বছরের শেষ রবিবারে জমজমাট চিড়িয়াখানা

ডিসেম্বরের শেষ। রবিবার। তার সঙ্গে জমাটি ঠাণ্ডা। এই ত্র্যহস্পর্শে জমে উঠল ছুটির দিনের চিড়িয়াখানা। ছোট থেকে বড়, জেলা থেকে শহর, এমনকি ভিন রাজ্যের বাসিন্দা, সবার ভিড়ে আজকের চিড়িয়াখানা হয়ে উঠেছিল যেন এক কার্নিভ্যাল। পশুপাখিদের ঘিরে ছোটদের বিস্ময় আর আনন্দ, বড়দের দিলদরিয়া মেজাজ আর দেদার খাওয়াদাওয়া, সব মিলিয়ে আজ দিনভর যেন আনন্দের হাট বসেছিল চিড়িয়াখানা চত্বরে।

Updated: Dec 30, 2012, 08:29 PM IST

ডিসেম্বরের শেষ। রবিবার। তার সঙ্গে জমাটি ঠাণ্ডা। এই ত্র্যহস্পর্শে জমে উঠল ছুটির দিনের চিড়িয়াখানা। ছোট থেকে বড়, জেলা থেকে শহর, এমনকি ভিন রাজ্যের বাসিন্দা, সবার ভিড়ে আজকের চিড়িয়াখানা হয়ে উঠেছিল যেন এক কার্নিভ্যাল। পশুপাখিদের ঘিরে ছোটদের বিস্ময় আর আনন্দ, বড়দের দিলদরিয়া মেজাজ আর দেদার খাওয়াদাওয়া, সব মিলিয়ে আজ দিনভর যেন আনন্দের হাট বসেছিল চিড়িয়াখানা চত্বরে।
শীতের কুয়াশা গায়ে মেখে চিড়িয়াখানার সামনে বহুবর্ণরঞ্জিত মানুষের ভিড়। বছরের শেষ রবিবারের সকালে দেখা গেল সেই চেনা ছবি। ছোটদের হাত ধরে এসেছেন বড়রা। তবে শুধুই ছোটদের আনন্দ দিতে নয়, বছরের শেষ রবিবারটা নিজেরাও উপভোগ করতে। বেলা বাড়তেই তিল ধারণের জায়গা ছিল না চিড়িয়াখানা চত্বরে। সব খাঁচার সামনেই উত্সাহী মানুষের ভিড়। চোখের সামনে বইয়ে দেখা পশুপাখিদের নড়াচড়া দেখে বেজায় খুশি ছোটরা।
খুশি বড়রাও। কারণ সপরিবারে চিড়িয়াখানার মধ্যেই জমে উঠেছে পিকনিকের মেজাজ।
খানিক পরে খেলায় মেতে উঠল ছোটরা।  সঙ্গে দফায় দফায় মনপসন্দ খাবারের প্যাকেট। মাসের শেষ হলেও বছর শেষের ছুটির দিনে বড়দের মেজাজ কিন্তু দিলদরিয়া। পারিবারিক আন্ন্দ উপভোগের সেই চেনা ছবির আবহ দিনভর মাতিয়ে রাখল সকলকেই।