সুশান্তের অর্থের উপর পরিবারের নজর, এমন গুজব ছড়ালে আইনি পদক্ষেপ : আইনজীবী

সুশান্তের কোনও বিমা করা নেই। এধরনের খবর সুশান্তের পরিবারের সম্মান নষ্ট করছে।  সাংবাদিক সম্মেলন করলেন সুশান্তের পরিবারের আইনজীবী বিকাশ সিং। 

Edited By: রণিতা গোস্বামী | Updated By: Sep 2, 2020, 10:16 PM IST
সুশান্তের অর্থের উপর পরিবারের নজর, এমন গুজব ছড়ালে আইনি পদক্ষেপ : আইনজীবী

নিজস্ব প্রতিবেদন : সুশান্তের কোনও বিমা করা নেই। সম্প্রতি প্রচার করা হচ্ছে, সুশান্তের অর্থের উপর নজর রেখে তাঁর পরিবার খুনের তত্ত্ব ছড়িয়ে দিচ্ছে। এধরনের খবর সুশান্তের পরিবারের পক্ষে অপমানজনক। সাংবাদিক সম্মেলন করে স্পষ্ট করলেন সুশান্তের পরিবারের আইনজীবী বিকাশ সিং। 

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি বেশকিছু প্রতিবেদনে লেখা হয়, সুশান্তের যাবতীয় আর্থিক সঞ্চয়ের নমিনি ছিলেন দিদি প্রিয়াঙ্কা সিং। এই খবর প্রসঙ্গেই বিকাশ সিং স্পষ্ট করেন, অভিনেতার কোনও বিমা করা নেই। তাই সুশান্তের পরিবারের নজর টাকার দিকে এধরনের প্রচার অসম্মানজনক। বিকাশ সিং আরও বলেন, ''রিয়া চক্রবর্তী সুশান্তের পরিবারের বিরুদ্ধে অন্যায়ভাবে বিভিন্ন অভিযোগ এনেছেন। যে সমস্ত সংবাদমাধ্যম এই ভুল, মিথ্যা খবর সম্প্রচার করেছে, তাঁদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।'' 

আরও পড়ুন-সুশান্তের দেহই নেই, কীভাবে সুশন্তের মৃত্যুর কারণ বলবে AIIMS, প্রশ্ন BJP সাংসদের

আরও পড়ুন-''আমার ভাইকে হারিয়েছি, প্রতিদিন হৃদয় থেকে রক্তক্ষরণ হচ্ছে,'' আবেগঘন সুশান্তের দিদি

 
 
 
 

 
 
 
 
 
 
 
 
 

আরও পড়ুন-রণবীর সিং, রণবীর কাপুররা নিষিদ্ধ মাদকে আসক্ত? রক্ত পরীক্ষার দাবি তুলে বিস্ফোরক কঙ্গনা

এখানেই শেষ নয়, সুশান্তের পরিবারের আইনজীবীর দাবি, সুশান্ত অবসাদে ছিলেন, এমন বিষয় তাঁর পরিবারের জানা ছিল না। সুশান্তের পরিবার শুধু জানত, অভিনেতা কোনও কারণে উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন। আর, সুশান্তের এই মানসিক অবস্থার অবনতি রিয়া আসার পরই হয়েছে। ২০১৯ এর আগে পর্যন্ত সুশান্তের কোনও মানসিক সমস্যাই ছিল না। এমনকি FIR-এও বলা হয়েছে, সুশান্ত রিয়ার আসার পর থেকে বিভিন্ন বিষয়ে চিন্তিত থাকতেন, ভয়ে ভয়ে থাকতেন। মানসিক অবসাদের কথা সেখানেও বলা হয়নি। যে প্রেসক্রিপশন সুশান্তের দিদিকে পাঠানো হয়েছিল, সেখানেও কোনও মানসিক রোগের কথা লেখা নেই। শুধু ওষুধের কথাই লেখা ছিল। ৮ জুন সুশান্ত যখন ওর দিদিকে ফোন করে উদ্বেগের কথা জানান, তখন দিদি নিজে যে ওষুধ খান, সেটাই তাঁকে বলেছিলেন। সুশান্ত যখন বলেন, প্রেসক্রিপশন ছাড়া এই ওষুধ পাওয়া যাবে না। তখন চিকিৎসকের সঙ্গে মৌখিক কথা বলে অভিনেতার দিদি তাঁকে প্রেসক্রিপশন পাঠান। 

সুশান্তের আইনজীবী আরও বলেন, রিয়া যে দাবি করেছেন, সুশান্তের বাইপোলার ডিসঅর্ডারের কথা তাঁর পরিবার জানত, সেটা মিথ্যা। আর কিছু সংবাদমাধ্যম রিয়ার সমর্থনে এই প্রচার করছে। এগুলি শুধুমাত্র অভিযুক্তকে আড়াল করার জন্যই প্রচার বলে অভিযোগ করেন বিকাশ সিং। পাশাপাশি, সুশান্তের পরিবারের অনুমতি ছাড়া, তাঁকে নিয়ে কোনও সিনেমা বা বই, কিছুই প্রকাশ করা উচিত নয় বলে জানিয়ে দেন সুশান্তের বাবার আইনজীবী।