জেলায় জেলায় চলছে রক্তাক্ত মনোনয়নপর্ব

Last Updated: Sunday, June 16, 2013 - 12:14

পঞ্চায়েতে বাহিনী জটের মধ্যেই ফের রক্তাক্ত হল মনোনয়নপর্ব। বীরভূমের মেটেগ্রামে খুন হলেন এক সিপিআইএম নেতা। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন আরও এক সিপিআইএম সমর্থক। ঘটনার প্রতিবাদে আজ বারো ঘণ্টা দুবরাজপুর বন্ধের ডাক দিয়েছে জেলা বামফ্রন্ট। একইসঙ্গে জেলাজুড়ে প্রতিবাদ দিবসেরও ডাক দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে কোচবিহারের দিনহাটায় খট্টিমারিতে মনোনয়ন প্রত্যাহারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে মৃত্যু হয়েছে এক ব্যক্তির। মৃত রতন বর্মন তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থক।
দ্বিতীয় দফার মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষদিনে বীরভূমের দুবরাজপুর লোবা গ্রাম পঞ্চায়েতের মেটেগ্রামে খুন হলেন সিপিআইএম নেতা ভাস্কর মজুমদার। অভিযোগ বেশ কয়েকদিন ধরেই এলাকায় সিপিআইএম প্রার্থীদের মনোনয়ন প্রত্যাহারের জন্য হুমকি দেওয়া হচ্ছিল। মেটে গ্রামের বাসিন্দাদের অভিযোগ, বিকেল চারটে নাগাদ কুড়ি জনের বাইক বাহিনী তৃণমূলের পতাকা লাগিয়ে গ্রামে ঢোকে। তফসিলি পাড়ার লোকজনদের মারধর করে ঘরবাড়ি লুঠ করা হয়। কয়েকটি বাড়িতে আগুন ধরানো হয়। মহিলাদের শ্লীলতাহানির অভিযোগও উঠেছে। আতঙ্কিত সিপিআইএম সমর্থকেরা আশ্রয় নেন ভাস্কর মজুমদারের বাড়িতে। হামলাকারীরা ভাস্কর মজুমদারকে বাড়ি থেকে টেনে এনে গুলি করে খুন করে। গুলিবিদ্ধ হন ইশ্বরদাস নামে আরও এক সিপিআইএম সমর্থক। আগাম খবর থাকা সত্ত্বেও হামলা ঠেকাতে পুলিস কোনও ব্যবস্থাই নেয়নি বলে অভিযোগ সিপিআইএমের। 
 
শুধু বীরভূমই নয়। মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারকে কেন্দ্র করে কোচবিহারের দিনহাটার খট্টিমারি গ্রামে সংঘর্ষে মৃত্যু হয়েছে এক ব্যক্তির। মৃত রতন বর্মন তাঁদের সমর্থক বলে দাবি করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারকে কেন্দ্র করে ফরওয়ার্ড ব্লক এবং সিপিআইএম সমর্থকদের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে তৃণমূল সমর্থকদের। সংঘর্ষে মৃত্যু হয় রতন বর্মনের। আহত হন আরও আট জন।
 
কোচবিহার জেলাজুড়েই মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারে তাদের বাধ্য করা হচ্ছে বলে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছে বাম দলগুলি। আতঙ্কে ঘর ছেড়ে অনেকেই আশ্রয় নিয়েছেন অন্যত্র। যদিও তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। 
 
চাকদায় এক কংগ্রেস সমর্থকের ওপর গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। বন্দুকের বাঁট দিয়ে তাঁর মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়। এই ঘটনার প্রতিবাদে চৌত্রিশ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করেন কংগ্রেস সমর্থকেরা।
 
 হুগলির তারকেশ্বরের মোহনবাটিতে এক সিপিআইএম নেতার বাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয়। অভিযোগ, তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে।
 
দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার ভাঙড়ের জয়নগরে প্রাক্তন বিধায়ক আরাবুল ইসলামের অনুগামীদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে নান্নু হোসেনের অনুগামীদের বিরুদ্ধে। ভাঙড়ের চন্দনেশ্বরের উত্তর মাধবপুরে সিপিআইএম প্রার্থীর স্বামী ইলিয়াস মোল্লার ওপর হামলা চালানো হয়। দেওয়াল লেখার সময় তৃণমূল সমর্থকরা হামলা চালায় বলে অভিযোগ। ব্যাপক বোমাবাজিতে আহত হয়েছেন পাঁচ জন সিপিআইএম সমর্থক। এই ঘটনায় পুলিস চারজন তৃণমূল সমর্থক এবং সিপিআইএম প্রার্থীর স্বামী ইলিয়াস মোল্লা সহ আরও একজনকে গ্রেফতার করেছে। 



First Published: Sunday, June 16, 2013 - 12:29


comments powered by Disqus