তীব্র আক্রমণের পর লোকসভায় প্রধানমন্ত্রীকে জড়িয়ে ধরলেন রাহুল গান্ধী

বিরোধী আসন থেকে উঠে এসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে জড়িয়ে ধরেন রাহুল গান্ধী। প্রাথমিক ভাবে রাহুলের এহেন আচরণে প্রধানমন্ত্রী কিছুটা হকচকিয়ে যান। মুহূর্তে সামলে নিয়ে পালটা রাহুলের সঙ্গে হাত মেলান মোদী। 

Updated: Jul 20, 2018, 02:54 PM IST
তীব্র আক্রমণের পর লোকসভায় প্রধানমন্ত্রীকে জড়িয়ে ধরলেন রাহুল গান্ধী

নিজস্ব প্রতিবেদন: অনাস্থা প্রস্তাব বিতর্কের মধ্যেই লোকসভায় দেখা গেল বিরল দৃশ্য। চাঁচাছোলা ভাষায় আক্রমণের পর প্রধানমন্ত্রীকে গিয়ে জড়িয়ে ধরলেন বিরোধী পক্ষের প্রধান বক্তা রাহুল গান্ধী। এদিন রাহুল গান্ধীর বক্তব্য ঘিরে সরগরম হয়ে ওঠে লোকসভা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী-সহ তাঁর মন্ত্রিসভার সদস্যদের চাঁচাছোলা ভাষায় আক্রমণ করেন রাহুল। সংসদীয় বিধিনিষেধের তোয়াক্কা না করে এদিন লোকসভায় ২০১৯ নির্বাচনে বিরোধীদের সুর বেঁধে দেওয়ার চেষ্টা করেন তিনি। 

এদিন গণধোলাইয়ে মৃত্যু থেকে রাফালে চুক্তি। এদিন মোদী সরকারের উদ্দেশে চরম আক্রমণ শানান রাহুল। রাহুলের বক্তব্যের মধ্যে চরম শোরগোল শুরু হলে অধিবেশন কিছুক্ষণের জন্য মুলতুবি করে দেন স্পিকার। 

এদিন রাহুল বলেন, দেশের কৃষকদের কথা শ্রমিকদের মনের কথা প্রধানমন্ত্রী শুনতে পান না। প্রধানমন্ত্রী ব্যস্ত ধনীদের নিয়ে। প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন বছরে ২ কোটি চাকরি দেবেন। কোথায় চাকরি? প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য  করে রাহুল বলেন, প্রত্যেকের অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। কোথায় সেই টাকা। রাহুলের দাবি, কৃষকের বদলে ধনকুবেরদের ঋণ মকুব এই সরকারের অগ্রাধিকার। 

রাহুলের দাবি, দেশের নারী, সংখ্যালঘু, দলিত কেউ সুরক্ষিত নয়। আর এব্যাপারে কোনও কথা বলছেন না প্রধানমন্ত্রী। 

 

এদিন রাফালে চুক্তি নিয়েও মোদী সরকারকে বেঁধেন রাহুল। সেজন্য ফরাসি প্রেসিডেন্টের নাম করে রাহুল গান্ধী বলেন, একজন বিশিষ্ট ব্যবসায়ীকে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার জন্য এই চুক্তি করেছে মোদী সরকার। এমনকী প্রতিরক্ষা মন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ রাফালে চুক্তি নিয়ে মিথ্যে বলেছেন বলেও দাবি করেন রাহুল। বলেন, কী করে ১,৬০০ কোটি টাকা হল একএকটি বিমানের দাম। 

বক্তব্যের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ করে রাহুল বলেন, চালাকি ধরা পড়ে যাওয়ায় আমার দিকে তাকাতে পারছেন না প্রধানমন্ত্রী। আমার চোখের দিকে তাকানোর সাহস নেই তাঁর। তাই এদিকে ওদিকে তাকাচ্ছেন তিনি। রাহুলের এহেন পর্যবেক্ষণে হেসে ফেলেন প্রধানমন্ত্রী। যদিও এর পর দু'দলের সাংসদদের বাগ্বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন দু'পক্ষের সাংসদরা। ফলে অধিবেশন কয়েক মিনিটের জন্য মুলতুবি করে দেন সুমিত্রা মহাজন। 

ফের অধিবেশন শুরু হলেও রাহুলের আক্রমণের ঝাঁঝ কমাননি। লাগাতার আক্রমণে ফের সরগরম হয়ে ওঠে লোকসভা। শেষে সহিষ্ণুতার বার্তা দিয়ে রাহুল বলেন, বিজেপি ও আরএসএস আমাকে ভারতীয় হওয়ার মানে বুঝিয়েছে। আমাকে হিন্দু হওয়ার মানে বুঝিয়েছেন। আপনাদের বিরুদ্ধে আমার হাজারো অভিযোগ আছে। আপনারা আমাকে পাপ্পু বলেন। কিন্তু তাতে আপনাদের প্রতি আমার শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় এতটুকু ভাটা পড়েনি।  

রাতে কাকলি ঘোষ দস্তিদারের বাড়িতে হানা দিল্লি পুলিসের

এর পরই বিরোধী আসন থেকে উঠে এসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে জড়িয়ে ধরেন রাহুল গান্ধী। প্রাথমিক ভাবে রাহুলের এহেন আচরণে প্রধানমন্ত্রী কিছুটা হকচকিয়ে যান। মুহূর্তে সামলে নিয়ে পালটা রাহুলের সঙ্গে হাত মেলান মোদী। 

 

রাহুলের বক্তব্যের পর এদিন তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের ব্যাখ্যা দেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। তিনি বলেন, ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে ফরাসি রাষ্ট্রপতি নিজে জানিয়েছেন, রাফালে চুক্তির বাণিজ্যিক অংশ প্রকাশ করা সম্ভব নয়। আর ফরাসি সরকারের সঙ্গে এই চুক্তি করেছিলেন ইউপিএ সরকারের প্রতিরক্ষামন্ত্রী একে অ্যান্টনি।