পৃথিবীর সবথেকে ভয়ঙ্কর স্কুল যাত্রার ছবি দেখে শিউরে উঠছে গোটা দুনিয়া!

পৃথিবীর সবথেকে ভয়ঙ্কর স্কুল যাত্রার ছবি দেখে শিউরে উঠছে গোটা দুনিয়া!

আপনি স্কুলে যেতেন কীসে করে? হয়তো বাবার সঙ্গে সাইকেলে বা বাইকে। কিংবা মায়ের সঙ্গে রিক্সাতে। অথবা স্কুল বাসে কিংবা স্কুল ভ্যানে। বা আপনার স্কুল দূরে হলে হয়তো ট্রামে বা ট্রেনে চেপে। কিংবা হয়তো হেঁটে হেঁটেই স্কুলে যেতেন আপনি।

স্কুলের মধ্যে বোমা! স্কুলের মধ্যে বোমা!

ফের বোমা উদ্ধার। এবার স্কুলের মধ্যে থেকে। সকালে  উত্তর চব্বিশ পরগনার শ্যামনগরের ঘটনা।

কবে খুলবে স্কুল? কবে শুরু হবে পড়াশোনা? কী করে শেষ হবে সিলেবাস? কবে খুলবে স্কুল? কবে শুরু হবে পড়াশোনা? কী করে শেষ হবে সিলেবাস?

ছুটি পড়েছিল এগারোই এপ্রিল। তারপরে বৃষ্টি নেমেছে, ভোট কেটেছে, গরমও খানিকটা কমেছে। কিন্তু  স্কুল খোলার কোনও নামগন্ধ নেই। দরজায় কড়া নাড়ছে আবার একটা সামার ভ্যাকেশনের ছুটি। সরকারি স্কুলগুলিতে শুধুই ছুটির মেজাজ। শিক্ষামন্ত্রীর ঘোষণায় ছুটির গেরোয় রাজ্যের সরকারি স্কুল।

গ্রিস-ম্যাসিডোনিয়া সীমান্তে স্কুল খুললেন চারজন শরণার্থী! গ্রিস-ম্যাসিডোনিয়া সীমান্তে স্কুল খুললেন চারজন শরণার্থী!

রাজনীতি তাঁদের দেশছাড়া করেছে। শরণার্থী শিবিরই এখন অস্থায়ী ঠিকানা। কোনও মতে খাওয়াটুকু জোটে। তবু ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা পিছিয়ে পড়বে, এ কি চোখে দেখা যায়! গ্রিস-ম্যাসিডোনিয়া সীমান্তে তাই স্কুল খুললেন চারজন শরণার্থী। বিনা পয়সার স্কুলে ছাত্রও অনেক জুটে গিয়েছে।

সবথেকে বেশি ফেসবুক ব্যবহার করে কারা? সবথেকে বেশি ফেসবুক ব্যবহার করে কারা?

সেই ২০০৪ সাল থেকে যাত্রা শুরু ফেসবুকের। দেখতে দেখতে ১২টা বছর কেটে গেল। আজ সবথেকে জনপ্রিয় সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট এই ফেসবুক। সারা বিশ্বে এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। আমরা মনে করি ফেসবুক প্রধানত বেশি জনপ্রিয় টিনএজার বা কমবয়সী ছেলেমেয়েদের কাছে। কিন্তু একটা সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে এই ধারণা ভুল। জানেন কাদের কাছে বেশি জনপ্রিয় ফেসবুক?

সোমবার থেকেই স্কুলগুলিতে গরমের ছুটি দিচ্ছে বিদ্যালয় শিক্ষা দফতর! সোমবার থেকেই স্কুলগুলিতে গরমের ছুটি দিচ্ছে বিদ্যালয় শিক্ষা দফতর!

সবে এপ্রিলের ৯ তারিখ। এখন এপ্রিল বাসের ২১ দিন তো বটেই। সঙ্গে যোগ হবে মে মাস এবং জুন মাসের খানিকটা। কিন্তু এখন থেকেই হু হু করে বাড়ছে গরমের দাপট। তাই সোমবার থেকেই স্কুলগুলিতে গরমের ছুটি দিচ্ছে বিদ্যালয় শিক্ষা দফতর। ভোট প্রক্রিয়া চলাকালীন তৃণমূল ভবন থেকে ঘোষণা পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের। জানালেন, দফতরের প্রধান সচিব বিজ্ঞপ্তি পাঠাবেন জেলায় জেলায়।  ভোটের মুখে দলের অফিস থেকে এমন ঘোষণা কী আদৌ করতে পারেন শিক্ষা মন্ত্রী? উঠছে প্রশ্ন।

স্কুলের খাতায় চাপ চাপ রক্ত! অল্পের জন্য রক্ষা স্কুল ছাত্রীর স্কুলের খাতায় চাপ চাপ রক্ত! অল্পের জন্য রক্ষা স্কুল ছাত্রীর

সময় যতই গড়াচ্ছে, ততই একের পর এক মর্মান্তিক ছবি উঠে আসছে পোস্তার ধ্বংসস্তূপের থেকে। সেতুর ধ্বংসাবশেষের মধ্যেই উদ্ধার হল বই ভর্তি স্কুল ব্যাগ। মহেশ্বরী স্কুলের অঙ্কিতা জৈন বলে এক ছাত্রীর। স্কুলের খাতায় চাপ চাপ রক্ত দেখে চমকে উঠতে হয়। তবে পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অল্পের জন্য বেঁচে গেছে অঙ্কিতা। নিজের বাড়িতেই আছে সে।

স্কুলের দেওয়া ইউনিফর্ম পড়ে না আসায় ছাত্রকে বেধড়ক মার শিক্ষকের স্কুলের দেওয়া ইউনিফর্ম পড়ে না আসায় ছাত্রকে বেধড়ক মার শিক্ষকের

স্কুলের মধ্যেই ছাত্রকে বেধড়ক মার শিক্ষকের। ক্লাস সিক্সের ওই ছাত্রের ছাত্রের অপরাধ, স্কুলের দেওয়া ইউনিফর্ম পড়ে আসেনি সে। অভিযোগ, তারই শাস্তি পেতে হল মার খেয়ে। এর জেরে অজ্ঞানও হয়ে যায় ওই ছাত্র। ক্যানিংয়ের রায়বাঘিনী হাইস্কুলের এই ঘটনায় অসুস্থ ওই ছাত্র এখন হাসপাতালে ভর্তি।  

স্বাস্থ্য দফতরের দেওয়া কৃমিনাশক ওষুধের ঘটনায় ক্ষুব্ধ হাইকোর্ট স্বাস্থ্য দফতরের দেওয়া কৃমিনাশক ওষুধের ঘটনায় ক্ষুব্ধ হাইকোর্ট

কৃমিনাশক ওষুধে বিপত্তির ঘটনায় ক্ষুব্ধ হাইকোর্ট। ১০ দিনের মধ্যে স্বাস্থ্য এবং শিক্ষা দফতরকে রিপোর্ট দেওয়ার নির্দেশ প্রধান বিচারপতির।

স্বাস্থ্য দফতরের দেওয়া কৃমিনাশক ওষুধ খেয়ে রাজ্যে অসুস্থ হাজার খানেক ছাত্রছাত্রী স্বাস্থ্য দফতরের দেওয়া কৃমিনাশক ওষুধ খেয়ে রাজ্যে অসুস্থ হাজার খানেক ছাত্রছাত্রী

স্বাস্থ্য দফতরের দেওয়া কৃমিনাশক ওষুধ খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ল হাজার খানেক ছাত্রছাত্রী। এঘটনা ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তী ও পূর্ব মেদিনীপুরের ময়না ও কোলাঘাটের বেশ কয়েকটি স্কুলে।

রাজ্যের সমস্ত বিদ্যালয়ে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া বাধ্যতামূলক করল রাজ্য সরকার রাজ্যের সমস্ত বিদ্যালয়ে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া বাধ্যতামূলক করল রাজ্য সরকার

রাজ্যের সমস্ত স্কুলে এবার স্কুল শুরুর সময় জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া বাধ্যতামূলক। এমনই নির্দেশ দিল রাজ্য সরকার। রাজ্য সরকারের নির্দেশের ভিত্তিতে ইতিমধ্যেই নির্দেশিকা জারি করেছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ।

বাংলার ঘরে ঘরে শিক্ষার আলো পৌঁছে দিচ্ছে সরকার বাংলার ঘরে ঘরে শিক্ষার আলো পৌঁছে দিচ্ছে সরকার

মাত্র কয়েক বছরেই স্কুল শিক্ষায় ব্যপক উন্নতি ঘটিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। বাচ্চাদের স্কুলমুখী করতে তৈরি হয়েছে অনেক প্রাথমিক ও উচ্চ প্রাথমিক বিদ্যালয়। স্কুল সংখ্যায় বাড়ায় বাচ্চারা আগের অনেক বেশি স্কুলে যেতে আগ্রহী হয়েছে। কারণ দূরত্ব তাদের স্কুল না যাওয়ার পিছনে একটা বড় কারণ হয়ে দাঁয়িয়েছিল। নতুন স্কুল তৈরি ছাড়াও বেশ কিছু আপার প্রাইমারি স্কুলকে মাধ্যমিক স্কুল এবং মিধ্যমিক স্কুলকে উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল করে দেওয়া হয়েছে।

ভদ্রেশ্বরে শিশু শ্লীলতাহানি ভদ্রেশ্বরে শিশু শ্লীলতাহানি

অভিযুক্তকে ধরতে গিয়ে আক্রান্ত হল পুলিস। পুলিসের গাড়িতে এসে পড়ল ক্ষুব্ধ জনতার ঢিল। পরিস্থিতি সামাল দিতে লাঠিচার্জ করল পুলিস।

জানুন ভিডিও গেম খেলার উপকারিতাগুলি জানুন ভিডিও গেম খেলার উপকারিতাগুলি

আপনার ছেলে বা মেয়ে কি ভিডিও গেমসে আসক্ত? আর এটা নিয়েই বাড়িতে যত অশান্তি? তাহলে এবার ভিডিও গেমসের ভাবনাটা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন।

ছাত্রছাত্রীদের বিদ্যালয়মুখী করতে সরকার নিচ্ছে নানান উদ্যোগ ছাত্রছাত্রীদের বিদ্যালয়মুখী করতে সরকার নিচ্ছে নানান উদ্যোগ

ছাত্রছাত্রীদের বিদ্যালয়মুখী করে তুলতে সরকার নিচ্ছে নানান উদ্যোগ। তৈরি করা হচ্ছে নতুন স্কুল। শুধু তৈরি নয়, স্কুলগুলির পরিকাঠামোগত উন্নয়নও করা হচ্ছে। ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনার প্রতি আকৃষ্ট করতে চালু করা হয়েছে বিশেষ প্রকল্প মিড ডে মিল ও সবুজসাথী প্রকল্প।  উন্নত করা হয়েছে মিড-ডে-মিলের খাবারের মান। ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুল যাতায়াতকে সহজ করতে সবুজ সাথী প্রকল্পের আওতায় সরকার পরিচালিত স্কুল গুলিতে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদের দেওয়া হয়েছে সাইকেল। পড়ুয়াদের জন্য সরকার এইসব প্রকল্প চালু করায় স্কুলছুটের সংখ্যা যেমন কমছে তেমনই ছেলেমেয়েদের বিদ্যালয়ে যাওয়ার আগ্রহও বাড়ছে। এমনই দাবি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের।