মোর্চার ২৩ নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারির নির্দেশ  মোর্চার ২৩ নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারির নির্দেশ

মদন তামাং হত্যা মামলায় বিমল গুরুংসহ মোর্চার ২৩ জন নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করল নগর দায়রা আদালত। রোশন গিরি, হরকা বাহাদুর ছেত্রী, আশা গুরুংসহ মোর্চার একাধিক শীর্ষনেতার নামে জারি হয়েছে গ্রেফতারি পরোয়ানা। সিবিআইকেই গ্রেফতারি পরোয়না কার্যকর করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির জেরে রীতিমতো অস্বস্তিতে মোর্চা নেতৃত্ব। এবিষয়ে গত সপ্তাহেই কলকাতায় এসে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছিলেন মোর্চা বিধায়ক হরকা বাহাদুর ছেত্রী। তবে মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে জানিয়ে দেন, এই মামলা সিবিআইয়ের হাতে রয়েছে। তাই এবিষয়ে রাজ্যের কিছু করার নেই। এনিয়ে পাহাড়বাসী রাজ্য সরকারকে যেন ভুল না বোঝেন। অন্যদিকে, কেন্দ্রও জানিয়ে দিয়েছে যেহেতু সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সিবিআই তদন্ত, তাই এবিষয়ে তাদেরও কিছু করার নেই। সোমবার আদালতে আগাম জামিনের আবেদন জানাবেন মোর্চা নেতৃত্ব। আগামিকাল চকবাজারে সভার ডাক দিয়েছিল মোর্চা। তবে শেষ পর্যন্ত সেই সভা বাতিল করা হয়েছে। ফলে, লড়াই শুধুই আইনি পথে, নাকি পাহাড়ে আন্দোলনের কর্মসূচিও নেবে মোর্চা, এখন সেদিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল।

উন্নয়ন নিয়ে রাজনীতি বরদাস্ত করা হবে না, দার্জিলিঙে কড়া বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়ন নিয়ে রাজনীতি বরদাস্ত করা হবে না, দার্জিলিঙে কড়া বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর

জিটিএর পাশাপাশি পাহাড়ে উন্নয়নের কাজ করবে রাজ্য সরকারও। আজ দার্জিলিঙে  ম্যালের সভায় মোর্চাকে কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। একইসঙ্গে তাঁর বার্তা, উন্নয়ন নিয়ে রাজনীতি বরদাস্ত করা হবে না। এদিন মুখ্যমন্ত্রীর সভায় হাজির ছিলেন না মোর্চার কোনও নেতা। পাহাড়ের  উন্নয়ন নিয়ে আগামিকালই এক বৈঠক ডেকেছেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই সভায় ডাকা হয়েছে জিটিএকেও।লোকসভা ভোটে দলীয় প্রর্থীর পরাজয়ের পরেও পাহাড়ে মোর্চাকে জমি ছাড়তে নারাজ মুখ্যমন্ত্রী। এদিন ম্যালের সভায় সেই বার্তাই দিলেন তিনি।  তাঁর ঘোষণা, শুধু জিটিএ নয়, পাহাড়ে উন্নয়নের কাজ করবে রাজ্য সরকারও।  

লেপচা ও তামাংদের পর ভোজপুরি বিকাশ পরিষদের সমর্থন পেলেন দার্জিলিংয়ের তৃণমূল প্রার্থী বাইচুং ভুটিয়া

লেপচা ও তামাংদের সমর্থন আগেই পেয়েছেন। এবার হিন্দিভাষী ভোজপুরি বিকাশ পরিষদের সমর্থনও আদায় করে নিলেন দার্জিলিংয়ের তৃণমূল প্রার্থী বাইচুং ভুটিয়া। গতকাল শিলিগুড়িতে বাইচুংকে সমর্থনের কথা জানিয়েছে ভোজপুরি বিকাশ পরিষদ। অন্যদিকে বিজেপির সঙ্গে জোট গড়েই নির্বাচনে লড়ার কথা জানিয়েছে কামতাপুর পিপলস পার্টি। চতুর্মুখী লড়াইয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জের সামনে পড়তে হতে পারে দার্জিলিংয়ের তৃণমূল প্রার্থী বাইচুং ভুটিয়াকে। বিমল গুরুংয়ের সমর্থন না পাওয়ার পর থেকেই পাহাড়ের ছোট, বড় সবকটি দল এবং সংগঠনের সমর্থন আদায়ের ব্যাপারে চেষ্টার কোনও কসুর করছে না দল। লেপচা ও তামাংদের সমর্থন জুটেছিল আগেই। সোমবার রুদ্রনাথ ভট্টাচার্যের উপস্থিতিতে বাইচুংকে সমর্থনের ব্যাপারে সবুজ সঙ্কেত দিলেন ভোজপুরি বিকাশ পরিষদের নেতারা। উন্নয়নের লক্ষ্যেই তাঁরা যে তৃণমূলকে সমর্থন করছেন তা আরও একবার স্পষ্ট করে দিয়েছে ভোজপুর বিকাশ পরিষদ।

গোর্খাল্যান্ডের দাবি ছেড়ে পাহাড়ের বাসিন্দাদের উন্নয়নের বার্তা দিলেন বিমল গুরুং

উন্নয়নই এখন তাঁর একমাত্র লক্ষ্য। পাহাড়ের বাসিন্দাদের কাছে টানতে বার্তা দিলেন গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা প্রধান বিমল গুরুং। জিটিএ-র চিফ এক্সিকিউটিভ পদে ফের শপথ নিয়ে গতকালই দার্জিলিং ফিরেছেন তিনি। গুরুংকে স্বাগত জানাতে বাগডোকরা বিমানবন্দরে হাজির ছিলেন মোর্চার কর্মী-সমর্থকরা। কয়েক মাস আগেও পৃথক গোর্খাল্যান্ডের প্রশ্নে যে দূরত্বটা রাজ্য সরকারের সঙ্গে তৈরি হয়েছিল মোর্চার, সে দূরত্বটা এখন অতীত। জিটিএ-র পদে ফের শপথ নিয়েছেন বিমল গুরুং। দার্জিলিং ফেরার পর তাই মোর্চা সভাপতি এখন মন দিতে চান পাহাড়ের উন্নয়নে। বাগডোগরা বিমানবন্দরে নেমে গুরুংয়ের প্রতিশ্রুতি, পাহাড়ের উন্নয়নে জোর গতিতে কাজ করবে জিটিএ।