দুই রাজ্যে শপথগ্রহণে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত মমতার, কং-তৃণমূল জোটে নয়া সমীকরণ?

Last Updated: Sunday, March 11, 2012 - 09:22

উত্তরপ্রদেশ ও পঞ্জাবে নতুন সরকারের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে হাজির থাকবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল সূত্রের খবর, বেশকয়েকটি রাজ্য থেকেই তাঁকে আসার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঠিক করেছেন এই ২ রাজ্যে হাজির থাকবেন তিনি। উত্তরপ্রদেশ ও পঞ্জাবে শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রীর যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্তে ইউপিএ জোটে তৃণমূল থাকছে কি না, প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে রাজনৈতিক মহলে।  
 
প্রসঙ্গত, জাতীয় রাজনীতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কখনও হাত মিলিয়েছেন বিজেপির সঙ্গে কখনও আবার কংগ্রেস। শুধু হাত মেলানোই নয়, ইউপিএ এবং এনডিএ জোটের মন্ত্রিসভাতেও একাধিকবার গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রক সামলেছেন। এবার কিন্তু একটু অন্য পথে হাঁটতে উদ্যোগী হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সদ্য শেষ হয়েছে ৫ রাজ্যের নির্বাচন। উত্তরপ্রদেশে জয়ী হয়েছে সমাজবাদী পার্টি, পঞ্জাবে শিরোমণি অকালি দল ও বিজেপি জোট। নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা হওয়ার পরেই মুলায়ম সিং যাদবকে অভিনন্দন জানাতে ফোন করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর সঙ্গে কথা হয়েছে পঞ্জাবের অকালি দলের শীর্ষ নেতাদেরও। সেই সময় তাঁকে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আসার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।
তৃণমূল সূত্রের খবর, হঠাত্‍ করে কোনও সমস্যা তৈরি না হলে উত্তরপ্রদেশ ও পঞ্জাবে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে থাকবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই সিদ্ধান্ত? রাজনৈতিক মহলের মতে, ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখেই তাঁর এই পদক্ষেপ। জাতীয় স্তরে অকংগ্রেসি, অবিজেপি, এবং অবশ্যই বামেদের বাদ দিয়ে তৃতীয় বিকল্প গড়ে তুলতে তাঁর এই উদ্যোগ বলেই মনে করা হচ্ছে। উত্তরপ্রদেশের নির্বাচনের ফলাফল থেকেই স্পষ্ট, সাংগঠনিকভাবে কংগ্রেস যথেষ্ট কোণঠাসা অবস্থায় রয়েছে। বিজেপিও খুব একটা ভালো জায়গায় নেই। সরকার গঠনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে এই আঞ্চলিক দলগুলি। রাজতিক মহলের মতে সেই লক্ষ্য মাথায় রেখেই তৃণমূল নেত্রীর এই উদ্যোগ। যদিও তৃণমূল নেতা সুলতান আহমেদের সাফাই, ইউপিএ-তেই থাকছে তৃণমূল কংগ্রেস। পঞ্জাব ও উত্তরপ্রদেশে নতুন মুখ্যমন্ত্রীদের অভিনন্দন জানাতেই যাচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
    



First Published: Sunday, March 11, 2012 - 12:34


comments powered by Disqus