টার্গেট ২২-০, মুর্শিদাবাদের Suvendu ঘনিষ্ঠ নেতার সঙ্গে ভার্চুয়ালি কথা Mamata-র

জেলার বাকী নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করলেন তৃণমূল ভবনে।

Updated By: Jan 22, 2021, 12:01 AM IST
টার্গেট ২২-০, মুর্শিদাবাদের Suvendu ঘনিষ্ঠ নেতার সঙ্গে ভার্চুয়ালি কথা Mamata-র

নিজস্ব প্রতিবেদন: ভোটের মুখে নজরে মুর্শিদাবাদ। দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে লাগাম দিতে কলকাতায় তৃণমূল ভবন থেকে জেলার নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। ভার্চুয়ালি কথা বললেন জেলা পরিষদের সভাধিপতি, শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত মোশারফ হোসেনের সঙ্গেও।  সূত্রের খবর, বৈঠকে বিধানসভা ভোটে ২২-০ টার্গেট নিয়ে জেলার নেতাদের একজোটে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী। মোশারফ আলাদা সময় চাইলেও তাঁকে সুব্রত বক্সির সঙ্গে কথা বলার নির্দেশ দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

মুর্শিদাবাদে দলে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে জেরবার তৃণমূল নেতৃত্ব। জেলায় চালু রসিকতা, তৃণমূলের যতজন নেতা ঠিক ততগুলো গোষ্ঠী! শাসকদলের অন্দরের খবর, জেলা সভাপতি আবু তাহেরের সঙ্গে জেলা পরিষদ সভাধিপতি মোশারফ হোসেনে ঝামেলা দীর্ঘদিনের। ফের তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন হুমায়ন কবীর। তাতে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বেড়েছে রেজিনগরে। শাওনী সিংহরায়কে নিয়ে সমস্যা রয়েছে। সবমিলিয়ে তৃণমূলে বিবাদ-গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মুর্শিদাবাদের সর্বত্রই। তাহলে উপায়? সমস্যা মেটাতে এদিন তৃণমূল ভবনে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, প্রশান্ত কিশোরকে নিয়ে জেলার নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

আরও পড়ুন: ভোটের মুখে জনসংযোগ কর্মসূচি, ফের নন্দীগ্রামে যেতে পারেন Mamata

সূত্রের খবর, বৈঠকে তৃণমূল নেত্রীর বার্তা দিয়েছেন, 'যারা দল ছাড়ছে ছাড়ুক। বাকিরা ভাল করে কাজ করুন। মিম মুর্শিদাবাদে ফ্যাক্টর নয়। সবাইমিলে একসঙ্গে চলতে হবে। নিজেদের মধ্যে ঝামেলা মিটিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়তে হবে। যে যাঁর নিজের এলাকায় কাজ করবেন। অন্য এলাকায় মাথা ঘামাতে হবে না।' জেলার নেতাকে নিয়ে কোর কমিটি গড়ে দিয়েছেন মমতা। সেই কমিটির মাথায় থাকবেন ফিরহাদ হাকিম। উল্লেখ্য, ২০১৫ সাল থেকে লোকসভা ভোট পর্যন্ত মুর্শিদাবাদে তৃণমূলের পর্যবেক্ষক ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। দলের কাছে খবর, শুভেন্দু দল ছাড়ার পরও তৃণমূলের অনেকেই তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছেন। 

আরও পড়ুন: 'বনমন্ত্রীর মুখ ও মুখোশ আলাদা', এবার রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে তোপ কল্যাণ ঘোষের

প্রসঙ্গত, গত লোকসভা ভোটে মুর্শিদাবাদে ৩ টি কেন্দ্রের মধ্যে ২টি জিতেছে তৃণমূল। আর ১টিতে কংগ্রেস। বিধানসভা এলাকার নিরিখে জেলার ২২ আসনের মধ্যে ১৬টিতে তৃণমূলে, ৫টিতে কংগ্রেস ও  ১টিতে বিজেপি এগিয়েছিল।