জমি অধিগ্রহণ করতে রাতের অন্ধকারে খুঁটি পুঁতল রেল

জমি অধিগ্রহণ করতে রাতের অন্ধকারে খুঁটি পুঁতল রেল

জমি অধিগ্রহণ করতে রাতের অন্ধকারে খুঁটি পুঁতল রেলএ যেন মাফিয়ার জমি দখল। রেল লাইন পাতার জন্য জমি জরিপ করে খুঁটি পোঁতার কাজ হয়ে গেল রাতের অন্ধকারেই। অথচ কিছুই জানতে পারলেন না জমির মালিকরা। জানানো হল না এলাকার বিডিওকেও। এই ঘটনার প্রতিবাদেই বিক্ষোভে সামিল হলেন উত্তর দিনাজপুরের ইটাহারের কৃষকেরা। ঘটনার বিরোধিতা করে বিডিওকে স্মারকলিপি দেন তাঁরা।

জমি অধিগ্রহণের আগে সরকারের তরফে বিডিওর মাধ্যমে জমির মালিককে নোটিশ দেওয়া হয়। তারপরই শুরু হয় জমি জরিপের কাজ। কিন্তু এসব নিয়মের ধারকাছ দিয়ে যায়নি রেল। উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জে রেলের অধিগ্রহণের জন্য জমি জরিপ এমনকী, খুঁটি পোঁতার কাজ হয়েছে সবার অজান্তে রাতের অন্ধকারে। এলাকার বিডিও পর্যন্ত এই বিষয়ে কিছুই জানতেন না বলে খবর। এর প্রতিবাদেই বিডিও অফিসের সামনে প্রতিবাদে সামিল হলেন রায়গঞ্জ ব্লকের বীরঘই এবং বড়ুয়া অঞ্চলের ১৫টি গ্রামের কৃষকরা। বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের পাশপাশি বিডিওকে স্মারকলিপিও দেন তাঁরা।

জমির মালিককে না-জানিয়ে রাতের অন্ধকারে খুঁটি পুঁতে সীমানা নির্ধারণ করেছে রেল। সীমানার মধ্যে রাখা হয়েছে তিন ফসলি, দু ফসলি জমি। বাদ দেওয়া হয়নি বাস্তুভিটেকেও। এলাকাবাসীর মূল জীবিকা কৃষি। তবু তাঁরা উন্নয়নের পক্ষে বলেই জানিয়েছেন। জমি দিতেও অসম্মত নন। কিন্তু তাঁদের বক্তব্য, তার আগে একবার অন্তত জমির মালিকদের সঙ্গে কথা বলুক রেল। তাঁদের বক্তব্য, আলোচনার পরে রেল কর্তৃপক্ষ জমি জরিপ ও খুঁটি পোঁতার কাজ করুক। গোটা ঘটনা এভাবে জমির মালিক এমনকী বিডিওর অগোচরে সম্পন্ন হওয়ায় বিস্মিত তাঁরা। জমির বিনিময়ে পরিবারের একজনের চাকরি এবং জমির ন্যায্য মূল্য-সহ সাত দফা দাবি রয়েছে গ্রামবাসীদের। গ্রামবাসীদের দাবিদাওয়া উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছে দেবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন বিডিও।
 
বিডিওর আশ্বাসেই আপাতত আন্দোলন স্থগিত রেখেছেন কৃষকেরা। দাবি না মানলে আন্দোলন চলবে বলেই জানিয়েছেন তাঁরা।
 

First Published: Thursday, May 17, 2012, 21:08


comments powered by Disqus