সুদীপ্ত সেনের উত্থান কাহিনি

Last Updated: Saturday, April 20, 2013 - 21:06

সারদা গোষ্ঠীর কর্ণধার সুদীপ্ত সেন। এমুহূর্তের সবচেয়ে আলোচিত নাম। যিনি মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে সামান্য এক ব্যবসায়ী থেকে হাজার হাজার কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক হয়ে উঠেছেন। কীভাবে এতটা ফুলেফেঁপে উঠলেন সুদীপ্ত সেন? কারা রয়েছেন তাঁর এই উত্থানের পিছনে?          
নব্বইয়ের দশকের শুরুর দিকে ব্যবসায়ী জীবনে আত্মপ্রকাশ রিয়েল এস্টেট এজেন্ট হিসেবে। বেহালা ট্রাম ডিপোর কাছে তখন ছোট্ট একটি অফিস ছিল সুদীপ্ত সেনের।
সূত্রের খবর, পৈলান এলাকায় একসময় বহু জমি বিক্রি করেন তিনি। তা থেকে প্রচুর কাচা টাকা হাতে আসে। এরপরই দুহাজার ছয়ে সুদীপ্ত সেন নেমে পড়েন চিট ফান্ড ব্যবসায়।
শোনা যায়, তাঁর আগে সেন পরিবারেরই ভূদেব সেন ছিলেন সঞ্চয়নী সেভিংস অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানির মালিক। নব্বইয়ের দশকের গোড়ার দিকে প্রচুর লগ্নিকারীকে ধোঁকা দিয়েছিল ওই সংস্থাও। উনিশশো চুরানব্বইয়ে গ্রেফতার হন ভূদেব সেন। যদিও তাঁর সঙ্গে সম্পর্কের কথা বরাবর অস্বীকার করে এসেছেন সুদীপ্ত সেন।   
তিনি চিট ফান্ড ব্যবসায় নামার পর অল্প কিছু সময়ের মধ্যে বিভিন্ন কোম্পানির মাধ্যমে বিশাল সারদা সাম্রাজ্য খাড়া করে ফেলেন।
সারদা গোষ্ঠীর কোম্পানিগুলির মধ্যে রয়েছে -- সারদা কনস্ট্রাকশন, সারদা রিয়েলিটি, সারদা ট্যুরজ অ্যান্ড ট্রাভেলস, সারদা এক্সপোর্ট।
সূত্রের খবর, ২০০৮ পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকে তৃণমূল নেতৃত্বের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ক্রমশ বাড়তে থাকে সুদীপ্ত সেনের। সেই সময়েই তিনি সংবাদমাধ্যমেও নিজের সংস্থার শাখা-প্রশাখা বিস্তার করতে শুরু করে দেন। সংবাদপত্র এবং টেলিভিশন চ্যানেল মিলিয়ে দশ-দশটি মিডিয়া হাউস খুলে বসে সারদা গোষ্ঠী। সরকার ওই গোষ্ঠীর পাশে রয়েছে, এই ছবি বারবার সামনে উঠে আসতে থাকে। খোদ মুখ্যমন্ত্রীকেও দেখা যায় সারদা গোষ্ঠীর একটি সংবাদপত্র প্রকাশ করতে।
শাসক দলের মন্ত্রী, সাংসদ সহ নেতাদের সঙ্গে এইসময় সুদীপ্ত সেনের রমরমা বাড়তে থাকে বলে খবর বিভিন্ন মহলে। এই সমস্ত ঘটনা জনমানসে সারদা গোষ্ঠীর বিশ্বাসযোগ্যতা আরও বাড়াতে অনুঘটকের কাজ করে বলে পর্ষবেক্ষকদের ধারণা। একটি সূত্রের খবর, দুহাজার ছয়ে চিট ফান্ড ব্যবসা শুরুর পর গত সাত বছরে সুদীপ্ত সেনের সম্পত্তির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে বাইশ হাজার কোটি টাকা।



First Published: Saturday, April 20, 2013 - 21:06


comments powered by Disqus