সিপিএমে বেনজির বিপ্লব! পলিটব্যুরোকে তুলোধনা করল রাজ্য কমিটি!

 সিপিএম রাজ্য কমিটির বৈঠকে বেনজির বিপ্লব। সীতারাম ইয়েচুরি ও প্রকাশ কারাটকে সামনে বসিয়ে তুলোধনা করা হল পলিটব্যুরোকে। ভোটে হারের পর জোটের সমালোচনায় বিবৃতি কেন? প্রশ্ন তুলল রাজ্য কমিটি। 

Updated By: Jun 11, 2016, 09:53 PM IST
সিপিএমে বেনজির বিপ্লব! পলিটব্যুরোকে তুলোধনা করল রাজ্য কমিটি!

ওয়েব ডেস্ক:  সিপিএম রাজ্য কমিটির বৈঠকে বেনজির বিপ্লব। সীতারাম ইয়েচুরি ও প্রকাশ কারাটকে সামনে বসিয়ে তুলোধনা করা হল পলিটব্যুরোকে। ভোটে হারের পর জোটের সমালোচনায় বিবৃতি কেন? প্রশ্ন তুলল রাজ্য কমিটি। 

 

দুহাজার এগারোর পর থেকে প্রতি নির্বাচনী ব্যর্থতাতেই হয়েছে কেন্দ্র-রাজ্য টানাপোড়েন। তাত্ত্বিক যুক্তিতে পরস্পরকে দুষেছে এ কে গোপালন ভবন ও আলিমুদ্দিন। এবারও নির্বাচনী বিপর্যয়ের পর কটাক্ষ করতে ছাড়েনি পলিটব্যুরো। বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়, কংগ্রেসের সঙ্গে কোনও জোট বা সমঝোতায় না যাওয়ার পার্টি লাইন গ্রহণ করে কেন্দ্রীয় কমিটি। বাংলার নির্বাচনী রণনীতি তার সঙ্গে সমতা রেখে হয়নি। পার্টি কংগ্রেসে অনুমোদিত পার্টি লাইন অনুসারে কেন্দ্রীয় কমিটি যে সিদ্ধান্ত নেয়, জোটের সিদ্ধান্ত তার থেকে বিচ্যুতি।

 

তবে ভোটের পর কংগ্রেসের সঙ্গে যৌথভাবে প্রতিরোধ ও আন্দোলনের প্রশ্নে দাঁড়ি টানেনি পলিটব্যুরো। বরং প্রচ্ছন্ন সমর্থনই দিয়েছিলেন সিপিএম সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু, পলিটব্যুরোর বিবৃতির রাজ্য কমিটিতে যে ভাষায় প্রতিক্রিয়া হল তা বেনজির।

 

রাজ্য কমিটির নেতাদের পাল্টা তোপ, কংগ্রেসের সঙ্গে নির্বাচনী সমঝোতার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয় সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটি রাজ্য কমিটির যে বৈঠকে জোটের প্রস্তাব দেওয়া হয় তাতে ছিলেন প্রকাশ কারাট ও সীতারাম ইয়েচুরি তাহলে রাজ্য কমিটিকে হেয় করতে এই ধরনের বিবৃতি দেওয়া হল কেন?

 

নির্বাচনের ফল ভাল না হওয়াতেই কি এভাবে রাজ্যের ঘাড়ে দায় ঠেলার চেষ্টা? নির্বাচনের ফল ইতিবাচক হলেও কি পলিটব্যুরো একই বিবৃতি দিত? সিপিএমের নীতি কি তাহলে ভোটের ফলাফলের ওপরই নির্ভর করবে?

 

জোট নিয়ে তোপ দেগেছে জেলাগুলিও। কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের যৌক্তিকতা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছে বর্ধমান জেলা নেতৃত্ব। বর্ধমান জেলার প্রশ্ন,  নির্বাচনী ব্যর্থতার পরেও কি কংগ্রেসকে কাঁধে নিয়ে ঘুরতে হবে? জোট করে কংগ্রেসের ভোট পুরোপুরি বামেদের বাক্সে আসেনি বলে অভিযোগ জলপাইগুড়ি নেতৃত্বের। এসইউসিআইকে বৃহত্তর বাম জোটে সামিল করা নিয়েও উঠেছে প্রশ্ন। যদিও অধিকাংশ জেলা কমিটিই জোটের পক্ষেই মত দিয়েছে।