জিতলেও সিঙ্গুরে পঞ্চায়েত সমিতিতে ঠোকর খেল তৃণমূল

Last Updated: Tuesday, July 30, 2013 - 06:38

সিঙ্গুর পঞ্চায়েত সমিতিতে আশানুরূপ ফল করতে পারল না তৃণমূল কংগ্রেস। ব্লকের ১৬টি গ্রাম পঞ্চায়েতেও একই অবস্থা। ১৫টি দখলে থাকলেও এবার ১০টিতেই সন্তুষ্ট থাকতে হচ্ছে বেচারাম মান্নার তৃণমূল কংগ্রেসকেই। বাকি পাঁচটি ত্রিশঙ্কু হয়েছে। সিঙ্গুরের জমি আন্দোলনই তিন দশক সরকারে থাকা বামফ্রন্টের ভিতটাই নড়িয়ে দিয়েছিল। 
 
টাটা গাড়ির জন্য অনিচ্ছুক জমিদ্বাতাদের জমি আন্দোলনের ওপর ভর করেই ফের উত্থান হয় ২০০৪-এর লোকসভা এবং ২০০৬-এর বিধানসভা নির্বাচনে ধরাশয়ী তৃণমূল কংগ্রেসের। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ফ্রন্টফুটে নিয়ে চলে আসে জমি আন্দোলন।  
দুহাজার এগারোর বিধানসভা নির্বাচনের ভিতটাই যেন গেঁথে দিয়েছিল দুহাজার আটের পঞ্চায়েত নির্বাচনে সিঙ্গুর পঞ্চায়েত সমিতির ফলাফল।
 
মোট ৪৫টি আসনের মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেস পায় ৩৭টি আসন। বামেরা পায় আটটি আসন।
 
রাজ্যে রাজনৈতিক পালাবদলের পর, মুখ্যমন্ত্রী হয়ে প্রথমেই সিঙ্গুরে অনিচ্ছুক কৃষকদের জমি ফেরত দেওয়ার জন্য তত্পর হন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাস করেন সিঙ্গুর আইন। কিন্তু আইনের বৈধতা নিয়েই প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। সুপ্রিম কোর্টে সেই মামলা এখন বিচারাধীন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের ওপর যে সামান্য হলেও আস্থা কমেছে সিঙ্গুরের বাসিন্দাদের, এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফলে তা অনেকটাই স্পষ্ট হয়ে গেল।
 
এবারের সিঙ্গুর পঞ্চায়েত সমিতিতে মোট ৪৭টি আসনের মধ্যে ৩৬টি তৃণমূলের দখলে। ১১টিতে জয়ী বামেরা। কংগ্রেসের দখলে গিয়েছে একটি আসন।
 
অর্থাত্ এবার পঞ্চায়েত সমিতির আসন বেড়েছে। কিন্তু গতবারের নীরিখে একটি আসন কমে গিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের। বামেদের তিনটি আসন বেড়েছে। এবং কংগ্রেসের দখলে এসেছে একটি আসন।
 
পঞ্চায়েত সমিতি তো বটেই, গ্রাম পঞ্চায়েতগুলিতেও অনেকটাই পিছিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস। ২০০৮-এ গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৫টিই দখলে রেখেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। একটিতে জেতে বামেরা। এবারের ভোটে তৃণমূল দখলে রাখতে পেরেছে মাত্র ১০টি পঞ্চায়েত। বামেদের দখলে একটি এবং পাঁচটি পঞ্চায়েত ত্রিশঙ্কু অবস্থায়।
 
সিঙ্গুর নিয়ে নতুন সরকারের তাড়াহুড়োর গেঁরোয় আটকে গিয়েছে জমি ফেরতের প্রক্রিয়া। জমি আদৌ অনিচ্ছুক কৃষকরা ফেরত পাবেন কিনা, তা নিয়েও রয়েছে সংশয়। সে জন্যই কী সরকারের ওপর অনেকটাই ভরসা হারিয়েছে সিঙ্গুরবাসী? এ প্রশ্ন যেমন উঠছে, তেমনই উঠছে মাস্টারমশাই রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য এবং মন্ত্রী বেচারাম মান্নার দূরত্বের প্রসঙ্গটাও। প্রশ্ন উঠছে, এই দুই নেতার দুই পথে হাঁটার মাশুলই কি সিঙ্গুরে গুণতে হল তৃণমূলকে?
 



First Published: Tuesday, July 30, 2013 - 06:38


comments powered by Disqus