কলকাতা সিপিএম-এ কল্লোল যুগের শুরু, বাদ একডজন 'বুড়ো নেতা'

রবিবার নতুন কিমিটির প্রস্তাব করতেই সরকারি প্যানেলের বিরুদ্ধে ভোটে লড়তে দাঁড়িয়ে যায় দুই পক্ষের ১৫ জন নেতা কর্মী। মূলত কংগ্রেসের সঙ্গে জোট এবং জোটের বিরোধী-এই দুই লাইনেই আড়াআড়ি ভাগ হয়ে যায় কলকাতা সিপিএম। 

Updated: Feb 6, 2018, 05:30 PM IST
কলকাতা সিপিএম-এ কল্লোল যুগের শুরু, বাদ একডজন 'বুড়ো নেতা'

উজ্জ্বল মুখার্জি 

রাতের 'বিপ্লবে'র পর ভোরের সূর্য দেখল কল্লোল উদয়। কলকাতা সিপিএম-এ সাদা চুলের পাকা মাথাদের সরিয়ে গণত্রান্ত্রিক উপায়ে ওপরে উঠে এল এক ঝাঁক তরুণ মুখ। ৪৮ ঘণ্টা তাত্ত্বিক আলোচনার পর সম্মেলনের শেষ দিনে ভোটাভুটি করে তৈরি হল নতুন কলকাতা জেলা কমিটি। ৬০ জনের নতুন কমিটি থেকে বয়সের কারণে বাদ গেল প্রায় এক ডজন নেতা। বাদ পড়লেন গতবারের সম্পাদক নিরঞ্জন চ্যাটার্জি সহ শ্রমিক আন্দোলনের তাবড় নেতা রাজদেও গোয়ালা। বয়সের কারণেই রাখা হয়নি দিলীপ সেনের মত অভিজ্ঞ নেতাকেও। নব নির্বাচিত কলকাতা জেলা কমিটির নতুন সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন কল্লোল মজুমদার। 

আরও পড়ুন- উত্তরাধিকারী অভিষেক-শুভেন্দু,স্বীকৃতি মমতার

উল্লেখ্য, রবিবার প্রস্তাবিত প্যানেলের বিরুদ্ধে ভোটে লড়তে দাঁড়িয়ে যায় দুই পক্ষের ১৫ জন নেতা কর্মী। মূলত কংগ্রেসের সঙ্গে জোট এবং জোটের বিরোধী-এই দুই লাইনেই আড়াআড়ি ভাগ হয়ে যায় কলকাতা সিপিএম। রাজ্য সম্পাদক সূর্য মিশ্র এবং বর্ষীয়ান বাম নেতা বিমান বসুর শত চেষ্টাতেও আটকানো যায়নি ভোটাভুটি। সোমবার ভোররাত পর্যন্ত ভোটাভুটির পর ঠিক হয় নতুন জেলা কমিটি। জয়ী হয় প্রস্তাবিত প্যানেলই।  

আরও পড়ুন- দিল্লিতে তৃণমূলকে ছাড়া কংগ্রেসের চলে না : মমতা

এখানেই শেষ নয়। নতুন কমিটি নির্বাচনের পর মতানৈক্য দেখা যায় সম্পাদক নির্বাচন নিয়েও। রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী মানব মুখার্জি বনাম কল্লোল মজুমদার। যদিও ভোটাভুটিতে শেষ হাসি হাসেন কল্লোলই। মানব মুখার্জি ছিলেন কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের পক্ষে। অন্যদিকে জোট বিরোধী অবস্থানে অনড় ছিলেন কল্লোল মজুমদারও। অবশেষে প্রমোদ দাশগুপ্ত ভবনে জয়ের হাসি নিয়েই বাড়ি ফেরে কল্লোল ব্রিগেডই। নতুন কমিটিতে আনা হয় একঝাক তরুণ মুখ।

আরও পড়ুন- 'ভোট হয়নি, লুঠ হয়েছে', বিরোধী আসন হারিয়ে পাল্টা চ্যালেঞ্জ সিপিএম-কংগ্রেসের

শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ঘরে তত্ত্বগত আলোচনায় সিপিএম-এর উত্তাল হওয়ার ছবি অতীতে বহুবার দেখা গিয়েছে। কখনও ভারতের প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য কমিউনিস্ট নেতা জ্যোতি বসুর নির্বাচন, আবার কখনও ইউপিএ সরকারের হাত ছেড়ে সরাসরি বিরোধীতায় নামা, আর ইদানীং কালের কংগ্রেস জোটের পক্ষে সওয়াল- সবই শিরোনামে এসেছে। তবে এভাবে ভোটাভুটি করে নেতা নির্বাচনের ছবি কংগ্রেস-তৃণমূলে দেখা গেলেও সিপিএম-এ এতদিন তা দুর্লভ ছিল। জনগণের রায়ে যেখানে পাকাপোক্ত বিরোধী তকমাও হারাচ্ছে কমিউনিস্ট পার্টি, সেখানে এভাবে গোষ্ঠীকোন্দলের ছবি সামনে আসাতে সিপিএম আরও বিপাকে পড়বে বলেই মত রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশের। 

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. You can find out more by clicking this link

Close