মুম্বই ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবি জানাল বিজেপি

মুম্বইয়ে গতকালের ঘটনার প্রেক্ষিতে আজ মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবে বিজেপির এক প্রতিনিধি দল। ঘটনায় জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে বিজেপি। ইতিমধ্যেই অশান্তির ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে মুম্বই ক্রাইম ব্রাঞ্চ। গতকালের অশান্তিতে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ছেচল্লিশজন। তবে, আজ সকাল থেকে অস্বাভাবিকরকম শান্ত মুম্বই।

Updated: Aug 11, 2012, 05:01 PM IST

মুম্বইয়ে গতকালের ঘটনার প্রেক্ষিতে আজ মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবে বিজেপির এক প্রতিনিধি দল। ঘটনায় জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে বিজেপি। ইতিমধ্যেই অশান্তির ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে মুম্বই ক্রাইম ব্রাঞ্চ। গতকালের অশান্তিতে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ছেচল্লিশজন। তবে, আজ সকাল থেকে অস্বাভাবিকরকম শান্ত মুম্বই।
মহারষ্ট্র সরকারের কাছে ঘটনার রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকও। শান্তি বজায় রাখার আবেদন জানানোর পাশাপাশি যারা গুজব ছড়িয়েছিলেন তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুশীলকুমার শিন্ডে।
অসম ও মায়ানমারের হিংসা পরিস্থিতির প্রতিবাদে আজাদ ময়দানে একটি সভায় জমায়েত হন প্রায় ৫০ হাজার মানুষ। কালো ব্যাজ পরে শান্তিপূর্ণ সভা চলাকালীনই হঠাৎ সেই সমাবেশেই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পরিস্থিতি আয়ত্তের বাইরে চলে যায়। সংবাদ মাধ্যমের উপর চড়াও হয় উত্তেজিত জনতা। আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয় ঘটনাস্থলে উপস্থিত একটি হিন্দি চ্যানেলের ওবি ভ্যানে।
প্রায় পঞ্চাশ হাজার মানুষের ওই জমায়েতে ব্যাপক গণ্ডগোল ছড়িয়ে পড়ে আশপাশের এলাকাতেও। ভাঙচূর করা হয় আশপাশের দোকান ও যাত্রীবাহী বাস।
পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠিচার্জ করে পুলিস। শূন্যে গুলিও চালায় তারা। উত্তেজিত জনতার উপর লাঠিও চালায় পুলিস। সভার অন্যতম উদ্যোক্তা ইমরান দাদানি ২৪ ঘণ্টাকে জানান বহিরাগতরাই এই ঘটনার জন্য দায়ি। তাঁদের বদনাম করার জন্যই এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে।
ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান মুম্বইয়ের পুলিস কমিশনার সহ পুলিসের উচ্চপদস্থ কর্তারা। ঘিরে ফেলা হয়েছে গোটা এলাকা। পরিস্থিতি আপাতত নিয়ন্ত্রনে, জানিয়েছে পুলিস।