রূপার ব্যক্তিগত জীবনযাপনে আপত্তি আরএসএস নেতাদের, তাই রাজ্য কমিটি থেকে বাদ পড়লেন দ্রৌপদি

বিধানসভা ভোটের মুখে মিলিঝুলি রাজ্য কমিটি বিজেপির। বাদ পড়লেন প্রভাকর তিওয়ারি, অসীম সরকারের মতো নেতারা। ঠাঁই পেলেন না রূপা গাঙ্গুলি, দুধকুমার মণ্ডল। জায়গা পেলেন লকেট চ্যাটার্জি, জয়প্রকাশ মজুমদার। বিজেপির অন্দরের খবর, প্রাক্তন ও বর্তমান সভাপতির লড়াইয়ের জেরে এমন মিলিঝুলি রাজ্য কমিটি বিজেপিতে।   

Updated By: Dec 31, 2015, 09:46 AM IST
রূপার ব্যক্তিগত জীবনযাপনে আপত্তি আরএসএস নেতাদের, তাই রাজ্য কমিটি থেকে বাদ পড়লেন দ্রৌপদি

ওয়েব ডেস্ক: বিধানসভা ভোটের মুখে মিলিঝুলি রাজ্য কমিটি বিজেপির। বাদ পড়লেন প্রভাকর তিওয়ারি, অসীম সরকারের মতো নেতারা। ঠাঁই পেলেন না রূপা গাঙ্গুলি, দুধকুমার মণ্ডল। জায়গা পেলেন লকেট চ্যাটার্জি, জয়প্রকাশ মজুমদার। বিজেপির অন্দরের খবর, প্রাক্তন ও বর্তমান সভাপতির লড়াইয়ের জেরে এমন মিলিঝুলি রাজ্য কমিটি বিজেপিতে।   

বিধানসভা ভোটের মুখে রাহুল সিনহাকে সরিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতির ব্যাটন তুলে দেওয়া হয় আরএসএস নেতা দিলীপ ঘোষকে। বুধবার, তৈরি হল বিজেপির নয়া রাজ্য কমিটি। নতুন রাজ্য কমিটি থেকে বাদ পড়লেন অসীম সরকার, প্রভাকর তিওয়ারির মতো নেতারা। যাঁরা এলেন, তাঁদের বেশিরভাগই ২০১৪-য় লোকসভা ভোটের পর বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। বিজেপি সূত্রে খবর, প্রাক্তন ও বর্তমান রাজ্য সভাপতির লড়াইয়ের জেরে নতুন রাজ্য কমিটিতে জায়গা হল না অনেক নেতার।

রাজ্য সহ সভাপতির পদ পেলেন কংগ্রেস ছেড়ে আসা জয়প্রকাশ মজুমদার। লকেট চ্যাটার্জিও এলেন নতুন রাজ্য কমিটিতে। রাজ্য কমিটিতে ঠাঁই পাননি রূপা গাঙ্গুলি। মহিলা মোর্চার সভাপতি করা হয়েছে রূপা গাঙ্গুলিকে। পদের দিক দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ, কিন্তু বিজেপির রাজ্য কমিটির নিয়মানুসারে, রূপাকে আমন্ত্রণ জানালে তবেই তিনি রাজ্য কমিটির বৈঠকে উপস্থিত থাকতে পারবেন। আর এরপরই রাজনৈতিক মহলে জল্পনা, তবে কি রূপার ক্ষেত্রে ব্রেক কষল শীর্ষ নেতৃত্ব? লোকসভা নির্বাচনের পর মাঠে ময়দানে বিজেপির প্রতিনিধি হিসেবে যাঁকে সব চেয়ে বেশি দেখা গিয়েছে, তাঁকে মহিলা মোর্চার সামান্য দায়িত্ব দেওয়া হল কেন? যাঁকে মুখ করে বিধানসভা ভোটের ময়দানে নামার কথা হয়েছিল, তাঁকে কেন টানা হল না রাজ্য কমিটিতে? এ প্রশ্নগুলি উঠছেই। বিজেপির অন্দরের খবর,

রূপা গাঙ্গুলির ব্যক্তিগত জীবনযাপন নিয়ে আপত্তি রয়েছে রাজ্য আরএসএসের নেতাদের। তাই রূপাকে রাজ্য কমিটিতে তুলে আনতে সর্বভারতীয় নেতৃত্বের ইচ্ছা থাকলেও আরএসএসের চাপে তা হল না।  তবে রাজ্য কমিটিতে ঠাঁই না পেলেও কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সৌজন্যে মহিলা মোর্চার সভাপতি হিসেবে স্বাধীন আন্দোলনের দায়িত্ব পেলেন রূপা। রূপার মতো রাজ্য কমিটিতে জায়গা মেলেনি বীরভূমের দাপুটে নেতা দুধকুমার মণ্ডলের। দুধকুমার মণ্ডলকে দেওয়া হয়েছে কয়েকটি জেলার বিশেষ নির্বাচনী দায়িত্ব। প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি রাহুল সিনহার সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়েছেন রূপা ও দুধকুমার দুজনই। তাই এই দুজনকে না রেখে কি ইয়েস ম্যান রাজ্য কমটিই গড়ার চেষ্টা করলেন নয়া সভাপতি দিলীপ ঘোষ? প্রশ্নটা কিন্তু উঠেই যাচ্ছে।