এসএফআইয়ের আইন অমান্যে জখম ছাত্র

এসএফআইয়ের আইন অমান্যে পুলিসের মারে নিহত ছাত্র

Tag:  SFI Rally
এসএফআইয়ের আইন অমান্যে পুলিসের মারে নিহত ছাত্ররাজনৈতিক আইন অমান্য করতে গিয়ে পুলিসের মারে মারা গেলেন ২২ বছরের এক তরুণ। আইন আইএসএফআইয়ের রাজ্য কমিটির সদস্য সুদীপ্ত গুপ্ত আজ বেলায় আইন অমান্য কর্মসূচীতে অংশ নেন। গ্রেফতারের পর তাঁদের আলিপুর সেন্ট্রাল জেলে নিয়ে যাওয়া হলে গাড়ি থেকে নামানোর সময় তাঁকে পুলিস বেধরক মারে বলে অভিযোগ। পুলিসের মারে গুরুতর জখম অবস্থায় তাঁকে এসএসকেএমে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে ঘণ্টা তিনেক লড়াই শেষে হার মানেন সুদীপ্ত।

তবে শুধুমাত্র সুদীপ্তই নয়। বাসের মধ্যে পুলিসের লাঠিচার্জে গুরুতর আহত হয়ে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন মুর্শিদাবাদের খড়গ্রামের এসএফআইয়ের জোনাল সেক্রেটারি জোসেফ হোসেন। বাসে পুলিস লাঠিচার্জ করলে কাচ ভেঙে ঢুকে যায় তাঁর ডান হাতে। হাতের গুরুত্বপূর্ণ শিরা ছিঁড়ে যায় তাঁর। এরপর তাঁকে ভর্তি করা হয় মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। জোসেফের হাত থেকে রক্তক্ষরণ বন্ধ হচ্ছে না। তাঁর ডান হাত বাদ যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

ঘটনার পরে নিহত নেতা সুদীপ্ত গুপ্তর বাবা এবং এসএফআই পুলিসের বিরুদ্ধে দু'টি পৃথক এফআইআর দায়ের করে।

আজকের ঘটনায় কাল শোকমিছিলের ডাক দিয়েছে রাজ্য এসএফআই। আগামিকাল দুপুর ১২টায় এসএফআই রাজ্য দফতরে শায়িত থাকবে সুদীপ্তর দেহ। সেখান থেকে ছাত্রদের মিছিল যাবে দেহ যাবে নেতাজী নগর কলেজে। এর পর সুদীপ্তর বাড়ি হয়ে শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে। সুদীপ্ত গুপ্তর মৃত্যুর পরে এই কর্মসূচীর কথা ঘোষণা করেন এসএফআই রাজ্য সম্পাদক দেবজ্যোতি দাস।

আজ চারটি বাম ছাত্র সংগঠনের আইন অমান্য কর্মসূচি রুখতে ব্যাপক ভাবে লাঠিচার্জ করে পুলিস। গ্রেফতার করা হয়েছিল ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায় সহ বহু ছাত্র নেতা ও কর্মী সমর্থকদের। গ্রেফতারের পর প্রেসিডেন্সি জেলে নিয়ে যাওয়ার সময় বাস থেকে পড়ে গিয়ে গুরুতর জখম হয়েছেন এসএফআইয়ের রাজ্য কমিটির সদস্য সুদীপ্ত গুপ্ত। তাঁকে এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সেখানেও অভিযোগ উঠেছে চিকিত্‍সায় গাফিলতির।

কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে অবিলম্বে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দাবি, ছাত্রছাত্রীদের গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষা সমেত কয়েক দফা দাবিতে আজ কলেজ স্ট্রিট থেকে ধর্মতলা মিছিল ছিল এসএফআইসহ বাম ছাত্র ও যুব সংগঠনগুলির। রানি রাসমণি রোডে মিছিল আটকায় পুলিস। সেখানে রাস্তায় চারটি ব্যারিকেড ছিল। ব্যারিকেড ভেঙে মিছিল এগোনোর চেষ্টা করলে শুরু হয় লাঠিচার্জ। ঘটনাস্থলে উচ্চপদস্থ পুলিসকর্তাদের নেতৃত্বে ছিল বিশাল বাহিনী। এরপরই গ্রেফতার করা হয় বহু ছাত্র নেতা এবং কর্মী সমর্থকদের।






First Published: Tuesday, April 02, 2013, 20:45


comments powered by Disqus