নারদ তদন্তে চাঞ্চল্যকর মোড়!

নারদ ঘুষকাণ্ডের তদন্তে নেমে চাঞ্চল্যকর তথ্য এল লালবাজারের হাতে। তদন্তে পুলিস জানতে পারে, স্টিং অপারেশনের ঠিক আগে দিয়েই নাকি নারদ কর্তা ম্যাথু স্যামুয়েলের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে কোটি টাকার লেনদেন হয়েছিল। এখন, সত্যিই এই বিশাল পরিমাণ টাকার লেনদেন হয়েছিল কি না? সেই টাকার উত্স কি? কোথা থেকে সেই টাকা আসে? কেন কী কারণে স্যামুয়েলকে সেই টাকা দেওয়া হয়? সবদিক খতিয়ে দেখতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিস।

Updated: Jul 22, 2016, 05:23 PM IST
নারদ তদন্তে চাঞ্চল্যকর মোড়!

ওয়েব ডেস্ক : নারদ ঘুষকাণ্ডের তদন্তে নেমে চাঞ্চল্যকর তথ্য এল লালবাজারের হাতে। তদন্তে পুলিস জানতে পারে, স্টিং অপারেশনের ঠিক আগে দিয়েই নাকি নারদ কর্তা ম্যাথু স্যামুয়েলের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে কোটি টাকার লেনদেন হয়েছিল। এখন, সত্যিই এই বিশাল পরিমাণ টাকার লেনদেন হয়েছিল কি না? সেই টাকার উত্স কি? কোথা থেকে সেই টাকা আসে? কেন কী কারণে স্যামুয়েলকে সেই টাকা দেওয়া হয়? সবদিক খতিয়ে দেখতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিস।

প্রাথমিক তদন্তের পর উঠে আসছে, ভিনরাজ্যের কোন এক রাজনীতিবিদ বা ব্যবসায়ী নাকি এই টাকা ম্যাথুকে দিয়েছেন। তবে সঠিক করে এখনও কিছু জানা যায়নি। আর যদি সত্যিই এই লেনদেন হয়ে থাকে, তবে এর পিছনে কি কোনও ব্যক্তিস্বার্থ কাজ করছে? এই সব প্রশ্নের উত্তরই এখন খুঁজছেন গোয়েন্দারা।

অন্যদিকে বৃহস্পতিবারই ম্যাথু স্যামুয়েলকে সাত দিনের মধ্যে কলকাতা গোয়েন্দা পুলিসের তদন্তকারী অফিসারের সামনে হাজিরার নির্দেশ দিয়েছেন সিটি মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট। সাত দিনের মধ্যে হাজির না হলে বা অনুপস্থিতির উপযুক্ত কারণ দর্শাতে না পারলে নারদ কর্তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদনও জানানো হতে পারে।

এদিকে দেশের বাইরে থাকায় প্রথমে এ বিষয়ে ম্যাথু স্যামুয়েলের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া না। পরে অবশ্য তিনি তাঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে কোনওরকম অবৈধ লেনদেনের অভিযোগ অস্বীকার করেন। দাবি করেন, তাঁর অ্যাকাউন্টের সমস্ত লেনদেন স্বচ্ছ। আর যে অ্যাকাউন্টটির কথা বলা হচ্ছে, সেটি তাঁর স্যালারি অ্যাকাউন্ট।