হায়দরাবাদ টেস্ট ভারতের দখলে

ধোনি ব্রিগেডের বিস্ফোরণে ছত্রাকার অসি বাহিনী

ধোনি ব্রিগেডের বিস্ফোরণে ছত্রাকার অসি বাহিনীঅস্ট্রেলিয়া-- ২৩৭/৯ (ডি), ১৩১
ভারত-- ৫০৩

নাশকতা দীর্ণ হায়দরাবাদের মাটিতে জয়ের প্রলেপ লাগিয়ে ধোনি বাহিনী ধূলিসাৎ করল অসি গরিমাকে। চেন্নাই টেস্টের জয়ের উড়ানে আরও দ্রুত গতি সঞ্চারণ করে অন্ধ্রের রাজধানীতে বর্ডার-গাভাসকর ট্রফির দ্বিতীয় টেস্ট একদিন বাকি থাকতেই এক ইনিংস ও ১৩৫ রানে জিতে নিল টিম ইন্ডিয়া। দ্বিতীয় ইনিংসে ক্লার্ক এন্ড কোম্পানি গুটিয়ে গেল মাত্র ১৩১ রানে। চিপকে একটুর জন্য হাতছড়া হওয়া ইনিংসে জয় সুদে আসলে নিজামের দেশে উসুল করে নিলেন পূজারা, অশ্বিনরা। প্রত্যাশামতই ম্যাচের সেরা চেতেশ্বর পূজারা। ম্যান অফ দ্যা ম্যাচের ট্রফি হাতে সদ্যবিবাহিত পূজারা বললেন ''আমার বউ এই ম্যাচে আমার পারফরমেন্স নিয়ে খুবই চিন্তায় ছিল।''

এর সঙ্গেই ক্যাপ্টেন কুলের মুকুটে যোগ হল নতুন পালক। সব সমালোচনা হেলিকপ্টার শটে বাউন্ডারির বাইরে পাঠিয়ে জয়ের নিরিখে ধোনিই এখন ভারতের সর্বকালের সফলতম অধিনায়ক। তবে পরাজিত হলেও অসিরা কিন্তু নতুন রেকর্ড কায়েম করলেন। প্রথম ইনিংস ডিক্লেয়ার করার পর প্রথম দল হিসাবে ইনিংসে হারার নয়া রেকর্ড এখন ওয়াটসনদের পকেটে।  

প্রথম টেস্টের মতই এই টেস্টেও ভারতীয় ক্রিকেটের নতুন প্রজন্মের আধিপত্যের কাছে নতজানু হল ব্যাগি গ্রিন টুপির মালিকদের যত্নে লালিত ক্রিকেটিয় গৌরব। টেস্টের প্রথম দিনেই অস্ট্রেলিয়ানদের ব্যাটিং মেরুদন্ড ভেঙে দিয়েছিলেন ভুবনেশ্বর কুমার। তাঁকে যোগ্য সঙ্গত করেছিলেন জাদেজা, ভাজ্জিরা। প্রথম দিনটা যদি টিম  ইন্ডিয়ার বোলারদের হয় দ্বিতীয় দিন ও তৃতীয় দিন তাহলে অবশ্যই পূজারা আর মূরলী বিজয়ের নামে উৎসর্গীকৃত।

দ্বিতীয় উইকেটে এই দুই তরুণ তূর্কীর অবিস্মরণীয় ব্যাটিং বিক্রমে লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছিল প্যাটিনসন, ম্যাক্সওয়েলদের যাবতীয় বোলিং কারিকুরি। পূজারার দ্বিশতরানের মধ্যেই ভারতের জয়ের ঠিকানা লুকিয়ে ছিল। আজ সেই ঠিকানা খুঁজে নিতে একটুও ভুল করলেন না ভারতের নয়া প্রজন্মের বোলিং ব্রিগেডের সদস্যরা। হেলায় দখল করলেন বিপক্ষের দশটি উইকেট।

এবং অশ্বিন। চেন্নাই টেস্টে ক্লার্কদের নাস্তানাবুদ করার পর হায়দরাবাদে প্রথম ইনিংসে কিছুটা নিষ্প্রভ ছিলেন তিনি। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে আবার তিনি মারকাটারি ফর্মে ফিরে এলেন। ফলাফল? অস্ট্রেলিয় ব্যাটসম্যানরা নিয়ম মেনে ক্রিজে এলেন এবং বেশি সময় ব্যয় না করে দ্রুত প্যাভিলিয়নে ফিরেও গেলেন। এর মধ্যে পাঁচজনকে ড্রেসিংরুমের রাস্তা চেনাল অশ্বিনের পাঁচটি দুরন্ত ডেলিভারি। লক্ষ্মণ-ভাজ্জির পর ভারত বোধহয় নতুন অসি জুজু নখুঁজে পেল। 

অস্ট্রেলিয় ক্রিকেটের স্বর্ণ যুগ বেশ কিছু দিন ধরেই অস্তামিত। অসি সংবাদমাধ্যম থেকে শুরু করে প্রাক্তনীদের কলম আর টুইটের খোঁচায় চেন্নাই টেস্টের পর থেকে বিপর্যস্ত ক্লার্করা। আজকে পুরস্কার মঞ্চে ''ভারতীয়রা জয়ের যোগ্য'' বলে স্বীকার করে নিয়ে ক্লার্ক জানিয়েছেন ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও তাঁরা ভাল খেলতে পারেননি। যতই 'প্রতিভা আছে কিন্তু স্ফূরণ নেই' বলে ক্লার্ক দাবি করুন না কেন, তিনি বিলক্ষণ জানেন তাঁর দল যদি পরের টেস্টেও সরকারি দফতরের পাতি কেরানির মত পারফরমন্স করা বন্ধ না করে, তাহলে তাঁদের ভবিষ্যতের দিন গুলো শুধু অন্ধকার নয় ভয়ঙ্করও। কারণ আইপিএলে ধুঁয়াধার ব্যাটিং পকেট গরম করলেও অস্ট্রেলিয় ক্রিকেট বোর্ডের মন গলানোর পক্ষে একেবারেই যথেষ্ট না।  
  










First Published: Tuesday, March 05, 2013, 15:47


comments powered by Disqus