১১৬ বছরে মারা গেলেন বিশ্বের প্রবীণতম মানুষ

তিনটে শতাব্দী জুড়ে শ্বাস নেওয়ার পর মারা গেলেন বিশ্বের সবচেয়ে বৃদ্ধ মানুষ হিসেবে পরিচিত জাপানের জিরোয়মোন কিমুরা। আজ কিয়েটোর এক হাসপতালে ১১৬ বছরের এই বৃদ্ধ যখন মারা যান, তখন তাঁর চারিপাশে শয়ে শয়ে আত্মীয়র ভিড়। কিমুরা রেখে গেলেন তাঁর সাত সন্তান, চার জন নাতি নাতনি, ২৫ জন পৌ-পৌত্র পৌ-পুত্রী এবং ১৩ জন পৌ পৌ-পৌত্র পৌ-পুত্রীদের।

Updated: Jun 12, 2013, 03:48 PM IST

তিনটে শতাব্দী জুড়ে শ্বাস নেওয়ার পর মারা গেলেন বিশ্বের সবচেয়ে বৃদ্ধ মানুষ হিসেবে পরিচিত জাপানের জিরোয়মোন কিমুরা। আজ কিয়েটোর এক হাসপতালে ১১৬ বছরের এই বৃদ্ধ যখন মারা যান, তখন তাঁর চারিপাশে শয়ে শয়ে আত্মীয়র ভিড়। কিমুরা রেখে গেলেন তাঁর সাত সন্তান, চার জন নাতি নাতনি, ২৫ জন পৌ-পৌত্র পৌ-পুত্রী এবং ১৩ জন পৌ পৌ-পৌত্র পৌ-পুত্রীদের।
শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করার সময় কিমুরা বলেছেন, `তোমরা সবাই ভাল থেকো, এবার আমি চললাম`। কিমুরা ১৮৯৭ সালের ১৯ এপ্রিল জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি স্থানীয় এক ডাকঘর কর্মচারী হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন। এরপর থেকে ৯০ বছর বয়স পর্যন্ত তিনি তার ছেলেকে কৃষিকাজে সহায়তা করেন।
কিমুরার মৃত্যুতে জাপান জুড়ে শোকের আবহ। দেশের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে পর্যন্ত শোকজ্ঞাপন করেছেন। কিমুরা যে শহরে থাকতেন সেই শহরের মেয়রও বিদেশ সফর বাতিল করে দিয়েছেন।
গত বছর ডিসেম্বরে বিশ্বের সবচেয়ে প্রবীণ ব্যক্তি হিসেবে গিনিস বুক ওয়ার্ল্ডে ঠাঁই পেয়েছিলেন কিমুরা। খুব অবাক করার কথা কিমুরা কিন্তু সেভাবে কোনও দিন অসুস্থ হননি।
দুটি বিশ্বযুদ্ধই দেখেছেন তিনি। দেখেছেন পৃথিবীতে উড়োজাহাজ আবিষ্কারের ঘটনা, জাপানে চার-চারজন সম্রাটের শাসনকালসহ অনেক কিছু। গোটা বিশ্বেরও অনেক অনেক পরিবর্তন দেখেছেন। আজ সব অতীত হয়ে গেল। তাই হয়ত ১১৬ বছরের ওই বৃদ্ধতমা মানুষটি শেষ কথাটা বললেন, `তোমরা সবাই ভাল থেকো, এবার আমি চললাম`। কারণ এখন এই নেট স্পিডের জেটগতির যুগে কেউ যে আমাদের বলেই না, ``তোমরা সবাই ভাল থেকো``।