বেঙ্গল লিডস: কিন্তু কোন দিকে?

শুরু হয়ে গেল বেঙ্গল লিডস।  শিল্প সম্মেলনে প্রভাব ফেলল রাজনীতিও। মুখ্যমন্ত্রী তাঁর বক্তৃতায় তোপ দাগলেন বিরোধী ও কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে। সম্মেলনে শিল্পপতিদের উপস্থিতিতে সন্তুষ্ট মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সম্মেলনে যোগ দেওয়ার জন্য শিল্পপতিদের ধন্যবাদও জানিয়েছেন তিনি। শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের দাবি, শিল্প মহলে ভালই সাড়া জাগিয়েছে বেঙ্গল লিডস।

Updated: Jan 15, 2013, 06:32 PM IST

শুরু হয়ে গেল বেঙ্গল লিডস।  শিল্প সম্মেলনে প্রভাব ফেলল রাজনীতিও। মুখ্যমন্ত্রী তাঁর বক্তৃতায় তোপ দাগলেন বিরোধী ও কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে। সম্মেলনে  শিল্পপতিদের উপস্থিতিতে সন্তুষ্ট মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সম্মেলনে যোগ দেওয়ার জন্য শিল্পপতিদের ধন্যবাদও জানিয়েছেন তিনি। শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের দাবি, শিল্প মহলে ভালই সাড়া জাগিয়েছে বেঙ্গল লিডস।
নতুন মোড়কে পুরনো প্রকল্প। বেঙ্গল লিডসের শুরুতে যেসব প্রকল্পের কথা ঘোষণা করলেন শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, তার নির্যাস এটাই। দুর্গাপুরে বিমানবন্দর ও শিল্পনগরী, কল্যাণীতে ট্রিপল আইটি সংস্থা, কিংবা হলদিয়াকে আন্তর্জাতিক মানের শিল্পনগরী হিসেবে গড়ে তোলা, এসব প্রকল্পই বাম আমলে ঘোষিত।  আজ সেগুলিকেই রাজ্য সরকারের প্রকল্প বলে ঘোষণা করলেন শিল্পমন্ত্রী।
রাজ্য সরকারের উদ্যোগে হলদিয়ায় বেঙ্গল লিডস ভালই সাড়া জাগিয়েছে শিল্প মহলে। দাবি করলেন শিল্পমন্ত্রী। ইতিমধ্যেই হাজির হয়েছেন ছোট,বড় ও মাঝারি শিল্পের প্রতিনিধিরা। বিনিয়োগের লক্ষ্যে এসেছেন বিদেশি সংস্থার কর্তারাও। কনসুলেটগুলির প্রতিনিধিদের উপস্থিতিও চোখে পড়ার মত। শিল্প সম্মেলন শুরুর ঠিক আগেই একথা জানিয়েছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়।
বড় শিল্পপতিদের অনুপস্থিতিতে শুরুটেই কিছুটা ম্লান রাজ্যের শীর্ষ শিল্প সম্মেলন বেঙ্গল লিডস। তবে এই অভিযোগ মানতে নারাজ শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। সম্মেলনের শুরুর আগে তাঁর আশ্বাস, রাজ্যে বড় বিনিয়োগ আসবে রাশিয়া, জার্মানি ও সিঙ্গাপুর থেকে। তাঁর দাবি, বেঙ্গল লিডসের হাত ধরে বিনিয়োগ আসার সম্ভাবনা রয়েছে খনি, লৌহ-ইস্পাত এবং জাহাজ নির্মাণ ক্ষেত্রে। বেঙ্গল লিডস সম্মেলনে জাতীয়স্তরের পাঁচশোজন শিল্পপতি ও শিল্পসংস্থার কর্তাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তার মধ্যে মাত্র পয়ষট্টিজন বেঙ্গল লিডসে উপস্থিত থাকতে পারেন। এদের অধিকাংশই রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার প্রতিনিধি। বেসরকারি সংস্থার প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণের সংখ্যা খুবই কম। তবে শিল্প সম্মেলনের সামনে এই মুহূর্তে সবচেয়ে বড় প্রশ্ন দুটি। রাজ্য সরকারের জমি নীতি এবং বেড়ে চলা রাজনৈতিক হিংসার জেরে রাজ্যের সামগ্রিক ভাবমূর্তি। সম্মেলন শুরুর আগে শিল্পমন্ত্রীর বক্তব্য, রাজ্যের স্পষ্ট জমি নীতি রয়েছে। বিরোধীরা অহেতুক জমিকে ইস্যু করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।