মুখ্যমন্ত্রী `একনায়ক`, `অসহিষ্ণু`: মার্কণ্ডেয় কাটজু

শিলাদিত্য চৌধুরীকে `মাওবাদী` তকমা দিয়ে গ্রেফতার করার ঘটনার কড়া সমালোচনা করলেন প্রেস কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যান ও সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি মার্কণ্ডেয় কাটজু। একসময় মুখ্যমন্ত্রীর ভূয়সী প্রশংসা করলেও রবিবার এক বিবৃতিতে কাটজু তাঁকে `একনায়ক`, `অসসহিষ্ণু` এবং `খামখেয়ালী` বলে উল্লেখ করেন।

Updated: Aug 12, 2012, 10:32 PM IST

শিলাদিত্য চৌধুরীকে 'মাওবাদী' তকমা দিয়ে গ্রেফতার করার ঘটনার কড়া সমালোচনা করলেন প্রেস কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যান ও সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি মার্কণ্ডেয় কাটজু। একসময় মুখ্যমন্ত্রীর ভূয়সী প্রশংসা করলেও রবিবার এক বিবৃতিতে কাটজু তাঁকে 'একনায়ক', 'অসসহিষ্ণু' এবং 'খামখেয়ালী' বলে উল্লেখ করেন।
শিলাদিত্য চৌধুরীর ঘটনাকে তিনি 'রাজনৈতিক ক্ষমতার চূড়ান্ত অপব্যবহার' বলেও উল্লেখ করেন। তাঁর মতে, এই গ্রেফতারিতে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে।  তিনি আরও বলেন, "তাঁর (মুখ্যমন্ত্রীর) ভূমিকাকে অগণতান্ত্রিক বললেও কম বলা হয়।" এমন কী মমতা ব্যানার্জির কোনও গণতান্ত্রিক দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার যোগ্যতা নেই বলেও বিবৃতি দেন তিনি।
যে সব আমলারা মমতা ব্যানার্জির নির্দেশ মেনে চলছেন তাঁদের ন্যুরেমবার্গের বিচারের কথা মনে করিয়ে দিয়ে কাটজু বলেন তাঁদের অবস্থাও নাৎসী অপরাধীদের মতো হবে। তিনি বলেন, "ঊর্ধতনের নির্দেশ পালন করা হয়েছিল বলে নাৎসী যুদ্ধাপরাধীরা ন্যুরেমবার্গের আদালতে যে আর্জি জানান তাকে খারিজ করে তাঁদের প্রত্যেককেই ফাঁসী দেওয়া হয়। সেই একই ভাগ্য যেন না হয় সেই কারণেই পশ্চিমবঙ্গের আমলাদের ন্যুরেমবার্গের বিচার মনে রাখা উচিৎ।"
এর আগে, চলতি বছরের মে মাসে কলকাতায় এসে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনাড়ম্বর জীবনযাপনের ভূয়সী প্রশংসা করেন প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান। সেই প্রসঙ্গ টেনে আজ তিনি বলেন তাঁর আগের বক্তব্য মুখ্যমন্ত্রীর ব্যক্তিগত জীবনযাত্রার মূল্যায়ন ছিল। এখন সেই অবস্থান থেকে ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গিয়ে ভারতের সাংবিধানিক অধিকার এবং মানবাধিকারের প্রতি মুখ্যমন্ত্রীর ন্যূনতম শ্রদ্ধা নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি।

কেবলমাত্র শিলাদিত্য চৌধুরীর গেফতার নয়, এঁর আগে কার্টুন-কাণ্ডে গ্রেফতার ও
হেনস্থার শিকার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালরের অধ্যাপক অম্বিকেশ মহাপাত্র এবং
বেসরকারি টিভি চ্যানেলের টক-শোতে প্রশ্ন করে 'মাওবাদী' চিহ্নিত তানিয়া
ভরদ্বাজের প্রসঙ্গেরও কড়া সমালোচনা করেন মার্কণ্ডেয় কাটজু।

বিনপুরের বাসিন্দা শিলাদিত্য চৌধুরীকে শনিবারই মাওবাদী সন্দেহে গ্রেফতার
করেছে পুলিস। বুধবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বেলপাহাড়িতে
জনসভায় গিয়েছিলেন শিলাদিত্য চৌধুরি। সেখানে মুখ্যমন্ত্রীকে তাঁর আর্থিক
দূরবস্থার কারণ জানাতে যান তিনি। সমস্যার কথা জানাতে গিয়েই বিপদে পড়েন
তিনি। তাকে মাওবাদী চিহ্নিত করে ধরে নিয়ে যায় পুলিস। বেশকিছুক্ষণ
জিক্ষাসাবাদ করার পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এরপর পরে শনিবার তাঁকে গ্রেফতার
করা হয়।