রেল বাজেট টাইম লাইনে

রেল বাজেট টাইম লাইনে

রেল বাজেট টাইম লাইনেসংসদে পৌঁছিয়েছেন রেলমন্ত্রী পবন কুমার বনসল

শরীকী চাপ নেই, ১৭ বছর পর কংগ্রেসের মন্ত্রীই পেশ করবেন রেল বাজেট

এটাই হবে দ্বিতীয় ইউপিএ সরকারের শেষ পূর্ণাঙ্গ রেল বাজেট

সংসদে শুরু রেল বাজেট পেশ

এলাহাবাদ স্টেশনে দুর্ঘটনায় মৃত কুম্ভযাত্রীদের জন্য দুঃখপ্রকাশ বনসলের

রেলের যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নতির প্রয়োজন: সংসদে বললেন বনসল

টাকার অভাবে বাড়ছে সমস্যা

অর্থের অভাবে যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্য ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে

প্যাসেঞ্জার সার্ভিস খাতে ক্ষতির পরিমাণ ২০০১ সালের ৪৯৫৫ কোটি টাকা থেকে বেড়ে ২০১১-২০১২ সালে ২২৫০০ কোটি টাকা হয়েছে। ২০১২-২০১৩ সালে

সেটা বেড়ে আনুমানিক ২৪৬০০ টাকা হওয়ার সম্ভাবনা।

আগের রেলবাজেটের অন্তর্গত প্রকল্প গুলোর মধ্যে লাইন বৈদুত্যিকরণ ও নতুন লাইন পাতার কাজ সম্পন্ন।

কিন্তু ডবল লাইন পাতার লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যায়নি।

১২তম প্ল্যানে মোট রেল বাজেট ৫ কোটি ১৯ লক্ষ টাকা।

তার থেকে গ্রস বাজেটারি সাপোর্ট পাওয়া যাবে ১ কোটি ৯৪ লক্ষ টাকা

অভন্ত্যরীণ সূত্র থেকে পাওয়া যাবে ১ কোটি ৫ লক্ষ টাকা

প্রতি ১০০ কিলোমিটারে অ্যাক্সিডেন্ট ২০০৩-এর ০.৪১ থেকে কমে ২০১১-২০১২ সালে ০.৩ নেমে এসেছে।

সেন্ট্রাল রেল ফান্ড থেকে ৫০০০ কোটি টাকা দরকার

মোট ক্ষতির পরিমাণ ২৫০০০ কোটি

আরও এলএইচবি কোচ চালু করা হবে।

রেললাইন পাড় করার সময় ট্রেনের ধাক্কায় যাতে হাতিদের মৃত্যু রোধে সে বিষয়ে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও বেশি সংখ্যক মহিলা আরপিএফ নিযুক্ত করা হবে।

লেডিস স্পেশাল ট্রেনগুলিতে মহিলা আরপিএফ নিযুক্ত করা হবে।

লেভেল ক্রসিং-এর সংখ্যা কমানো হবে।

নতুন কোন লেভেল ক্রসিং তৈরি হবে না।

ট্রেন সুরক্ষা সতর্কতা প্রযুক্তি চালু করা হবে।

অ্যান্টি ট্রেন কলিসন প্রযুক্তি পরীক্ষা করা হবে।

ট্র্যাকগুলির উন্নতমানের করা হবে।

ক্ষতিগ্রস্থ রেলব্রিজ গুলিকে দ্রুত সারিয়ে ফেলা হবে।

অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থাকে জোরদার করা হবে। ধোঁয়া চিহ্নিতকারী যন্ত্রের প্রয়োগ করা হবে।

২০১৪ থেকে ২০২৪-এর মধ্যে কর্পোরেট সুরক্ষা প্রকল্পটি রূপায়িত করা হবে।

রেলে নারী সুরক্ষার বিষয়টি জোরদার করা হবে। মহিলাদের জন্য ৮টি আরপিএফ ইউনিট তৈরি করা হবে।

লোকাল ও মেট্রোতে মহিলা কামরা গুলির জন্য মহিলা আরপিএফ নিযুক্ত করা হবে।

পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার সঙ্গে যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্যের মত বিষয় গুলিতে জোর দেওয়া হবে।

যে স্টেশন গুলি কোন ধর্মস্থানের সঙ্গে যুক্ত এবং যে স্টেশনগুলি মোটা ১০ লক্ষ মানুষের কোন জনপদ সংলগ্ন সেই রকম ১০৪টি স্টেশন চিহ্নিত করে তাদের পরিস্কার

পরিচ্ছন্নতার উপর জোর দিতে হবে।

ট্রেনের মধ্যে হাউস্কিপিং সুবিধা আনা হবে।

জামাকাপড় কাচার যান্ত্রিক সুবিধা আনা হবে।

বিভিন্ন স্টেশনে ট্রেনের সময়সূচী নির্দেশক ইলেকট্রনিক বোর্ড চালু করা হবে।

বাছাই করা কিছু ট্রেনে বিনামূল্যে ওয়াইফাই পরিষেবা চালু করা হবে।

বাছাই করা ৯০০টির সঙ্ঘে আরও ৬০টি স্টেশ্নকে আপগ্রেড করা হবে।

রেলওয়ে স্টেশন গুলিতে ফার্স্ট এইড পরিষেবা চালু করা হবে।

রাজধানী ও সাহ্রাব্দি এক্সপ্রেসে বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীদের জন্য অনুভূতি কোচ চালু করা হবে।

স্টেশনে বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীদের জন্য লিফট ও এলিভেটর চালু করা হবে। 

স্টেশন গুলিকে হুইল চেয়ার ব্যবহারের উপযুক্ত করে তুলতে হবে। বাড়াতে হবে হুইল চেয়ারের সংখ্যাও।

তৎকাল সহ আনুষঙ্গিক কয়েকটি পরিষেবায় চার্জ বাড়ছে

৫-৬ শতাংশ বাড়বে অতিরিক্ত আয়ের জন্য

ক্রমাগত জ্বালানীর মূল্যবৃদ্ধি রেল পরিষেবার খরচ বৃদ্ধি করে। ফলে জ্বালানির খরচ বৃদ্ধির সঙ্গে রেলের খরচে সামঞ্জস্য রাখতে নতুন প্রযুক্তি আমদানি করা হবে

মূল ভাড়ার মধ্যে জ্বালানিকে পৃথক অংশ হিসেবে রাখা হবে

জ্বালানি খরচ বাড়ার ফলে রেলের খরচ ৫ হাজার কোটি টাকা বাড়বে

৫ শতাংশের কম হারে বাড়বে ফ্রেট

ফুয়েল অ্যাডজাসমেন্ট কম্পোনেন্ট (ফ্যাক)-কে শক্তিশালী করা হবে

এপ্রিলের ১ থেকে ফ্রেট ট্র্যাফিকে ফ্যাক চালু হবে।

যাত্রী ভাড়া না বাড়ানোয় রেলের উপর ৮৫০ কোটি টাকার প্রভাব পড়বে

পরিকাঠামো উন্নয়ন

১২ হাজার কিলোমিটার বৈদ্যুতিকরণ করা হবে

কলকাতায় একাধিক মেট্রো রেলের কাজ সম্পন্ন করা হবে

কলকাতায় ইস্ট ওয়েস্ট মেট্রো প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে

মুম্বইতে প্রথম শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত মেমু (MEMU) চালু হবে

মুম্বইয়ে ৭২টি এবং কলকাতায় ১৮টি নতুন পরিষেবা চালু হবে

কলকাতায় ৮০টি রেলের রেক ৯ থেকে বাড়িয়ে ১২টি করা হবে

৫০০ কিমি নতুন রেলপথ তৈরি করা লক্ষ্য

২০১৩-১৪-এ রেলের নতুন প্রকল্প

নতুন লাইন

ভুপদেওপুর-রায়গড় (পিপিপি)

গেভরা রোড- পেনড্রা রোড (পিপিপি)

জয়সলমির- সানু

করাইকল-পেরালাম

রেওয়ারি-রোহটক (মাকরাউলি পর্যন্ত নতুন লাইন)

সুলতানপুর-কাদিপুর

থানজাভুর- পাট্টূকোট্টাই

মাভলি-বারি সাদরি সেকশনে গেজ পরিবর্তন

ডাবলিং

আলোয়ার-বান্দিকুই

চেন্নাই সেকশন-বেসিন ব্রিজ জাংশন (পঞ্চম এবং ষষ্ঠ লাইন)

দানিয়া-রাঁচি রোড

দাপ্পর-চণ্ডীগড়

গারওয়া রোড-রামনা

হাজিপুর-রামদয়ালু

জরাংডিহি-দানেয়া

পালানপুর-সমখিয়ালি

রায় বরেলি-আমেঠি

ভাতভা-আমেদাবাদ

বৈদ্যুতিকরণ

দিল্লি সরাই রোহিলা-রেওয়াড়ি-পালানপুর-আমেদাবাদ

কলোল-গান্ধীনগর-খোদিয়ার এবং আলোয়ার- বান্দিকুই জয়পুর-ফুলেরা

জখল-হিসার

জখল-ধুরি-লুধিয়ানা

রাজপুর-ধুরি-লুধিয়ানা

রাজপুর-ধুরি-লেহরা মোহাভাট

সিঙ্গাপুর রোড-দমনজোরি


পরিচ্ছন্ন রেল পরিষেবা

যাত্রী পরিষেবা উন্নয়নে দায়বদ্ধ রেল

পরিষেবা ও সুরক্ষার বিনিময় নতুন ট্রেন নয়

১০৪টি স্টেশন নির্দিষ্ট করে পরিচ্ছন্নতার জন্য নির্দিষ্ট করা হবে

আরও বেশি ট্রেনে বায়ো-টয়লেট তৈরি হবে
যাত্রীভাড়া ও ফ্রেট

বাড়ছে না যাত্রী-ভাড়া

তৎকাল সহ আনুষঙ্গিক কয়েকটি পরিষেবায় চার্জ বাড়ছে

৫-৬ শতাংশ বাড়বে অতিরিক্ত আয়ের জন্য

ক্রমাগত জ্বালানীর মূল্যবৃদ্ধি রেল পরিষেবার খরচ বৃদ্ধি করে। ফলে জ্বালানির খরচ বৃদ্ধির সঙ্গে রেলের খরচে সামঞ্জস্য রাখতে নতুন প্রযুক্তি আমদানি করা হবে

মূল ভাড়ার মধ্যে জ্বালানিকে পৃথক অংশ হিসেবে রাখা হবে

জ্বালানি খরচ বাড়ার ফলে রেলের খরচ ৫ হাজার কোটি টাকা বাড়বে

৫ শতাংশের কম হারে বাড়বে ফ্রেট

ফুয়েল অ্যাডজাসমেন্ট কম্পোনেন্ট (ফ্যাক)-কে শক্তিশালী করা হবে

এপ্রিলের ১ থেকে ফ্রেট ট্র্যাফিকে ফ্যাক চালু হবে।

যাত্রী ভাড়া না বাড়ানোয় রেলের উপর ৮৫০ কোটি টাকার প্রভাব পড়বে

পরিকাঠামো উন্নয়ন

১২ হাজার কিলোমিটার বৈদ্যুতিকরণ করা হবে

কলকাতায় একাধিক মেট্রো রেলের কাজ সম্পন্ন করা হবে

কলকাতায় ইস্ট ওয়েস্ট মেট্রো প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে

মুম্বইতে প্রথম শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত মেমু (MEMU) চালু হবে

মুম্বইয়ে ৭২টি এবং কলকাতায় ১৮টি নতুন পরিষেবা চালু হবে

কলকাতায় ৮০টি রেলের রেক ৯ থেকে বাড়িয়ে ১২টি করা হবে

৫০০ কিমি নতুন রেলপথ তৈরি করা লক্ষ্য

২০১৩-১৪-এ রেলের নতুন প্রকল্প

নতুন লাইন

ভুপদেওপুর-রায়গড় (পিপিপি)

গেভরা রোড- পেনড্রা রোড (পিপিপি)

জয়সলমির- সানু

করাইকল-পেরালাম

রেওয়ারি-রোহটক (মাকরাউলি পর্যন্ত নতুন লাইন)

সুলতানপুর-কাদিপুর

থানজাভুর- পাট্টূকোট্টাই

মাভলি-বারি সাদরি সেকশনে গেজ পরিবর্তন

ডাবলিং

আলোয়ার-বান্দিকুই

চেন্নাই সেকশন-বেসিন ব্রিজ জাংশন (পঞ্চম এবং ষষ্ঠ লাইন)

দানিয়া-রাঁচি রোড

দাপ্পর-চণ্ডীগড়

গারওয়া রোড-রামনা

হাজিপুর-রামদয়ালু

জরাংডিহি-দানেয়া

পালানপুর-সমখিয়ালি

রায় বরেলি-আমেঠি

ভাতভা-আমেদাবাদ

বৈদ্যুতিকরণ

দিল্লি সরাই রোহিলা-রেওয়াড়ি-পালানপুর-আমেদাবাদ

কলোল-গান্ধীনগর-খোদিয়ার এবং আলোয়ার- বান্দিকুই জয়পুর-ফুলেরা

জখল-হিসার

জখল-ধুরি-লুধিয়ানা

রাজপুর-ধুরি-লুধিয়ানা

রাজপুর-ধুরি-লেহরা মোহাভাট

সিঙ্গাপুর রোড-দমনজোরি


পরিচ্ছন্ন রেল পরিষেবা

যাত্রী পরিষেবা উন্নয়নে দায়বদ্ধ রেল

পরিষেবা ও সুরক্ষার বিনিময় নতুন ট্রেন নয়

১০৪টি স্টেশন নির্দিষ্ট করে পরিচ্ছন্নতার জন্য নির্দিষ্ট করা হবে

আরও বেশি ট্রেনে বায়ো-টয়লেট তৈরি হবে

৬০টি নতুন আদর্শ স্টেশন গড়ে তোলা হবে

বিজয়ওয়াড়া, নাগপুর, ললিতপুর, বিলাসপুর, জয়পুর এবং আহমেদাবাদে নতুন রেল ইউনিট গঠন করা হবে

৮ থেকে ১০টি লন্ড্রি তৈরি হবে

যাত্রী পরিষেবা

নতুন রেল সার্ভিস ব্যবস্থা

বেলা সাড়ে ১২টা থেকে রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত টিকিট বুকিং

মোবাইল ফোনে ই-টিকিট বুকিং ব্যবস্থা

নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটের মাধ্যমে টিকিট বুকিং

নতুন ব্যবস্থা প্রতি মিনিটে ৭২০০ টিকিট বুক করা যাবে, এবনিন প্রতি মিনিটে ২০০০ টিকিট বুক করা যায়

এক সঙ্গে এক লক্ষ ২০ হাজার ব্যবহারকারী ওয়েবসাইট ব্যবহার করতে পারবে

ওয়েবসাইটে জালিয়াতি রুখতে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে

দশ হাজার ৭৯৭ লেভেল ক্রসিং তুলে দেওয়া হবে

রেলের কিচেনে আইএসও কোয়ালিটি দেখা হবে

রেলে আধারের পরিষেবা চালু হবে

নিউ দিল্লি স্টেশনে এক্সিক্যুটিভ লাউঞ্জ

স্বাধীনতা সংগ্রাম সম্পর্কে যাত্রীদের অবহিত করতে শিক্ষামূলক ট্রেন 'আজাদী এক্সপ্রেস' চালু হবে

ক্যাটারিং

নতুন ফুড টেস্টিং ল্যাবরেটারির সঙ্গে কাজ করবে রেল

প্রত্যেকটি বেস স্টেশনে আইএসও শংসাপত্র অত্যাবশ্যক

খাবার সংক্রান্ত অভিযোগ জানাবার জন্য নতুন টোল ফ্রি নম্বর ১৮০০-১১১-৩১০

বিলাসপুর, নাগপুর, বিশাখাপত্তনম, নাগপুর, পাটনা, আগ্রা, জয়পুর এবং ব্যাঙ্গালোরে এক্সেকিউটিভ লাউঞ্জ চালু করা হবে।

কোল মাইন কানেকটিভিটির জন্য ৪০০০ কোটি টাকা ধার্য করা হবে।

অরুণাচলপ্রদেশ কে রেলওয়ে কানেকটিভিটির মধ্যে আনা হবে

দ্রুতগতিতে মণিপুরে নতুন লাইনের কাজ করা হবে।

নতুন প্রকল্প

বিলাসপুর-মানালি-লেহ

জম্মু-পুঞ্চ-আখুর


পাবলিক-প্রাইভেট প্রজেক্ট

৩০০০ কোটি টাকা পোর্ট কানেকটিভিটির জন্য

ফুট ওভার ব্রিজ

রেলওয়ে রাজ্য গুলির সঙ্গে গাটছাঁড়া বেধে স্টেশ্ন গুলিতে এফওবি তৈরি করবে









First Published: Tuesday, February 26, 2013, 19:53


comments powered by Disqus