হেরে যাওয়ার পরেও বাম-কংগ্রেস জোট কি থাকছে?

হেরে যাওয়ার পরেও বাম-কংগ্রেস জোট কি থাকছে?

বিধানসভাতেও জোটবদ্ধ লড়াই জারি থাকবে। ঐক্যবদ্ধভাবে সরকারের বিরোধিতাই লক্ষ্য বাম-কংগ্রেসের। জানালেন আব্দুল মান্নান, সুজন চক্রবর্তীরা।

আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াতে হলদিয়ায় ছুটলেন জোট নেতারা আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াতে হলদিয়ায় ছুটলেন জোট নেতারা

আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াতে হলদিয়ায় ছুটলেন জোট নেতারা। অধীর চৌধুরী, রবীন দেব, মনোজ চক্রবর্তী সহ বাম এবং কংগ্রেস নেতারা একসঙ্গে সভা করলেন ।  গেলেন আক্রান্ত বিধায়কের বাড়িতে। সভা শুরুর আগে প্রশাসন মাইক খুলে নিলেও সভা হল হাত মাইকেই।

বেআইনি মদ বিক্রির প্রতিবাদ করায় জখম ৫ বেআইনি মদ বিক্রির প্রতিবাদ করায় জখম ৫

বেআইনি মদ বিক্রির প্রতিবাদ করায় হামলা। এলোপাথাড়ি দা'এর আঘাতে জখম হলেন ৫ জন। উত্তপ্ত ক্যানিং থানার নিকারীঘাটা বাজার এলাকা। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, এলাকায় বেআইনি মদের ব্যবসা চালান যুগল নস্কর। কংগ্রেস কর্মী হিসেবে পরিচিত যুগল। গতরাতে গ্রামের মহিলারা এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ শুরু করেন। তাঁদের পাশে দাঁড়ান স্থানীয় তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য বিপ্লব হালদারও।

আমন্ত্রণ পত্র পেলেও শপথগ্রহণে থাকছে না কংগ্রেসের কোনও কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব আমন্ত্রণ পত্র পেলেও শপথগ্রহণে থাকছে না কংগ্রেসের কোনও কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব

আমন্ত্রণ পত্র পেলেও আজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শপথগ্রহণে থাকছে না কংগ্রেসের কোনও কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। কংগ্রেস পরিষদীয় দলের বৈঠক উপলক্ষে আজ শহরে আসছেন AICC-র দুই প্রতিনিধি সিপি যোশি এবং অম্বিকা সোনি। ধারনা হয়েছিল যে শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার পরই তাঁরা রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন। তবে রাতে প্রদেশ নেতৃত্বে স্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দিয়েছেন যে রাজ্য নেতৃত্বের পাশাপাশি AICC-র নেতারাও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শপথগ্রহণে থাকছেন না। ফল প্রকাশের পর থেকে রাজ্যজুড়ে আক্রান্ত বিরোধী দলের নেতা কর্মীরা। তার প্রতিবাদেই  শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান বয়কটের সিদ্ধান্ত বিরোধীদের।

২৭ মে ওয়াই চ্যানেলে বিক্ষোভ সমাবেশের অনুমতি পেল না কংগ্রেস ২৭ মে ওয়াই চ্যানেলে বিক্ষোভ সমাবেশের অনুমতি পেল না কংগ্রেস

ওয়াই চ্যানেলে বিক্ষোভ সমাবেশ করার অনুমতি পেল না কংগ্রেস। নতুন সরকাররে শপথ গ্রহণের দিন বিক্ষোভ কর্মসূচি নিয়েছিলেন অধীর চৌধুরীরা। কিন্তু পুলিস সেই সভার অনুমোতি দিল না। পুলিসের তরফে জানানো হয়েছে, নিরাপত্তার কারণেই  সভার অনুমতি দেওয়া যাবে না।

এনডিএ-র বর্ষপূর্তিতে যোগ দেওয়া নিয়ে 'বিগ বি'-কে আক্রমণ কংগ্রেসের এনডিএ-র বর্ষপূর্তিতে যোগ দেওয়া নিয়ে 'বিগ বি'-কে আক্রমণ কংগ্রেসের

অনুষ্ঠানে তাঁর দায়িত্ব নেওয়া নিয়ে তাদের কোনও আপত্তি নেই। তবে, এর ফলে তদন্তকারী সংস্থায় কী বার্তা যাবে তা নিয়ে আমরা চিন্তিত। এনডিএ সরকারের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ২৭ মে দিল্লির ইন্ডিয়া গেটে-র প্রধান অনুষ্ঠানটির দায়িত্বে রয়েছেন বলিউড তারকা অমিতাভ বচ্চন। আর এখানেই বেঁধেছে গোল। অনুষ্ঠানে তাঁর উপস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কংগ্রেস।

মমতার শপথ বয়কট করে ২৭মে ওয়াই চ্যানেলে বিক্ষোভ দেখাবে কংগ্রেস মমতার শপথ বয়কট করে ২৭মে ওয়াই চ্যানেলে বিক্ষোভ দেখাবে কংগ্রেস

ওয়াই চ্যানেলে বামেদের অবস্থান বিক্ষোভে যোগ দেবে কংগ্রেস।  থাকবেন প্রদেশ  কংগ্রেস সভাপতি নিজে। ২৭ মে নতুন সরকারের শপথের দিন ওয়াই চ্যানেলে বিক্ষোভ দেখাবে কংগ্রেস। সেদিন বাম নেতাদের পাশে থাকার আহ্বান জানিয়েছে কংগ্রেস।

জেলায় জেলায় অশান্তির প্রতিবাদে ২৫ ও ২৬ তারিখ ওয়াই চ্যানেলে অবস্থান বিক্ষোভ বামেদের জেলায় জেলায় অশান্তির প্রতিবাদে ২৫ ও ২৬ তারিখ ওয়াই চ্যানেলে অবস্থান বিক্ষোভ বামেদের

ভোটের ফল বেরোনোর পর থেকে লাগাতার অশান্তি। প্রতিবাদে ২৫ ও ২৬ তারিখ ওয়াই চ্যানেলে অবস্থান বিক্ষোভ দেখাবে বামেরা। যদিও, কর্মসূচি ঘিরে বাম শরিকদের অন্দরেই দানা বেঁধেছে অসন্তোষ। নতুন সরকারের শপথের আগে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে সায় নেই RSP-র।

২৭ তারিখ মুখ্যমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান ভেস্তে দেওয়ার হুমকি দিলীপ ঘোষের ২৭ তারিখ মুখ্যমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান ভেস্তে দেওয়ার হুমকি দিলীপ ঘোষের

ভোটের ফলে উজ্জীবিত বিজেপি নেমে পড়ল রাস্তায়। মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি যাওয়ার পরিকল্পনা পুলিস ভেস্তে দিলেও সুর চড়ালেন দিলীপ ঘোষ। শাসকদলের সন্ত্রাস বন্ধ না হলে ২৭ তারিখ মুখ্যমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান ভেস্তে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন তিনি। ২০১৯-র দিকে তাকিয়ে বিরোধী ভোটে ভাগ বসাতে এখন থেকেই রাজ্য বিজেপি রাস্তায় থাকার পরিকল্পনা নিয়েছে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

জানেন কী, এই মুহূর্তে দেশের কোন কোন রাজ্য কংগ্রেসের দখলে? জানেন কী, এই মুহূর্তে দেশের কোন কোন রাজ্য কংগ্রেসের দখলে?

এ কোন পথে চলেছে কংগ্রেস? স্বাধীনতার পর এই প্রথম দেশে কংগ্রেসের হাল এতটা খারাপ। অন্তত রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা তাই বলেছেন। ভারেতর ২৯টি রাজ্যের মধ্যে মাত্র ৫টি রাজ্যে এককভাবে কংগ্রেস সরকার রয়েছে। আর বাকি এক রাজ্য ও একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে কংগ্রেস নেতৃত্বধীন জোট সরকার রাজত্ব করছে।

জোটের ভরাডুবির সবথেকে বড় তিন কারণ জোটের ভরাডুবির সবথেকে বড় তিন কারণ

গতকাল পর্যন্তও এ রাজ্যের অনেক মানুষের 'মন বলছিল', ক্ষমতায় এবার আসতে পারে জোট সরকার।কিন্তু রাত পেরিয়ে সকাল হতেই সব কল্পনা আছড়ে পড়ল বাস্তবের মাটিতে। একা তৃণমূলের সামনে দাঁড়াতেই পারল না দুই মহারথীর জোট। একা তৃণমূল ২০০-র বেশি আসন ছিনিয়ে নিয়ে গেল। সেখানে বামফ্রন্ট আর কংগ্রেস দুই দল এক হয়ে নিজেদের অস্তিত্ব তো টিকিয়ে রাখলেন কিন্তু তা দিয়ে আর যাই হোক সরকার চালানোর জায়গায় আসা যায় না। কিন্তু কেন এমন ভরাডুবি হল জোটের? কারণ, হতেই পারে অনেক কিছু। তবু, ফল ঘোষণার পরপরই যে তিনটে প্রধান কারণ বলে মনে হচ্ছে, সেগুলোই তুলে ধরা হল নিচে।

ব্যর্থতায় অজুহাত না দিয়ে বামেদের দিকে আঙুল তুললেন অধীর! ব্যর্থতায় অজুহাত না দিয়ে বামেদের দিকে আঙুল তুললেন অধীর!

দুপুর ১ টা বাজতেই ভোটের ফল বুঝতে পেরে সাংবাদিক সম্মেলন করে ফেললেন কংগ্রেসের প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরি। ২০১৬-র বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের দিন প্রথম সাংবাদিক সম্মেলনে অধীর চৌধুরি যা বললেন -

বঙ্গে মমতাই, কেরালা-তামিলনাড়ু-অসমে পরিবর্তনের পক্ষে রায়, বলছে এক্সিট পোল বঙ্গে মমতাই, কেরালা-তামিলনাড়ু-অসমে পরিবর্তনের পক্ষে রায়, বলছে এক্সিট পোল

রাজ্যে ৬ দফায় ভোট উতসব শেষ হয়েছে। আনন্দ, হিংসা রাজনৈতিক কাদা ছোড়াছুড়ি সবই শেষ। এখন বাকি আর দু'দিন। তারপরই জানা যাবে পশ্চিমবঙ্গের মসনদ কার দখলে থাকছে আগামী পাঁচ বছরের জন্য। মানুষের জন্য শুধুই প্রতিশ্রুতি, নাকি প্রতিশ্রুতি পালন। তা এখন শুধুই সময়ের অপেক্ষা।

কেউ দিল বেশি, কেউ দিল কম,তবে সব এক্সিট পোলই বলল 'ক্ষমতায় মমতাই' কেউ দিল বেশি, কেউ দিল কম,তবে সব এক্সিট পোলই বলল 'ক্ষমতায় মমতাই'

দেশের ৫টি রাজ্যে নির্বাচন শেষ হতেই সামনে উঠে আসছে একের পর এক এক্সিট পোল। ইন্ডিয়া টুডে, টাইমস নাও-সি ভোটারের এক্সিট পোল যেখানে তৃণমূল কংগ্রেসকে ক্লিন সুইপ দিয়েছে, সেখানেই শাসকদল ও জোটরে মধ্যে জোর টক্কর দেখছে নেউজ নেশন। তাদের এক্সিট পোল অনুসারে যেকেউই এবার গড়তে পারে সরকার। তবে, অবশ্য সামান্য হলেও তৃণমূলকেই এগিয়ে রেখেছে তারাও। এক নজরে দেখে নিন সব এক্সিট পোলের হিসেব ---

চাণক্যর এক্সিট পোলে দেখুন কে কত আসন এবং কত শতাংশ ভোট পেল চাণক্যর এক্সিট পোলে দেখুন কে কত আসন এবং কত শতাংশ ভোট পেল

রাজ্যের ভোটে কে কত আসন পাচ্ছে তার সম্ভাব্য হিসেব দিলো টুডেস চাণক্য। শুধু আসন সংখ্যাই নয়, সঙ্গে কোন দল কত শতাংশ ভোট পেতে পারে, সেই হিসেবও দিয়েছে তারা।  এক নজরে দেখে নিন তাদের এক্সিট পোলের হিসেব।

অসমে বিজেপি ঝড়ে উড়ে যাচ্ছে কংগ্রেস অসমে বিজেপি ঝড়ে উড়ে যাচ্ছে কংগ্রেস

বাংলার ক্ষমতায় কারা আসছে, সেই বিষয়ে তো ইন্ডিয়া টুডের এক্সিট পোলের হিসেব এতক্ষণ পেয়ে গিয়েছেন। সেখানে এবার তৃণমূলকে বিপুল সংখ্যক আসনে জিততে পারে বলা হয়েছে। সংখ্যাটা টিএমসির পক্ষে ২৩৩ থেকে ২৫৩ আসন। বামফ্রন্টকে এবং কংগ্রেস জোটকে দেওয়া হয়েছে ৩৮ থেকে ৫১ টি আসন। বিজেপিকে দেওয়া হয়েছে ১ থেকে ৫ টি আসন এবং অন্যান্যদের দেওয়া হয়েছে ২ থেকে ৫ টি আসন।