টুইটারে কুর্নিশ সাহসী মেয়ের লড়াইকে

Last Updated: Saturday, December 29, 2012 - 13:01

সিঙ্গাপুরে দিল্লির ধর্ষিতা তরুণীর মৃত্যু হয়েছে আজ গভীর রাতে। শোকস্তব্ধ গোটা দেশ। ক্ষোভ, সমবেদনার জোয়ারে উপছে পড়ল টুইটার পেজ-
নরেন্দ্র মোদী:
ভারতের নির্ভীক তরুণীর মৃত্যুর খবরে শোকস্তব্ধ, তাঁর আত্মীয় পরিজনদের গভীর সমবেদনা জানাই।
অমিতাভ বচ্চন: আমানত! এখন শুধুই একটা নাম। ওঁর পার্থিব শরীরের মৃত্যু হয়েছে, কিন্তু চিরকালের জন্য ওঁর আত্মা আমাদের হৃদয়ে রয়ে যাবে।
লতা মঙ্গেশকর: অনেক হয়েছ। নির্ভীক দামিনীর মৃত্যু হতে পারে না। আমাদের দেশের মনুষ্যত্বের মৃত্যু হয়েছে। এখন সরকারকে গভীর নিদ্রা থেকে উঠতে হবে আর পশুতুল্য ধর্ষকদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কঠোর থেকে কঠোরতম শাস্তি দিতে হবে। চোখের জল ফেলা আর কথা বলা এবার বন্ধ হোক।
শাহরুখ খান: আমি লজ্জিত, আমি পুরুষ।
কৃষ্ণা তিরথ: ১৫ দিনের মধ্যে এর সুবিচার হওয়া প্রয়োজন। দোষীদের ফাঁসি হওয়া উচিত।
শাবানা আজমি: সিঙ্গাপুরে ওঁর মৃত্যুর পর আমাদের অক্ষমতা সামনে চলে এল। দেশের জন্য ও একটা জাগরণী আহ্বান দিয়ে গেল। এধরণের ঘটনা রুখতে কঠোর আইন প্রয়োজন। এটা অত্যন্ত লজ্জাজনক ঘটনা।

বিষেন সিং বেদী: ভারতের মননকে উজ্জীবিত করতে দেশের মহান মেয়েটিকে মৃত্যবরণ করতে হল। আশা করি, দেশ এরপর লজ্জায় অবনত হবে।
জাভেদ আখতার: ওঁর মৃত্যুতে সরকার, পুলিস, আমি, আপনি এবং সকলে এক ভয়ানক বিপদের সম্মুখে দাঁড়িয়ে। ঘটনার নিন্দা করছি। অপরাধীদের প্রতি আমাদের ভাবনার পরিবর্তন প্রয়োজন।
শশী থারুর: সিঙ্গাপুরে আমাদের সাহসী মেয়ের অকস্মাত মৃত্যু জীবনের জন্য একটা যুদ্ধের সূচনা করল। একই সঙ্গে ওঁর মৃত্যুর কারণকেও আরও দৃঢ় করল।
শেখর কপুর: বর্ষবরণের রাতে ওই তরুণীর স্মরণে আমি নীরবতা পালন করব, তোমরা কি আমার সঙ্গে থাকবে? নাকি পার্টি করবে?

শোভা দে: ভারতের নির্ভীক কন্যা, দিল্লির রাজনৈতিক নেতারা নোংরা খেলা খেললেন, অত্যন্ত সঙ্কটজনক অবস্থায় ওই তরুণীকে সিঙ্গাপুরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত ছিল লোক দেখানো।
অনুপম খের: এটা দিল্লির মেট্রো রেল, ইন্ডিয়া গেট বন্ধ করে দেওয়ার সময় নয়, এটা ক্ষমা চাওয়ার সময়।
প্রীতিশ নন্দী: আমার হৃদয় থমকে গিয়েছে, ক্ষোভের আগুন জ্বলছে, গোটা বিষয়টি অত্যন্ত লজ্জার।
ওমর আবদুল্লা: শান্তিতে থাকো সাহসী মেয়ে।
মনোজ বাজপেয়ী: ও শান্তিতে থাক। গোটা দেশের জন্য অত্যন্ত দুঃখজনক মুহূর্ত।

সোনি রাজদান: এই তরুণীর মৃত্যু যেন বিফলে না যায়, পরিবর্তনের জন্য ভারত সরকারের কিছু করা উচিত।
শ্রেয়া ঘোষাল: এই প্রথম এধরণের নৃশংস ধর্ষণের ঘটনা সামনে এসেছে, যদিও এখনও অসংখ্য বৈবাহিক ধর্ষণের ঘটনা নথিভূক্ত হয় না।
দিয়া মির্জা: আমারই একটা অংশের মৃত্যু হল বলে মনে হচ্ছে।
রিতেশ দেশমুখ: নির্ভীক যোদ্ধা ছিল, গোটা ঘটনাটি খুবই দুঃখের, আমাদের ঘুরে দাঁড়াবার সময় এসেছে।
নেহা ধুপিয়া: এরকম একটা দু:জনক ঘটনা দিয়ে বছরটা শেষ হল।



First Published: Saturday, December 29, 2012 - 17:28


comments powered by Disqus