সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় গ্রেফতার এক সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় গ্রেফতার এক

SMS-এ সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় গ্রেফতার এক। আজ সন্ধেয় ঢাকুরিয়ার শরত্‍ ঘোষ গার্ডেন রোড এলাকা থেকে পেশায় ওয়েব ডিজাইনার দীপাঞ্জন মিত্রকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। বাবা অশোক মিত্রের সূত্রে সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগ দীপাঞ্জনের। অবসর সময়ে  ফ্রিল্যান্স ফটোগ্রাফিও করে সে। ২০১৩-য় সাংসদের সঙ্গে দেখা করে চাকরি চেয়েছিলেন দীপাঞ্জন। পর্যটন দফতরে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু, চাকরি হয়নি। সেই হতাশা থেকে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে খুনের হুমকি দেয় বলে পুলিসি জেরায় দাবি করে দীপাঞ্জন। তার বিরুদ্ধে হুমকি ও অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হয়েছে। দীপাঞ্জনের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে মোবাইল।  নিজের নামে থাকা সিম থেকেই সাংসদকে হুমকি দেয় দীপাঞ্জন।

 রাতে মুকুল রায়ের সঙ্গে কথা মুখ্যমন্ত্রীর, ছিলেন অভিষেক এবং ডেরেক রাতে মুকুল রায়ের সঙ্গে কথা মুখ্যমন্ত্রীর, ছিলেন অভিষেক এবং ডেরেক

বিধানসভা ভোটের আগে মকুল রায়ের সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দূরত্ব কি কমছে? অন্তত তেমনই ইঙ্গিত মিলল বুধবার রাতে। দিল্লিতে সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে নৈশভোজে আমন্ত্রিত ছিলেন মুকুল রায়। তৃণমূল সূত্রের খবর, অভিষেকের প্রতিবেশী হওয়ায় মুখ্যমন্ত্রী নিজেই মুকুল রায়কে আমন্ত্রণ জানানোর কথা বলেন। ডেরেক ও ব্রায়ান তাঁকে নৈশভোজে আসার অনুরোধ জানান। ঠিক রাত সাড়ে দশটা নাগাদ অভিষেকের বাড়িতে পৌছন মুকুল রায়। সেখানে উপস্থিত দলের অন্যান্য নেতা ও সাংসদদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। রাতে সবাই চলে গেলে আলাদা ভাবে মুকুল রায়ের সঙ্গে কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী। তখন সেখানে উপস্থিত ছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং ডেরেক ও ব্রায়ান।