close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

পাক রেডার থেকে বাঁচতে মেঘলা আকাশে সেনাকে এয়ার স্ট্রাইকের পরামর্শ দিয়েছিলাম: মোদী

এরপর তিনি পরামর্শ দেন, খারাপ আবহাওয়া তাদের পক্ষে সুবিধাই করবে। পাকিস্তানের রেডারে ভারতের যুদ্ধবিমানকে চিহ্নিত করা যাবে না বলে দাবি নরেন্দ্র মোদীর। শেষমেশ বায়ুসেনাকে অভিযানে যাওয়ার নির্দেশ দেন তিনি।

Updated: May 12, 2019, 12:00 PM IST
পাক রেডার থেকে বাঁচতে মেঘলা আকাশে সেনাকে এয়ার স্ট্রাইকের পরামর্শ দিয়েছিলাম: মোদী
নিজস্ব অলঙ্করণ

নিজস্ব প্রতিবেদন: মেঘের আড়াল থেকে বালাকোটে এয়ারস্ট্রাইক করেছিল সেনা? কার্যত এমনই তত্ত্ব খাঁড়া করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। নিউজ নেশন-কে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে বালাকোট প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এয়ারস্ট্রাইক নিয়ে যখন পরিকল্পনা চলে, আবহাওয়া তখন খারাপ ছিল। কালো মেঘ আচ্ছান্ন আকাশ। ভারী বৃষ্টি হচ্ছিল। সে সময় অভিযান চালানো সঠিক সিদ্ধান্ত হবে কি না নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছিল না। তারিখ পরিবর্তনের পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। মোদীর কথায়, মনের ভিতর দুটো ভাবনা কাজ করছিল। এক, এটি অত্যন্ত গোপনীয়তার বিষয়। সময় পরিবর্তন করা উচিত হবে না। দ্বিতীয়, যাঁরা বিজ্ঞানটা বোঝেন, তাঁদের মধ্যে আমি পরি না। এরপর তিনি পরামর্শ দেন, খারাপ আবহাওয়া তাদের পক্ষে সুবিধাই করবে। পাকিস্তানের রেডারে ভারতের যুদ্ধবিমানকে চিহ্নিত করা যাবে না বলে দাবি নরেন্দ্র মোদীর। শেষমেশ বায়ুসেনাকে অভিযানে যাওয়ার নির্দেশ দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এমন মন্তব্য প্রকাশ্যে আসার পরই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। কটাক্ষ শুরু করেন বিরোধীরা। কংগ্রেস টুইটে লেখে, গত পাঁচ বছরে জুমলা ছড়াচ্ছেন তিনি। আর ভাবচ্ছেন মৌসম খারাপ, মেঘে ঢাকা...এ সব র্যাডারে ধরবে না।

আরও পড়ুন- প্রিয়ঙ্কার ব্যবহারে অপমানিত, উত্তরপ্রদেশে দল ছাড়লেন একঝাঁক কংগ্রেস নেতা

সত্যি কি মেঘে র্যাডার কাজ করে না! কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা? প্রাক্তন কূটনীতিক কেসি সিং বলেন, এয়ার প্রধান নিশ্চিয়ই জানতেন মেঘে র্যাডার কোনও প্রভাব ফেলে না। পাকিস্তান র্যাডার ভারতীয় বিমান চিহ্নিত করেছিল। সেনা নিয়ে রাজনীতি করা হচ্ছে বলে দাবি কেসি সিংয়ের। তবে, খারাপ আবহাওয়ার জন্য ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপে এ দিন বেগ পেতে হয় বায়ু সেনাকে। এরপরও নিখুঁতভাবে লক্ষ্যভেদ করতে সক্ষম হন বায়ুসেনার পাইলট। গুঁড়িয়ে দেওয়া হয় জইশ-ই-মহম্মদের জঙ্গি ঘাঁটি। কমপক্ষে ৩০০ জঙ্গি নিহত হয়েছে বলে বায়ু সেনার অনুমান।