''কা কিয়ে হো'', নীতিশ কুমারের জন্য গান লিখে ফেলল কংগ্রেস

দীর্ঘ সময় ধরে তিনি বিহারের জন্য ঠিক কী কী করেছেন সেগুলি জিজ্ঞেস করা হয়েছে এই গানের মাধ্যমে। 

Updated By: Oct 16, 2020, 07:29 PM IST
''কা কিয়ে হো'', নীতিশ কুমারের জন্য গান লিখে ফেলল কংগ্রেস

নিজস্ব প্রতিবেদন- বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের জন্য এবার গান লিখে ফেলল কংগ্রেস। কা কিয়ে হো- শীর্ষক সেই গানের মাধ্যমে নীতিশ কুমারকে একের পর এক প্রশ্ন করেছে কংগ্রেস। শুক্রবার সেই গান মুক্তি পেয়েছে। গত ১৫ বছর ধরে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার। আর দীর্ঘ সময় ধরে তিনি বিহারের জন্য ঠিক কী কী করেছেন সেগুলি জিজ্ঞেস করা হয়েছে এই গানের মাধ্যমে। আসলে কা কিয়ে হো গানের মাধ্যমে নীতিশ কুমার সরকারের ব্যর্থতা তুলে ধরার চেষ্টা করেছে কংগ্রেস। ২৮ অক্টোবর থেকে বিহারে প্রথম দফার নির্বাচন। তার আগে নির্বাচনী প্রচারের কাজে নেমে পড়েছে সব দলই। আর একে অপরকে প্রশ্নের মাধ্যমে বিহারের আবহাওয়া গরম করে তুলছে রাজনৈতিক দলগুলি। 

করোনা রুখতে গোটা দেশে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। সেই লকডাউন শুরু হবার পর দেশের বিভিন্ন অংশে আটকে পড়ে ভিন রাজ্যের শ্রমিকরা। প্রথম কিছুদিন জমানো টাকায় চললেও পরে দেখা দেয় অনটন। কাজ নেই, হাতে টাকা নেই। ফলে চরম সমস্যায় ভুগতে থাকেন শ্রমিকরা। নিজেদের ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগতে থাকেন। আর তার জন্যই বাক্স-প্যাটরা গুটিয়ে গ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা দেন শ্রমিকরা। ট্রেন, বাস, গাড়ি না চলায় কেউ পায়ে হেঁটে কেউ বা আবার সাইকেলে হাজার হাজার কিলোমিটার পাড়ি দেন। বহু শ্রমিক রাস্তায় প্রাণ হারান। দুর্ঘটনার শিকার হন। ভিন রাজ্যে শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন বিহার ও উত্তরপ্রদেশের বহু মানুষ। আর তাই করোনা লকডাউনের জেরে পরিযায়ী শ্রমিকদের মধ্যে বিহার ও উত্তরপ্রদেশের মানুষের সংখ্যাটাই বেশি। এই নিয়েই নীতিশ কুমারের সরকারকে কংগ্রেস গানের মাধ্যমে বিদ্ধ করেছে। বিহারে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় নীতিশ কুমারের সরকার কি এমন করেছে! জানতে চাওয়া হয়েছে সেই গানে। এমনকী রেলের চাকায় পিষ্ট শ্রমিকদের মৃত্যু নিয়েও নিতিশ সরকারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে কংগ্রেস।

আরও পড়ুন-  লাভ জিহাদ! সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী প্রেমের জালে, দেওয়া হচ্ছিল ধর্ম পরিবর্তনের জন্য চাপ!

এদিকে দ্বারভাঙার জলে সিট থেকে আলিগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্ট ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট ডঃ মসকুর আহমেদ উসমানিকে প্রার্থী হিসেবে দাঁড় করিয়েছে কংগ্রেস। তা নিয়ে বিহারের রাজনীতি উত্তাল। গত বছরেই উসমানির বিরুদ্ধে দেশ বিরোধী স্লোগান দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। চলতি বছরে টুইটারও উসমানির অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড করেছে। আর তাই তাঁকে প্রার্থী হিসেবে দাঁড় করানোয় কংগ্রেসকে একহাত নিয়েছেন মন্ত্রী গিরিরাজ সিং। তিনি বলেছেন, কংগ্রেসকে আগে ঠিক করতে হবে যে তারা জিন্নাহর আদর্শকে সমর্থন করে কিনা! কংগ্রেস এবং মহাগঠবন্ধন-এর এবার এই নিয়ে ভাবার সময় এসেছে।