উপনির্বাচন ঘিরে শক্তি পরীক্ষায় প্রাক্তন জোটসঙ্গীরা

রাজ্যের তিন বিধানসভা কেন্দ্রে আজ উপ-নির্বাচন। সকাল আটটা থেকে শুরু হয়েছে ভোটগ্রহণ। চলবে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত। মালদার ইংরেজবাজার এবং মুর্শিদাবাদের রেজিনগর, এই দুই কেন্দ্রে ভাগ্য নির্ধারণ হবে কংগ্রেসের দলত্যাগী বিধায়ক, রাজ্যের মন্ত্রী কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরী এবং হুমায়ুন কবীরের।  এই দুটি আসন এবং রাষ্ট্রপতি-পুত্র অভিজিত্ মুখার্জির ছেড়ে যাওয়া বীরভূমের নলহাটি আসনটি কংগ্রেসের দখলে থাকে কিনা, তার দিকেও তাকিয়ে অনেকেই। 

Updated: Feb 23, 2013, 08:52 AM IST

রাজ্যের তিন বিধানসভা কেন্দ্র, ইংরেজবাজার, রেজিনগর, নলহাটিতে  আজ উপ-নির্বাচন। সকাল আটটা থেকে শুরু হয়েছে ভোটগ্রহণ। চলবে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত। মালদার ইংরেজবাজার এবং মুর্শিদাবাদের রেজিনগর, এই দুই কেন্দ্রে ভাগ্য নির্ধারণ হবে কংগ্রেসের দলত্যাগী বিধায়ক, রাজ্যের মন্ত্রী কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরী এবং হুমায়ুন কবীরের।  এই দুটি আসন এবং রাষ্ট্রপতি-পুত্র অভিজিত্ মুখার্জির ছেড়ে যাওয়া বীরভূমের নলহাটি আসনটি কংগ্রেসের দখলে থাকে কিনা, তার দিকেও তাকিয়ে অনেকেই। 
কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ায় এই কেন্দ্রে উপনির্বাচন হচ্ছে। তৃণমূলের প্রার্থী তিনিই। কংগ্রেস প্রার্থী ইংরেজবাজার পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান নরেন্দ্রনাথ তিওয়ারি ও সিপিআইএম প্রার্থী কৌশিক মিশ্র। ইংরেজবাজারে মোট ২৫৩টি বুথে ভোটগ্রহণ হবে। মোট ভোটার, ২ লক্ষ ১৯ হাজার ৭৯৩ জন। সুষ্ঠভাবে ভোটগ্রহণের জন্য ১১ কোম্পানি আধা সামরিক বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।
অধীর চৌধুরীর একসময়ের ঘনিষ্ঠ হুমায়ুন কবীরই এখন তাঁর বিরুদ্ধে। তৃণমূলে যোগ দিয়েই মন্ত্রী। এবারের উপনির্বাচনে হুমায়ুন কবীরই তৃণমূল প্রার্থী। বিপক্ষে কংগ্রেসের রবিউল আলম চৌধুরী ও আরএসপির সিরাজুল ইসলাম মণ্ডল। হুমায়ুনকে হারানোই এখন অধীর চৌধুরীর সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্চ। রেজিনগরে মোট ২৫৪টি বুথে ভোটগ্রহণ হবে। যার মধ্যে ৯৬টি স্পর্শকাতর বুথ। মোট ভোটার, ২ লক্ষ ২ হাজার ৯৭১ জন। ভোটগ্রহণের আগের দিনই এলাকায় ১৩ কোম্পানি আধা সামরিক বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।
নলহাটির প্রাক্তন কংগ্রেস বিধায়ক অভিজিত্‍‍‍ মুখার্জি এখন জঙ্গীপুরের সাংসদ। নলহাটিতে এবারের কংগ্রেস প্রার্থী আবদুর রহমান, তৃণমূলের বিপ্লব ওঝা। বামফ্রন্টের প্রার্থী ফরওয়ার্ড ব্লকের দীপক চ্যাটার্জি। নলহাটিতে মোট ২৪৭টি বুথে ভোটগ্রহণ হবে। মোট ভোটার ১ লক্ষ ৯৫ হাজার ৩২৯ জন। নলহাটিতে মোতায়েন করা হয়েছে ১২ কোম্পানি আধা সামরিক বাহিনী। উপনির্বাচনের ফল ঘোষণা ২৮ ফেব্রুয়ারি।
উপনির্বাচনকে ঘিরে আরও দুটি বিষয় তাত্পর্যপূর্ণ হয়ে উঠেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জমানায় রাজ্যে অপশাসন চলছে। এই অভিযোগকে সামনে রেখে পথে নেমেছেন বাম নেতৃত্ব। ভোট বাক্সে এর কতটা প্রভাব পড়ে, সে দিকেও যেমন নজর রয়েছে, তেমনই বড় হয়ে উঠছে কংগ্রেস-তৃণমূল জোট প্রসঙ্গ। কংগ্রেস নেতৃত্ব বারবারই দাবি করেছে, জোট ছাড়া তৃণমূলের ক্ষমতায় আসা কার্যত অসম্ভব ছিল। অন্যদিকে নিজেদের একক শক্তিশালী দল বলে দাবি করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। ফলে এই উপনির্বাচন দুই দলের কাছেই শক্তি-পরীক্ষা। রাজনৈতিক মহলের মতে, এই ভোটের ফলাফল নতুন কোনও সমীকরণের জন্ম দেবে কিনা, তারও ইঙ্গিত মিলতে পারে এই উপনির্বাচনে।
রাজ্যে তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে নিরাপত্তার জন্য জঙ্গলমহল থেকে তুলে নেওয়া হল কুড়ি কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। ওই তিন  কেন্দ্রের উপনির্বাচনে তিরিশ কোম্পানি আধা সামরিক বাহিনী ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। কেন্দ্রের পরামর্শ ছিল জঙ্গলমহল থেকে বাহিনী তুলে নিয়ে উপনির্বাচনে কাজে লাগাক  রাজ্য সরকার।
কিন্তু জঙ্গলমহল থেকে  বাহিনী তুলে নেওয়া সম্ভব নয় বলে কেন্দ্রকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছিলেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব। চিঠিতে তিনি জানিয়েছিলেন,  জঙ্গলমহলের যা পরিস্থিতি, তাতে সেখান থেকে বাহিনী তুলে নেওয়া সম্ভব নয়। কিন্তু নির্বাচন কমিশন নিরাপত্তার জন্য বাড়তি বাহিনীর দাবিতে অনড় থাকে। শেষ পর্যন্ত রাজ্যে উপনির্বাচনের জন্য জঙ্গলমহল থেকে কুড়ি কোম্পানি আধাসেনা তুলে নেওয়ার অনুমতি দেয় রাজ্য সরকার।