ভোটের মুখে সরকারি মেডিক্যাল কলেজে ছাত্র ভর্তির ছাড়পত্রের অস্বস্তিতে রাজ্য

ভোটের মুখে সরকারি মেডিক্যাল কলেজে ছাত্র ভর্তির ছাড়পত্রের অস্বস্তিতে রাজ্য

বছর গড়িয়ে গেলেও শর্ত পূরণ করতে পারেনি রাজ্য সরকার। প্রয়োজনীয় পরিকাঠামোয় রয়ে গেছে বিস্তর গলদ। MCI-এর পরীক্ষায় ডাহা ফেল রাজ্যের ৮টি সরকারি কলেজ। মিলল না MBBS-এর সাড়ে ৫০০ আসনে ছাত্র ভর্তির ছাড়পত্র। এর জেরে ভোটের মুখে অস্বস্তিতে রাজ্য।

পুলিস, দমকল, জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী, উদ্ধারে সকলেই, কিন্তু নিচে চাপা যে বহু মানুষ পুলিস, দমকল, জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী, উদ্ধারে সকলেই, কিন্তু নিচে চাপা যে বহু মানুষ

হঠাতই বীভত্স আওয়াজ। চোখের সামনে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল দৈত্যাকার উড়ালপুলের একটা বড় অংশ। ধ্বংসস্তূপের নীচে চাপা পড়লেন বহু মানুষ। চাপা পড়ল বহু গাড়ি। শহরের বুকে এতবড় বিপর্যয় কেড়ে নিল বহু প্রাণ। পোস্তা আর হাসপাতাল ভারী হল স্বজন হারানোর হাহাকারে। যাঁরা বেঁচে গেলেন তাঁরা ঝাঁপিয়ে পড়লেন উদ্ধার কাজে।

বেড মেলেনি, দেওয়া হয়নি অক্সিজেনও, ছাত্রীর মৃত্যু হল ট্রলিতেই বেড মেলেনি, দেওয়া হয়নি অক্সিজেনও, ছাত্রীর মৃত্যু হল ট্রলিতেই

ফের মেডিক্যাল কলেজের গাফিলতির অভিযোগ। গাফিলতিতে ছাত্রের মৃত্যু। বিদ্যাসাগর কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র জয়ন্ত ঘোষ। বাড়ি হাওড়ায়। কলেজে প্র্যাকটিকাল ক্লাস করার সময় অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। সঙ্গে সঙ্গেই মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যান কলেজ কর্তৃপক্ষ। কিন্তু দীর্ঘক্ষণ বেড মেলেনি বলে অভিযোগ। পরে ভর্তি করা হয় জরুরি বিভাগে। অক্সিজেন দেওয়ার কথা বলেন চিকিত্সক। কিন্তু নার্স অক্সিজেন দিতে ভুলে যান বলে অভিযোগ। গতকাল রাত সাড়ে এগারোটা নাগাদ মৃত্যু হয় জয়ন্তর। চিকিত্সায় গাফিলতির অভিযোগে ক্ষোভে ফেটে পড়ে মৃত ছাত্রর পরিবার। গাফিলতির অভিযোগ অবশ্য মানতে চাননি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

শিশুমৃত্যু কাণ্ডে গাফিলতি স্বীকার করে নিল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শিশুমৃত্যু কাণ্ডে গাফিলতি স্বীকার করে নিল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ

হাসপাতালে সুবিচার না পেয়ে এবার মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারস্থ দুই সন্তানহারা বাবা মা।  আজ সকালে মেডিক্যাল কলেজে অভিযোগ জানাতে গিয়ে চরম হেনস্থার মুখে পড়তে হয় অষ্টম-আফরিনদের।  অভিযোগ নেননি সুপার। মুখের ওপর দরজা বন্ধ করে দেন অধ্যক্ষ। বিকেলে নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর দফতরে গিয়ে অভিযোগ জানিয়ে আসে দুই বাবা মা। সরকারি হাসপাতালের অমানবিক মুখের সঙ্গে আগেই পরিচয় হয়েছে ওঁদের। চিকিত্সক- নার্সদের চরম গাফলতিতে ওয়ার্মারে পুড়ে গেছে প্রথম সন্তান।   

একই মাঠে ক্রিকেট না ফুটবল? খেলতে গিয়ে হাসপাতালে ৩ যুবক  একই মাঠে ক্রিকেট না ফুটবল? খেলতে গিয়ে হাসপাতালে ৩ যুবক

খেলা নিয়ে সংঘর্ষে উত্তেজনা ছড়াল কল্যাণীতে। গতকাল বিকেলে কল্যাণী মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রদের সঙ্গে স্থানীয় একদল আদিবাসী যুবকের সংঘর্ষ বাধে। ৩ জন আদিবাসী যুবককে বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আর তারই জেরে আদিবাসী সম্প্রদায়ের বহু মানুষ গভীর রাত পর্যন্ত কলেজ ঘেরাও করে  রাখেন। ওই ছাত্রদের তাদের হাতে তুলে দেওয়ার দাবিও তোলেন তারা। পুলিস গিয়ে শেষপর্যন্ত পরিস্থিতি আয়ত্তে আনে। ঘটনায় এপর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি। জানা গেছে,কলেজ লাগোয়া মাঠে এদিন ছাত্ররা ক্রিকেট খেলছিলেন। একই মাঠে স্থানীয় কয়েকজন আদিবাসী যুবক ফুটবল খেলতে নামায় ২ পক্ষের মধ্যে গোলমাল বেধে যায়।

অস্ত্রোপচারের দু`মাস পর প্রসূতির শরীর থেকে বেরোল ৪ মিটার গজ

অস্ত্রোপচারের দু`মাস পর প্রসূতির শরীর থেকে বের করা হল  ৪ মিটার গজ। চিকিত্সায় গাফিতলির অভিযোগ উঠেছে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের চিকিত্সকদের বিরুদ্ধে।

অধ্যক্ষকে মারধরের অভিযোগ ওঠায় `প্রমোশন` মন্ত্রী কৃষ্ণেন্দুর! রোগী কল্যাণ সমিতি থেকে সরানো হল মন্ত্রী-বিধায়কদের

আচমকাই রাজ্যের সাতটি মেডিক্যাল কলেজের রোগী কল্যাণ সমিতি থেকে সরানো হল মন্ত্রী, বিধায়কদের। স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, পারফরমেন্স ভাল না হওয়ায় মুখ্যমন্ত্রীর ইচ্ছাতেই তাঁদের ওই সমিতিগুলি থেকে সরিয়ে দেওয়ার এই সিদ্ধান্ত।

শিক্ষাঙ্গনের নৈরাজ্যে এ বার যোগ দিলেন রাজ্যের মন্ত্রী, অধ্যক্ষকে মাটিতে ফেলে মারার অভিযোগ পর্যটনমন্ত্রীর বিরুদ্ধে

ফের শিক্ষাঙ্গনে নৈরাজ্য। অভিযোগ এবার খোদ রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরীর বিরুদ্ধে। অভিযোগ মালদা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষকে মাটিতে ফেলে পিটিয়েছেন তিনি। তাও জেলাশাসক, অতিরিক্ত জেলাশাসক এবং মালদা মেডিক্যালের অন্য অফিসারদের সামনেই। আর সেই খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে পর্যটনমন্ত্রীর হুমকির মুখে পড়লেন চব্বিশ ঘণ্টার প্রতিনিধি।

মালদা মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রী হোস্টেলের ক্যান্টিন দখলের অভিযোগ কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরীর বিরুদ্ধে

মালদা মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রী হস্টেলের ক্যান্টিন দখলের অভিযোগ। বিতর্কে জড়ালেন রাজ্যের মন্ত্রী কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরী। অভিযোগ, তাঁর নির্দেশেই এ কাজ করা হয়েছে। শনিবার একদল বহিরাগত ক্যান্টিন বন্ধ করে দেয়। ইতিমধ্যেই এবিষয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। অভিযোগ জানানো হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীকেও।  

শিশু মৃত্যু মিছিল সামনে আনল এসএনসিইউ প্রহসন

বিসি রায় হাসপাতালে শিশু মৃত্যু মিছিল আরও একবার প্রশ্ন তুলে দিয়েছে রাজ্যের শিশু চিকিত্সা পরিকাঠামো নিয়ে। শুধু বি সি রায় নয়। শিশু চিকিতসার বেহাল দশা অন্য সরকারি হাসপাতালেও। উদ্বোধনের মাত্র কয়েক মাসের মধ্যে মুখ থুবড়ে পড়েছে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের ১০০ শয্যার এসএনসিইউ। চব্বিশ ঘণ্টার বিশেষ রিপোর্ট।

মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসক-চতুর্থ শ্রেণির কর্মীদের হাতাহাতি, এলাকায় চাঞ্চল্য

শনিবার সকালেই উত্তপ্ত হয়ে উঠল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ। চিকিৎসকের মারে জখম চতুর্থ শ্রেণির কর্মী। হাসপাতালের ভিতরেই চিকিৎসক-চতুর্থ শ্রেণির কর্মীর হাতাহাতি হয়। চিকিৎসককে পাল্টা মারধর করেছেন চতুর্থ শ্রেণির কর্মীরা, অভিযোগ এমনই।

শহরের রাজপথে ত্রিফলা বাতিস্তম্ভে ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী মহিলা

রাজপথে ত্রিফলা বাতিস্তম্ভে গলায় ওড়নার ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করলেন এক মহিলা। সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ের ওপরে হাজার হাজার মানুষ ও পুলিসের চোখের সামনেই গলায় ফাঁস লাগান ওই মহিলা। মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিত্সকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষনা করেন।

মেডিক্যালে বেআইনি ভর্তি মামলার ফের শুনানি কাল

টাকা দিয়ে জাল বাসস্থানের শংসাপত্র জোগাড় করে ভিন রাজ্যের অনেকেই ভর্তি হয়েছেন ডাক্তারিতে। মেডিক্যালে অভিন্ন প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের একাংশ এই অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন কলকাতা হাইকোর্টে। বিচারপতি অনিরুদ্ধ বোসের এজলাসে আজ এই মামলার শুনানি হল।

প্রশ্নের মুখে রাজ্যের ৩টি মেডিক্যাল কলেজ

রাজ্যের তিনটি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলল মেডিক্যাল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া। মালদহ, মুর্শিদাবাদ এবং সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে এমসিআই জানিয়েছে, কলেজ হওয়ার কোনও যোগ্যতাই নেই এই প্রতিষ্ঠানগুলির। এ বিষয়ে লিখিত জবাবও তলব করা হয়েছে। জবাবে সন্তুষ্ট না হলে এই তিন মেডিক্যাল কলেজে ছাত্রভর্তি বন্ধ করে দেওয়া হবে চলতি বছর থেকেই।  

মুখ লুকিয়ে হাসপাতালে ফিরলেন ডাক্তাররা

সাংবাদিকদের এড়াতে লুকিয়ে হাসপাতালে ঢুকলেন এনআরএসের ইন্টার্নরা। এমনকী সংবাদমাধ্যমকে এড়াতে সরাসরি হাসপাতালে না নেমে শিয়ালদা, মৌলালি বিভিন্ন জায়গায় একেকজন করে ইন্টার্ন বাস থেকে নামেন। আজ ভোর রাতে তাজপুর থেকে জেলা পুলিসের এসকর্টে তাঁরা কলকাতায় ফেরেন। ফিরে ফের ঝামেলায় জড়ান ইন্টার্নরা।

হাসপাতালের খাবার পছন্দ নয়, অস্ত্র নিয়ে হামলা খাবার সরবরাহকারীকে

খাবারের মান নিয়ে আপত্তি ছিল। তাই কাঠের মিস্ত্রির ধারাল অস্ত্র নিয়ে চড়াও হলেন খাবার সরবরাহকারীর ওপর। এক মানসিক রোগীর তাণ্ডবে রীতিমতো আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি  হল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।