পঞ্চায়েত নির্বাচন প্রক্রিয়ায় স্থগিতাদেশের সময়সীমা বাড়াল সিঙ্গল বেঞ্চ

১৬ এপ্রিল পর্যন্ত পঞ্চায়েত নির্বাচন প্রক্রিয়ার উপর স্থগিতাদেশ জারি করেছিল সিঙ্গল বেঞ্চ।

Updated: Apr 16, 2018, 08:24 PM IST
পঞ্চায়েত নির্বাচন প্রক্রিয়ায় স্থগিতাদেশের সময়সীমা বাড়াল সিঙ্গল বেঞ্চ

নিজস্ব প্রতিবেদন : পঞ্চায়েত নির্বাচন প্রক্রিয়ার উপর স্থগিতাদেশের সময়সীমা বাড়াল কলকাতা হাইকোর্ট। সময়সীমা বাড়িয়ে মঙ্গলবার দুপুর ২টো পর্যন্ত স্থগিতাদেশ জারি করেছে হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চ। মঙ্গলবার দুপুর ২টো থেকে সিঙ্গল বেঞ্চে পঞ্চায়েত মামলার শুনানি হবে।

উল্লেখ্য, বিরোধীদের দায়ের করা মামলার প্রেক্ষিতে ১২ এপ্রিল পঞ্চায়েত নির্বাচন প্রক্রিয়ার উপর স্থগিতাদেশ জারি করে সিঙ্গল বেঞ্চ।  ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত স্থগিতাদেশের নির্দেশ দেওয়া হয়। একইসঙ্গে ১৬ এপ্রিলের মধ্যে নির্বাচন সংক্রান্ত সব তথ্য হলফনামা দিয়ে আদালতে জমা দিতেও কমিশনকে নির্দেশ দেওয়া হয়। সিঙ্গল বেঞ্চের এই স্থগিতাদেশের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়েই ডিভিশনের বেঞ্চের দ্বারস্থ হন তৃণমূলের আইনজীবী তথা সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন, নববর্ষের সকালে দক্ষিণেশ্বর মন্দিরে 'কেঁদে ভাসালেন' তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ ব্যানার্জি

শুক্রবার ১৩ এপ্রিল ডিভিশন বেঞ্চের কাছে সিঙ্গল বেঞ্চের রায় খারিজের দাবি জানান কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। নির্বাচন প্রক্রিয়ার মাঝপথে এভাবে আদালতের হস্তক্ষেপ এক্তিয়ার বহির্ভূত বলে সওয়াল করেন তিনি। কিন্তু কমিশনের তরফে ডিভিশন বেঞ্চে কোনও পিটিশন দাখিল না করায় শুক্রবার ডিভিশন বেঞ্চ পঞ্চায়েত মামলার শুনানি সোমবার পর্যন্ত স্থগিত করে দেয়।

এরপরই এ দিন ডিভিশন বেঞ্চে ফের মামলাটি ওঠে। ডিভিশন বেঞ্চে এদিন ফের সিঙ্গল বেঞ্চের বিচারপতি সুব্রত তালুকদারের রায় খারিজের দাবি জানান কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। এই প্রসঙ্গে সংবিধানের ২৪৩(ও) ধারা এবং দেশের একাধিক হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের নির্বাচন সংক্রান্ত বিভিন্ন মামলার রায়ের উদাহরণ টানেন তিনি।

আরও পড়ুন, জটিল হচ্ছে পঞ্চায়েতের আইনি যুদ্ধ, চূড়ান্ত রায় আদালতেই

কিন্তু, সিঙ্গল বেঞ্চে মামলা চলা সত্ত্বেও তিনি কেন ডিভিশন বেঞ্চের দ্বারস্থ হলেন? কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কে পাল্টা প্রশ্ন করেন বিচারপতি বিশ্বনাথ মজুমদার ও বিচারপতি অমিত মজুমদার। যার উত্তরে সিঙ্গল বেঞ্চে নিজেকে 'বঞ্চিত' বলে দাবি করেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

কিন্তু সরকার পক্ষের আইনজীবীর উত্তরে সন্তষ্ট হতে পারেনি ডিভিশন বেঞ্চ। তাই পঞ্চায়েত মামলা ফের সিঙ্গল বেঞ্চে ফেরানোর পক্ষে রায় দেয় ডিভিশন বেঞ্চ। অন্যদিকে আজ সিঙ্গল বেঞ্চে কমিশনের হলফনামার প্রেক্ষিতে পঞ্চায়েত মামলার শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও, ডিভিশন বেঞ্চের রায় না জানা পর্যন্ত মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত শুনানি স্থগিত করে দেওয়া হয়। মঙ্গলবার দুপুর ২টো থেকে সিঙ্গল বেঞ্চে শুনানি শুরু হবে। 

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. You can find out more by clicking this link

Close