যাহত। এখনও পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা দেড়শ ছাড়িয়েছে। রাজ্যের সব জায়গাতেই স্বাভাবিকের থেকে সর্বনিম্ন তাপমাত্রার সঙ্গে সঙ্গে কমেছে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। সকালের দিকে ঘন কুয়াশা, এ ছবি এখন উত্তর প্রদেশের তবে মঙ্গলবার পর্যন্ত পরিস্থিতির কোনও উন্নতি হবে না বলেই জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর।  
ঘন কুয়াশা এবং কনকনে ঠাণ্ডায় জনজীবন বিপর্যস্ত পঞ্জাব এবং হরিয়ানায়। হিমাচল প্রদেশের একাধিক এলাকার মতো জম্মু কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগরে তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নীচে। রবিবার ছিল শ্রীনগরে শীতলতম দিন। রাজ্যের একাধিক এলাকায় তাপমাত্রা নেমেছে অনেকটাই নীচে। আগামী কয়েকদিন জম্মু-কাশ্মীরের বিভিন্ন জায়গায় এই কনকনে ঠাণ্ডা থাকবে বলে আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস।